রিপাবলিকান পার্টির সম্ভাব্য প্রার্থী হিসেবে ডোনাল্ড ট্রাম্পকে এখনো মেনে নিতে প্রস্তুত নন বলে জানিয়েছেন মার্কিন কংগ্রেসের স্পিকার পল রায়ান। গত বৃহস্পতিবার সিএনএনের সঙ্গে এক সাক্ষাৎকারে রায়ান বলেন, ট্রাম্পকে সমর্থন করার মতো জায়গায় শেষ পর্যন্ত পৌঁছাবেন, সেই আশা তাঁর আছে। তবে তার আগে ট্রাম্পকে প্রমাণ করতে হবে যে, দলকে ঐক্যবদ্ধ করার মতো যোগ্যতা তাঁর আছে।

রিপাবলিকান দলের অঘোষিত সর্বোচ্চ নেতা হিসেবে পল রায়ানের এ মন্তব্য থেকে স্পষ্ট, এই দলের অনেক শীর্ষ নেতা এখনো ট্রাম্পকে মেনে নিতে প্রস্তুত নন। অর্থাৎ ট্রাম্প নিজে সহ অনেকে যে ঐক্যের ডাক দিচ্ছেন তা সহজ হবে না। দুই সাবেক প্রেসিডেন্ট জর্জ এইচ বুশ ও জর্জ ডব্লিউ বুশ তাঁদের মুখপাত্রের মাধ্যমে জানিয়ে দিয়েছেন, তাঁরা ট্রাম্পকে ভোট দেবেন না। দলের ২০১২ সালের প্রেসিডেন্ট পদপ্রার্থী মিট রমনিও জানিয়েছেন, ট্রাম্পকে সমর্থন করা তাঁর পক্ষে সম্ভব নয়। দলের প্রথম সারির আরও অনেক নেতাই ইতিপূর্বে ট্রাম্পের মনোনয়নের বিরোধিতা করেছেন। এঁদের কেউ কেউ অবশ্য এখন অবস্থান পরিবর্তনের আভাস দিচ্ছেন। রিপাবলিকান জাতীয় কমিটির সভাপতি রিন্স প্রিবাস ও সিনেটে রিপাবলিকান নেতা মিচ ম্যাককনেল নেতা-কর্মীদের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন, দলের ভাঙন ঠেকাতে সবার উচিত হবে ট্রাম্পের নেতৃত্বে ঐক্যবদ্ধ হওয়া।

ট্রাম্প নিজে অবশ্য দলীয় নেতাদের নেতিবাচক মনোভাবে মোটেই উদ্বিগ্ন নন। পল রায়ানের বক্তব্য শোনার পরপরই তিনি পাল্টাবিবৃতিতে জানান, রায়ান যে এজেন্ডা প্রস্তাব করেছেন, তিনি নিজে তা সমর্থন করতে প্রস্তুত নন। ভবিষ্যতে তাঁর সঙ্গে একযোগে কাজ করা সম্ভব হলেও হতে পারে।

হিলারিকে ঠেকাতেই ট্রাম্পকে সমর্থন!: ডেমোক্রেটিক পার্টির প্রার্থী হিলারি ক্লিনটনকে নির্বাচনে হারাতে পারবেন—ঠিক এ কারণেই ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকদের বড় অংশ তাঁকে সমর্থন করছেন। উল্টোদিকে হিলারির প্রতি সমর্থনের কারণও হলো, তাঁর বেশির ভাগ সমর্থক মনে করেন, তিনি ট্রাম্পকে হারাতে সক্ষম হবেন। রয়টার্স/ইপসস জরিপে এ তথ্য উঠে এসেছে।

জরিপে দেখা গেছে, ট্রাম্পের সমর্থনকারী ৪৬ শতাংশ ভোটার তাঁকে সমর্থনের পেছনে হিলারিকে ঠেকাতে পারার যোগ্যতাকেই মূল কারণ হিসেবে উল্লেখ করেছেন। আবার হিলারি-সমর্থক ৪৬ শতাংশ ট্রাম্পকে ঠেকাতে হিলারিকে যোগ্য বলে মনে করেন।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন