ধর্মীয় স্বাধীনতা একটি মৌলিক স্বাধীনতা—এ কথাই ভারতকে বলতে চেয়েছিলেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামা। ধর্মীয় সহিষ্ণুতা নিয়ে ওবামার বক্তব্যের জেরে সৃষ্ট বিতর্কের পরিপ্রেক্ষিতে অবস্থান ব্যাখ্যা করতে গিয়ে মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তর এ কথা জানিয়েছে। খবর ডনের।
যুক্তরাষ্ট্রের রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিতে আয়োজিত বার্ষিক ‘ন্যাশনাল প্রেয়ার ব্রেকফাস্ট’ অনুষ্ঠানে প্রেসিডেন্ট ওবামা গত বৃহস্পতিবার বলেন, ভারতের সাম্প্রতিক ধর্মীয় ‘অসহিষ্ণুতার’ ঘটনাগুলো দেখলে দেশটির স্বাধীনতা আন্দোলনের নেতা মহাত্মা গান্ধী আঘাত পেতেন।
ওবামার ওই মন্তব্যে কড়া প্রতিক্রিয়া জানিয়ে ভারতের অর্থমন্ত্রী অরুণ জেটলি গত শনিবার ভারতে সহিষ্ণুতার সেরা উদাহরণ হিসেবে তিব্বতের নির্বাসিত আধ্যাত্মিক নেতা দালাই লামা ও ওবামার কাছাকাছি বসার কথা তুলে ধরেন। ‘ন্যাশনাল প্রেয়ার ব্রেকফাস্টে’ ওবামার সঙ্গে শুভেচ্ছা বিনিময় হয়েছিল ভারতে স্বেচ্ছা নির্বাসনে থাকা দালাই লামার।
শনিবার মার্কিন পররাষ্ট্র দপ্তরের সংবাদ ব্রিফিংয়ের সময় ভারতীয় সাংবাদিকেরা আবার প্রসঙ্গটি উত্থাপন করলে উপমুখপাত্র ম্যারি হার্ফ বলেন, প্রেসিডেন্ট ওবামা ধর্মীয় স্বাধীনতাকে একটি মৌলিক স্বাধীনতা হিসেবে বর্ণনা করতে চেয়েছেন এভাবে—সব বিশ্বাসের মানুষ অবাধে, নির্ভয়ে ও সমানভাবে নিজেদের ধর্ম পালন করতে পারলেই কোনো জাতি আরও শক্তিশালী হতে পারে।
হার্ফ বলেন, যুক্তরাষ্ট্র বিশ্বের সব দেশের সরকারকে মানুষের ধর্মীয় স্বাধীনতার প্রতি সম্মান দেখিয়ে সেই অধিকার নিশ্চিত করার জন্য উৎসাহিত করে।
ভারতে ধর্মীয় স্বাধীনতার বর্তমান অবস্থা সম্পর্কে জানতে চাইলে মুখপাত্র হার্ফ বলেন, এ ব্যাপারে তাঁর সুনির্দিষ্ট কোনো মূল্যায়ন নেই। ব্যাপারটাকে তাঁরা খুব গুরুত্বপূর্ণ মনে করেন।
মোদি সরকারের অধীনে ভারতে ধর্মীয় স্বাধীনতা পরিস্থিতি আগের চেয়ে খারাপ নাকি ভালো হয়েছে—জানতে চাইলে হার্ফ বলেন, ব্যাপারটা যাচাই করে দেখার জন্য কোনো মূল্যায়ন পাওয়া গেলে তিনি ও তাঁর সহযোগীরা খুশি হবেন।
বিজেপির মিত্র কট্টরপন্থী সংগঠনগুলোর সংখ্যালঘুদের ধর্মান্তর করা ও গির্জায় একের পর হামলার ঘটনায় ভারতে ও আন্তর্জাতিক মহলে উদ্বেগের সৃষ্টি হয়েছে। বিজেপি সরকারের নেতাদের বিভিন্ন হিন্দুত্ববাদী বক্তব্য ও উদ্যোগও সমালোচিত হচ্ছে।
প্রেসিডেন্ট ওবামা সম্প্রতি ভারত সফরকালেও এক ভাষণে ধর্মীয় সহিষ্ণুতা ও স্বাধীনতার পক্ষে কথা বলেছিলেন। তবে ক্ষমতাসীন হিন্দু জাতীয়তাবাদী বিজেপিকে উদ্দেশ করে তিনি ওই বক্তব্য দিয়েছেন বলে যে কথা উঠেছে, তা জোরালোভাবে খণ্ডন করেছে হোয়াইট হাউস।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন