default-image

অটোমান বাহিনীর হাতে ১৫ লাখের বেশি আর্মেনীয়র হত্যাকাণ্ডকে গণহত্যা বলে স্বীকৃতি দিয়েছেন যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন। স্থানীয় সময় গতকাল শনিবার তিনি এই স্বীকৃতি দেন। বাইডেনই যুক্তরাষ্ট্রের প্রথম প্রেসিডেন্ট, যিনি এই হত্যাকাণ্ডকে গণহত্যা বললেন। খবর এএফপির।

বিবৃতিতে বাইডেন বলেন, ‘অটোমান সাম্রাজ্যের সময় গণহত্যায় যেসব আর্মেনীয় মারা গেছেন, আমরা তাঁদের স্মরণ করছি। এ ধরনের নৃশংস ঘটনা প্রতিরোধে আমরা প্রতিশ্রুতিবদ্ধ। তিনি বলেন, যা ঘটেছে তা যেন আর কখনো না ঘটে, সে ব্যাপারে আমরা নিশ্চিত হতে চাই।’

বাইডেনের এই বিবৃতি আর্মেনিয়ার জনগণের জন্য বড় বিজয় বলে মনে করা হচ্ছে। ১৯৬৫ সালে উরুগুয়ে, ফ্রান্স, জার্মানি, কানাডা ও রাশিয়া ওই গণহত্যাকে স্বীকৃতি দিয়েছে।

বিজ্ঞাপন

তবে এ ধরনের বিবৃতিতে প্রতিক্রিয়া জানিয়েছেন তুরস্কের প্রেসিডেন্ট রিসেপ তাইয়েপ এরদোয়ান। ইস্তাম্বুলে এক বিবৃতিতে তিনি বলেন, এ ধরনের বিতর্ক ঐতিহাসিকদের মাধ্যমে রচিত হওয়া দরকার। তৃতীয় কোনো দল এটি নিয়ে রাজনীতি করতে পারে না।

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী মেভলুত কাভুসোগলু বলেছেন, কোনো শব্দ ইতিহাস বদল করতে পারে না। আবার রচনা করতেও পারে না। বাইডেনের বিবৃতির পর টুইটে কাভুসোগলু বলেন, আমরা আমাদের ইতিহাস নিয়ে অন্য কারও কাছ থেকে শিক্ষা নেব না।

তুরস্কের পররাষ্ট্রমন্ত্রী অসন্তোষ জানাতে মার্কিন রাষ্ট্রদূত ডেভিড স্যাটারফিল্ডকে তলব করেছেন। তিনি বলেন, বাইডেনের সিদ্ধান্ত দুই দেশের সম্পর্ককে ক্ষতিগ্রস্ত করবে এবং এটি পুনরুদ্ধার করা কঠিন হবে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ চলাকালে অটোমান সাম্রাজ্যের সময় ১৯১৫ থেকে ১৯১৭ সাল পর্যন্ত ১৫ লাখের বেশি আর্মেনীয়কে হত্যা করা হয়।

আর্মেনিয়ার প্রধানমন্ত্রী নিকোল পাশিনিয়ান জোরালো পদক্ষেপ নেওয়ায় বাইডেনকে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন