বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আবদুল্লাহর জন্ম বাংলাদেশে। তবে বেড়ে উঠেছেন যুক্তরাষ্ট্রে। যুক্তরাষ্ট্রে বেড়ে উঠলেও বাংলাদেশকে তিনি বুকে ধারণ করেন বলে জানান।

আবদুল্লাহ বলেন, নিউইয়র্কে বসবাসরত বাংলাদেশি জনসমাজ তাঁকে সব সময় সমর্থন দিয়ে আসছে। তাঁর যেকোনো অর্জনকে তারা নিজেদেরই সাফল্য বলেই মনে করে। এ বিষয় তাঁকে বেশ আবেগাপ্লুত করে।

নিউইয়র্ক পুলিশের পরবর্তী ধাপের সব পদোন্নতি রাজনৈতিক বিবেচনায় হয়ে থাকে। বিশ্বের গুরুত্বপূর্ণ এই নগরীর পুলিশ বিভাগে বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত লোকজনের সংখ্যা বাড়ছে। তাঁরা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ পদে নিয়োগ পাচ্ছেন।

আবদুল্লাহর মতো চৌকস ও মেধাবী পুলিশ কর্মকর্তা কখনো না কখনো নিউইয়র্ক পুলিশের প্রধান হতে পারেন বলে বাংলাদেশি কমিউনিটির সদস্যদের মধ্যে একধরনের আশাবাদ তৈরি হয়েছে।

আবদুল্লাহর বাবা প্রয়াত খন্দকার মোদাব্বির আলী। মা মুহিবুন্নেছা চৌধুরী। শিশু বয়সে পরিবারের সঙ্গে যুক্তরাষ্ট্রে আসেন আবদুল্লাহ। নিউইয়র্কে কলেজ শিক্ষা সমাপ্ত করার পর ২০০৭ সালে এনওয়াইপিডিতে অফিসার হিসেবে যোগ দেন আবদুল্লাহ। ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে তিনি প্রথম বাংলাদেশি-আমেরিকান হিসেবে এনওয়াইপিডিতে ক্যাপ্টেন পদে পদোন্নতি লাভ করেন।

নিউইয়র্কের নগর প্রান্তের লং আইল্যান্ড সিটিতে মা মুহিবুন্নেছা চৌধুরী, স্ত্রী লীনা চৌধুরীসহ তিন সন্তানকে নিয়ে থাকেন আবদুল্লাহ।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন