বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত বছরের ৪ জুলাই মিশেল বাটলার হাসপাতালে যমজ সন্তানের জন্ম দেন। কার্টিস বেঁচে যায়। তবে তার সঙ্গে জন্ম নেওয়া আরেকজন বাঁচেনি। সাধারণত সময়ের এত আগে জন্ম নেওয়া শিশুদের বেঁচে থাকার সম্ভাবনা খুবই কম থাকে।

তবে কার্টিসের ভাগ্য ছিল সুপ্রসন্ন। জন্মের পরপরই তাকে নিবিড় পর্যবেক্ষণে নেওয়া হয়। টানা তিন মাস রাখা হয় ভেন্টিলেশনে। কীভাবে শ্বাস নিতে হয় এবং মুখ দিয়ে খেতে হয়, শেখানো হয়েছিল তাকে। হাসপাতালে দীর্ঘ ২৭৫ দিন কাটানোর পর চলতি বছরের এপ্রিলে ঘরে ফেরে কার্টিস।

কার্টিসের আরও তিন ভাইবোন রয়েছে। বয়সে তারা সবাই বড়। তাদের মা মিশেল বলেন, ‘কার্টিসকে বাড়িতে নেওয়া এবং আমার অন্য সন্তানদের অবাক করে দেওয়ার মুহূর্তটি আমার সারা জীবন মনে থাকবে।’

default-image

কার্টিসকে এখনো আলাদাভাবে অক্সিজেন সরবরাহ করতে হয়। খাবার খাওয়াতে প্রয়োজন পড়ে নলের। তবে চিকিৎসকেরা বলছেন, তার স্বাস্থ্য ভালো আছে।

কার্টিস জন্ম নেওয়ার সময় সেখানে উপস্থিত ছিলেন চিকিৎসক ব্রিয়ান সিমস। তিনি ইউনিভার্সিটি অব আলাবামার একজন শিশু বিশেষজ্ঞ। সিমস বলেন, ‘আমি প্রায় ২০ বছর ধরে এই কাজ করছি। এত কম সময়ে জন্ম নেওয়া কোনো শিশুকে কার্টিসের মতো শক্ত থাকতে দেখিনি। তার মধ্যে বিশেষ কিছু ছিল।’

কার্টিসের আগে সবচেয়ে কম সময় গর্ভে থাকার পর জন্ম নেওয়া শিশুর রেকর্ড ছিল যুক্তরাষ্ট্রের উইসকনসিসের রিচার্ড হাচিনসনের। তার জন্ম হয় মাত্র ২১ সপ্তাহ দুই দিনের মাথায়।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন