default-image

যুক্তরাষ্ট্রের চরম বিভক্ত সমাজ নিয়ে উদ্বেগের কথা বলেছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। তিনি বলেছেন, সাম্প্রতিক নির্বাচনের মাধ্যমে দেশটির সমাজের চরম বিভক্তি প্রকাশ পেয়েছে। শুধু এক নির্বাচনের মধ্য দিয়েই মার্কিন সমাজের এ বিভক্তি দূর হবে না বলে তিনি উল্লেখ করেছেন।  

সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা তাঁর নতুন গ্রন্থ ‘এ প্রমিজড ল্যান্ড’ নিয়ে বিবিসি, সিবিএসসহ বেশ কিছু প্রভাবশালী সংবাদমাধ্যমের সঙ্গে কথা বলেছেন। এসব সাক্ষাৎকারে যুক্তরাষ্ট্রের নির্বাচন পরবর্তী–সময়ের উৎকণ্ঠা ফুটে উঠেছে।  

বিজ্ঞাপন

৩ নভেম্বরের নির্বাচনে পরাজয় মেনে নেননি প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। নির্বাচনে উভয় প্রার্থী কাছাকাছি ভোট পেয়েছেন। বারাক ওবামা বলেছেন, দুই প্রার্থীর সাত কোটির বেশি ভোট পাওয়া প্রমাণ করে আমেরিকার সমাজ কতটা বিভক্ত হয়ে পড়েছে।

এ নিয়ে তাঁর মধ্যে কোনো উদ্বেগ কাজ করছে কি না? এমন প্রশ্নের জবাবে বারাক ওবামা বলেছেন, অবশ্যই। এমন বাস্তবতায় গণতান্ত্রিক কাজকর্ম চালিয়ে যাওয়া বেশ দুরূহ হয়ে ওঠে।

আমেরিকার ইতিহাসে প্রথম কৃষ্ণাঙ্গ প্রেসিডেন্ট হিসেবে নির্বাচিত হয়েছিলেন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। মার্কিন উদারনৈতিক জনগণের কাছে এখনো প্রচণ্ড জনপ্রিয় এই সাবেক প্রেসিডেন্ট বলেছেন, ২০০৮ সালে তাঁর নির্বাচনের মধ্য দিয়েই মার্কিন সমাজে নতুন যাত্রার শুরু হয়।

সাক্ষাৎকারে প্রেসিডেন্ট ওবামা বলেছেন, পরিস্থিতি তাঁকে বাধ্য করেছে জো বাইডেনের পক্ষে মাঠে নামতে। প্রথা ভেঙেই ক্ষমতাসীন প্রেসিডেন্টের বিরুদ্ধে নির্বাচনী প্রচারে বারাক ওবামা যোগ দিয়েছেন। সরাসরি কঠিন সমালোচনা করেছেন বর্তমান প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে। পূর্বসূরি কোনো প্রেসিডেন্ট সাধারণত রাজনৈতিক কোলাহলের আড়ালে থাকেন। রাজনৈতিক বিতর্ক এড়িয়ে চলেন। বারাক ওবামা এবারের নির্বাচনে এ প্রথা থেকে বেরিয়ে এসে সরাসরি বাইডেনের পক্ষে মাঠে কাজ করেছেন।

নিজের পছন্দে এ কাজ করেননি বলে জানিয়েছেন ওবামা। এবারের পরিস্থিতিকে অস্বাভাবিক উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমি জানাতে চাই এমন অস্বাভাবিক পরিস্থিতিতে কোনো জরুরি নিয়মের লঙ্ঘন ঘটেনি।’

এমন সংকটজনক পরিস্থিতিতে সঠিক ভূমিকা না রাখার জন্য রিপাবলিকান দলের দায়িত্বশীল নেতৃত্বের কঠিন সমালোচনা করেছেন সাবেক প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা।

বিজ্ঞাপন

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প নিজের পরাজয় না মানার পর রিপাবলিকান দলের মূল নেতৃত্ব তাঁকে কার্যত সমর্থন দিয়ে যাচ্ছেন। ওবামা বলেন সময় আসে, যখন নিজের স্বার্থের চেয়ে দেশের স্বার্থকে ঊর্ধ্বে রাখতে হয়।

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের উদ্দেশে ওবামা বলেছেন, খেলার এ শেষ সময়েও যদি ট্রাম্প মনে করেন তাঁকে জনগণ মনে রাখবে, তাহলে নিজের চেয়ে দেশের স্বার্থ তাঁকে আগে দেখতে হবে। শান্তিপূর্ণ ক্ষমতার হস্তান্তর প্রসঙ্গে তিনি বলেন, কেউ আইনের ঊর্ধ্বে নয়।

ক্ষমতা একটা অস্থায়ী বিষয় উল্লেখ করে তিনি বলেছেন, এটাই গণতন্ত্রের সৌন্দর্য।

প্রেসিডেন্ট হিসেবে দায়িত্ব পালনের জন্য জো বাইডেনকে তাঁর পরামর্শ দেওয়ার প্রয়োজন পড়বে না উল্লেখ করে ওবামা বলেছেন জো বাইডেনকে যখনই সম্ভব, সাহায্য করতে তিনি প্রস্তুত।

বারাক ওবামা কৌতুক করেই বলেছেন, তিনি আবারও হোয়াইট হাউসের কর্মচারীদের সঙ্গে কাজ করা শুরু করে দিলে মিশেল ওবামা হয়তো তাঁকে ছেড়েই যাবেন। সাবেক ফার্স্ট লেডি মিশেল হয়তো বলবেন, এ কী করছ তুমি?

প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের নানা কথা নিয়ে সাবেক প্রেসিডেন্ট ওবামা বলেছেন, তিনি অনেক কথাই বলে থাকেন। ট্রাম্পের এসব কথা কখনোই ব্যক্তিগতভাবে বা গুরুত্বের সঙ্গে নেন না উল্লেখ করে তিনি বলেন, যদিও নানা সময়ে তাঁর এসব কথাবার্তা বেশ বিরক্তিকর ও ক্ষতিকর হয়ে উঠছে।

মন্তব্য পড়ুন 0