default-image

যুক্তরাষ্ট্রের সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পকে অভিশংসন আদালতে দণ্ড দেওয়া যায়নি। দলীয় ভাবাদর্শ নিয়ে মার্কিন সিনেটে চরমভাবে বিভক্ত আইনপ্রণেতাদের কাছ থেকে এমন সিদ্ধান্ত ছিল অনেকটাই প্রত্যাশিত। স্বাভাবিকভাবে মানুষের মধ্যে প্রশ্ন জেগেছে, প্রেসিডেন্ট হিসেবে জো বাইডেন ক্ষমতা গ্রহণের পরপরই ট্রাম্পের অভিশংসন নিয়ে মেতে ওঠার মধ্য দিয়ে কী অর্জিত হলো?

মার্কিন সংবিধানে গণতান্ত্রিক ব্যবস্থায় প্রেসিডেন্টকে সর্বোচ্চ ক্ষমতা দেওয়া হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসে মাত্র চারজন প্রেসিডেন্টকে অভিশংসনের মুখে পড়তে হয়েছে। তবে এখন পর্যন্ত কোনো প্রেসিডেন্টের বেলায় অভিশংসন দণ্ড কার্যকর করা যায়নি।

ডোনাল্ড ট্রাম্পই ইতিহাসের একমাত্র মার্কিন প্রেসিডেন্ট, যিনি কংগ্রেসে দুই দফা অভিশংসনের শিকার হয়েছেন। ক্ষমতার সর্বোচ্চ পর্যায়ে থেকে একজন বেপরোয়া প্রেসিডেন্টের পরিণতির কথা ইতিহাস এভাবেই স্মরণ করবে। এ ছাড়া ইতিহাসে এবারেই প্রথম মাত্র পাঁচ দিনের মাথায় সিনেট অভিশংসন আদালতের কাজ শেষ করেছে। অভিযোগ উপস্থাপন করা হয়েছে নাটকীয় দ্রুততার সঙ্গে। অভিযোগের খণ্ডন ও বিচারপ্রক্রিয়া নিয়ে ডেমোক্র্যাট ও রিপাবলিকানদের একধরনের সমঝোতাও ছিল নজিরবিহীন।

রিপাবলিকান পার্টির শীর্ষ নেতা সিনেটর মিচ ম্যাককনেলকে নিয়ে এর মধ্যেই আলোচনার শেষ নেই। ৬ জানুয়ারির সহিংসতার পর ম্যাককনেল ট্রাম্পের বিরুদ্ধেই কথা বলেছেন। বলেছিলেন, ক্যাপিটল হিলে হামলার দায়দায়িত্ব রয়েছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। অথচ অভিশংসন আদালতে ভোট দেওয়ার সময় ট্রাম্পের পক্ষেই ভোট দিয়েছেন তিনি। তাঁর এ ভূমিকা আহত করেছে লোকজনকে।

সবচেয়ে গুরুত্বপূর্ণ বিষয় হচ্ছে, একজন মার্কিন প্রেসিডেন্টকে ক্ষমতা থেকে বিদায় নেওয়ার পরও যে অভিশংসন আদালত বসানো যায়, তা প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেছে। এর আগে সাংবিধানিক বিতর্কে বলা হয়েছে, মার্কিন সংবিধানে ক্ষমতা থেকে চলে যাওয়ার পর কোনো প্রেসিডেন্টের নামে অভিশংসন আদালত বসানোর বিধান নেই।

বিজ্ঞাপন

ডোনাল্ড ট্রাম্প নিজে ও তাঁর কট্টর সমর্থকেরা অভিশংসন আদালতের রায়ের মধ্যে তাঁদের বিজয় দেখছেন। দ্রুত দেওয়া এক বিবৃতিতে ট্রাম্প ডেমোক্র্যাটদের ওপর আক্রমণ চালিয়েছেন নিজের মতো করে। তিনি বলেছেন, ‘মেক আমেরিকা গ্রেট’ আন্দোলন সবে শুরু হচ্ছে। শিগগিরই তা ব্যাপকভাবে উজ্জ্বল হয়ে উঠবে বলেও আশা প্রকাশ করেছেন তিনি।

প্রতিনিধি পরিষদের ১০ জন ও সিনেটের ৭ জন রিপাবলিকান আইনপ্রণেতা ছাড়া ট্রাম্পের বিপক্ষে দলের আর কেউ দাঁড়াননি। ফলে, ধরে নেওয়া হচ্ছে, ট্রাম্পই নিকট ভবিষ্যতে রিপাবলিকান পার্টির শীর্ষ নেতা হিসেবে থাকছেন। যদি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অন্য কোনো ঝামেলা মাথাচাড়া দিয়ে না ওঠে, তবে তাঁর প্রভাব থেকে এখনই দল বেরিয়ে আসতে পারছে না।

ইতিমধ্যে উদারনৈতিক ধারার সমর্থকদের পক্ষ থেকে প্রেসিডেন্ট জো বাইডেনের প্রতি একজন ভালো অ্যাটর্নি জেনারেল নিয়োগ দেওয়ার আহ্বান জানানো হয়েছে, যিনি ট্রাম্পের বিষয়ে তদন্ত শুরু করতে পারবেন এবং তাঁকে বিচারের সম্মুখীন করতে পারবেন।

ট্রাম্প আগেই বলেছেন, ২০২৪ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে তিনি আবার প্রার্থী হতে চান। অভিশংসন আদালতের রায় তাঁর বিপক্ষে না যাওয়ায় ওই নির্বাচনের জন্য ট্রাম্প অযোগ্য ঘোষিত হননি। তিনি তাঁর সমর্থকদের উজ্জীবিত করে সে লক্ষ্যেই এখন থেকে কাজ শুরু করবেন বলে মনে করা হচ্ছে।

অভিশংসন আদালতে উপস্থাপন করা অনেক ভিডিওচিত্র ও আগে থেকে অজানা অনেক তথ্য ট্রাম্পের কট্টর সমর্থকদের হয়তো নিজেদের বর্তমান অবস্থান থেকে সরাবে না। যুক্তরাষ্ট্রের উদার রক্ষণশীল ও স্বতন্ত্র চিন্তার লোকজন বিষয়টিকে নজরে রেখে তাঁদের ভবিষ্যৎ রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত গ্রহণ করবেন। মার্কিন নির্বাচনে জেতার জন্য স্বতন্ত্র ও স্বাধীন চিন্তার ভোটাররাই এখনো নিয়ামক শক্তি হয়ে আছেন। অভিশংসন আদালতের রায়ে অব্যাহতি পেলেও এসব ভোটারের মনে ট্রাম্পের যে ভাবমূর্তি গেঁথে গেছে, সেখান থেকে উত্তরণ খুব সহজ হবে বলে মনে করার কারণ নেই।

প্রতিনিধি পরিষদের ১০ জন ও সিনেটের ৭ জন রিপাবলিকান আইনপ্রণেতা ছাড়া ট্রাম্পের বিপক্ষে দলের আর কেউ দাঁড়াননি। ফলে, ধরে নেওয়া হচ্ছে, ট্রাম্পই নিকট ভবিষ্যতে রিপাবলিকান পার্টির শীর্ষ নেতা হিসেবে থাকছেন। যদি ট্রাম্পের বিরুদ্ধে অন্য কোনো ঝামেলা মাথাচাড়া দিয়ে না ওঠে, তবে তাঁর প্রভাব থেকে এখনই দল বেরিয়ে আসতে পারছে না।

রাজনৈতিক বিশ্লেষকেরা মনে করেন, রিপাবলিকান পার্টির কাছে ২০২২ সালের মধ্যবর্তী নির্বাচন বেশ জটিল হয়ে উঠবে। ট্রাম্পের সমর্থনের পেছনে ছুটবেন কেউ কেউ। কোনো কোনো নির্বাচনী এলাকায় এই সমর্থন প্রার্থীর জন্য বৈরী হয়ে দাঁড়াবে। রিপাবলিকান পার্টির শীর্ষ নেতা সিনেটর মিচ ম্যাককনেলকে নিয়ে এর মধ্যেই আলোচনার শেষ নেই। ৬ জানুয়ারির সহিংসতার পর ম্যাককনেল ট্রাম্পের বিরুদ্ধেই কথা বলেছেন। বলেছিলেন, ক্যাপিটল হিলে হামলার দায়দায়িত্ব রয়েছে প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের। অথচ অভিশংসন আদালতে ভোট দেওয়ার সময় ট্রাম্পের পক্ষেই ভোট দিয়েছেন তিনি। তাঁর এ ভূমিকা আহত করেছে লোকজনকে। শীর্ষ নেতা হয়েও দলীয় টানাপোড়েনে পড়েছেন মিচ ম্যাককনেল। ভোট দিয়েছেন ট্রাম্পের দণ্ডের বিপক্ষে। ইতিহাস মিচ ম্যাককনেলের কথা, না ভোটকে বিবেচনা করে তাঁকে স্মরণ করবে, তা নিয়ে কথা উঠেছে।

অভিশংসন প্রস্তাব গ্রহণ করা থেকে সিনেটে বিচার শেষ হওয়া পর্যন্ত ডেমোক্রেটিক পার্টির কি অন্য কিছু করার সুযোগ ছিল? সম্ভবত না। ইতিহাসে প্রথমবারের মতো ডেমোক্রেটিক পার্টিনিয়ন্ত্রিত প্রতিনিধি পরিষদে ১০ জন রিপাবলিকান সদস্যের সমর্থন আদায় করা সাফল্য হিসেবে দেখা হচ্ছে।

বিজ্ঞাপন

স্পিকার ন্যান্সি পেলোসি দ্রুততার সঙ্গে অভিশংসন প্রস্তাব অনুমোদন করাতে পেরেছেন। নয়জন অভিশংসন ব্যবস্থাপকের উপস্থাপনা ও দক্ষতা নিয়েও প্রশ্ন করতে দেখা যাচ্ছে না কোনো মহলকে। এর মধ্যে প্রধান অভিশংসন ব্যবস্থাপক হিসেবে কংগ্রেসম্যান জ্যামি রাস্কিন অনেকটাই তারকাখ্যাতি পেয়ে গেছেন। তাঁর যুক্তি ও আবেগের উপস্থাপন ডোনাল্ড ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের বার্তা যুক্তরাষ্ট্রসহ বিশ্ববাসীর কাছে ভিন্নমাত্রায় উপস্থাপিত হয়েছে বলে মনে করা হচ্ছে। আইনের সাবেক অধ্যাপক জ্যামি রাস্কিনকে আগামী দিনে ডেমোক্রেটিক পার্টির কোনো শীর্ষ পদে দেখা যাবে বলে এখনই আলোচনা শুরু হয়ে গেছে। যদিও ডেমোক্রেটিক পার্টির কোনো কোনো মহল মনে করে, অভিশংসন আদালতে সাক্ষীদের উপস্থাপন করলে ভালো হতো। কিন্তু জ্যামি মনে করেছেন, এতে আদালতের রায়ে কোনো প্রভাব পড়বে না। ফলে, এ নিয়ে সময়ক্ষেপণ করতে চায়নি কোনো পক্ষ।

ট্রাম্পের অভিশংসন বিচার নিয়ে কার্যত নীরব থেকেছেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন। তিনি নীরব থাকলেও অভিশংসন আদালতের কার্যক্রমকে তাঁর হাতের নাগাল থেকে বেরিয়ে যাওয়ার সুযোগ দেননি। রাজনীতিতে অভিজ্ঞ বাইডেন আগে থেকেই অভিশংসন আদালতের রায়ের বিষয়ে অনুমান করতে পেরেছিলেন। তাঁর ঐক্যের আহ্বান ও সমঝোতার সম্পর্কে যাতে ধস না নামে, সে ব্যাপারে সতর্ক ছিলেন তিনি। এ ক্ষেত্রে সফল হয়েছেন। ট্রাম্পের অভিশংসন বিচারকাজ দ্রুততার সঙ্গে শেষ করার কথাও বলেছেন বাইডেন।

এখন ট্রাম্প শাসনামলের ব্যর্থতা ও নিজ সাফল্যের কথা উল্লেখ করে যুক্তরাষ্ট্রের জনগণের কাছে নিজেকে উপস্থাপন করার কাজটা শুরু করতে পারবেন প্রেসিডেন্ট বাইডেন।

ট্রাম্পের আইনজীবী দলে যুক্ত হয়েছিলেন ব্রুস ক্যাস্টর, ডেভিড স্কোহেন ও মাইকেল ভিন। কোনো মামলায় মক্কেলের জয়ই আইনজীবীদের সাফল্য হিসেবে দেখা হয়। অভিশংসন মামলার শেষ দিকে যোগ দেওয়া ভিন ভালো উপস্থাপন করেছেন; ট্রাম্পের বিরুদ্ধে আনা অভিযোগের যুক্তি খণ্ডন করেছেন। মার্কিন ইতিহাসে এসব আইনজীবীও তারকাখ্যাতি নিয়ে টিকে থাকবেন। অভিশংসনপ্রক্রিয়ার এও এক পাওয়া।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন