default-image

বিশ্বের সবচেয়ে শক্তিধর দেশের প্রেসিডেন্টের উড়োজাহাজ রাখা থাকে যেখানে, সেখানেই কিনা ঢুকে পড়ল এক ভবঘুরে। শুধু তা–ই নয়, পাঁচ ঘণ্টা ধরে সেখানে ঘুরেও বেড়িয়েছেন তিনি। গত ফেব্রুয়ারিতে মার্কিন প্রেসিডেন্টের উড়োজাহাজ এয়ার ফোর্স ওয়ানের ঘাঁটিতে এ ঘটনা ঘটে। বৃহস্পতিবার মার্কিন এয়ার ফোর্স বিষয়টি স্বীকার করে। খবর এএফপির।

এক প্রতিবেদনে দ্য এয়ার ফোর্সের ইন্সপেক্টর জেনারেল সামি সাইদ বলেন, গত ৪ ফেব্রুয়ারি একজন অবৈধ অনুপ্রবেশকারী জয়েন্ট বেজ অ্যান্ড্রুজে ঢুকে পড়েন। সেখানে টার্মাকে রাখা একটি সি–৪০ পরিবহন উড়োজাহাজে উঠে পড়েন তিনি। তবে তিনি প্রেসিডেন্টের এয়ার ফোর্স ওয়ান বা প্রতিরক্ষামন্ত্রীর বোয়িং ৭৪৭ উড়োজাহাজের দিকে যাননি।

যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট, প্রতিরক্ষামন্ত্রী ও অন্য শীর্ষ কর্মকর্তারা দক্ষিণ ওয়াশিংটনের এ সামরিক ঘাঁটি ব্যবহার করে থাকেন। কোথাও যেতে হলে এখান থেকে উড়াল দেন তাঁরা। অন্য রাষ্ট্রপ্রধানদের মতো গুরুত্বপূর্ণ অতিথিরা এ ঘাঁটি দিয়ে যুক্তরাষ্ট্রে নামেন। ফলে সেখানকার নিরাপত্তাব্যবস্থা অনেক কঠোর।

বিজ্ঞাপন

শনাক্ত না হওয়া ওই ব্যক্তি গাড়ি নিয়ে ঘাঁটিতে ঢুকে পড়েছিলেন। ধরা পড়ার আগে খাবারের জায়গা, ভিআইপি টার্মিনাল ও আরও নানা জায়গায় পাঁচ ঘণ্টা ঘোরাঘুরি করেন তিনি।

ইন্সপেক্টর জেনারেল জানান, এক নিরাপত্তাকর্মীর কারণে কোনো ধরনের বৈধ অনুমতি ছাড়া ওই ভবঘুরে ঘাঁটিতে ঢুকে পড়েন। ওই নিরাপত্তাকর্মী ব্যক্তিগত সমস্যার মধ্যে ছিলেন বলে ঠিকমতো মনোযোগ দিতে পারেননি। তা ছাড়া করোনাভাইরাস সংক্রমণ রোধে নানা ব্যবস্থাও এ ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধক হিসেবে কাজ করা। এ ছাড়া স্বয়ংক্রিয় গেটেও ত্রুটি ছিল। সব মিলিয়ে ফলাফল, কোনো বৈধ্য প্রবেশপত্র ছাড়া ভবঘুরে লোকটি ঢুকে পড়েন গুরুত্বপূর্ণ ওই স্থাপনায়।

ঘোরাঘুরি করতে গিয়ে একপর্যায়ে বোয়িং সি-৪০ পরিবহন উড়োজাহাজে ঢুকে পড়েন ওই ব্যক্তি। সেখানে প্রশিক্ষণার্থী দুই এয়ার ক্রু তাঁকে দেখলেও আমলে নেননি। পরে উড়োজাহাজটি থেকে নেমে টার্মিনালে এলে তাঁর অস্বাভাবিক আচরণ নিরাপত্তাকর্মীদের চোখে পড়ে, এরপর তিনি গ্রেপ্তার হন।

ইন্সপেক্টর জেনারেল সামি সাইদ নিশ্চিত করেন যে নির্দিষ্ট দূরত্ব এবং কয়েক পর্যায়ের নিরাপত্তায় থাকা এয়ার ফোর্সের কাছে কোনোভাবেই ঘেঁষতে পারেননি ওই ব্যক্তি।

প্রতিবদনে বলা হয়েছে, ওই ব্যক্তি মূলত গৃহহীন, নিজের মোটরগাড়িতে বাস করেন। এর আগে একবার গ্রেপ্তারের রেকর্ড থেকে জানা যাচ্ছে, কোনো ধরনের খারাপ উদ্দেশ্য তাঁর ছিল না।

জিজ্ঞাসাবাদে ভবঘুরে লোকটি বলেন, মূলত উড়োজাহাজ দেখার জন্যই এয়ার ফোর্সের ঘাঁটিতে ঢুকেছিলেন তিনি। তবে তাঁর বিরুদ্ধে কোনো অভিযোগ আনা হয়েছে কি না, জানা যায়নি।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন