default-image

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সাবেক উপদেষ্টা স্টিফেন ব্যাননের টুইটার অ্যাকাউন্ট বাতিল করা হয়েছে। গতকাল বৃহস্পতিবার যুক্তরাষ্ট্রের শীর্ষ সংক্রামক রোগ বিশেষজ্ঞ অ্যান্টনি ফাউসির বিরুদ্ধে সহিংস ও আক্রমণাত্মক কথা বলায় তাঁর অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে দিয়েছে টুইটার কর্তৃপক্ষ।

যুক্তরাষ্ট্রের দ্য হিল অনলাইনের প্রতিবেদনে বলা হয়, ‘ওয়্যাররুমপ্যানডেমিক’ নামের ওই অ্যাকাউন্ট থেকে বিবৃতি প্রচার করার পরপরই ব্যবস্থা নেওয়া হয়।

বিজ্ঞাপন

টুইটার কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ব্যাননের অ্যাকাউন্টটি টুইটারের নীতিমালা লঙ্ঘন করেছিল। তিনি ডোনাল্ড ট্রাম্প দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হচ্ছেন বলে দাবি করেন। তিনি অ্যান্টনি ফাউসি এবং এফবিআইয়ের পরিচালক ক্রিস্টোফার ওয়ারের শিরশ্ছেদ করার কথা বলেন।

গার্ডিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়, দ্বিতীয় মেয়াদে নির্বাচিত হলে ট্রাম্পের উচিত হবে দুজনকে বের করে দেওয়া। এটুকু বলেই থেমে থাকেননি ট্রাম্প–ঘনিষ্ঠ ব্যানন। তিনি বলেন, ‘বর্শার ফলায় গেঁথে আমি তাদের মাথা হোয়াইট হাউসের দুই কোনায় রেখে দেব। কেন্দ্রীয় সরকারের আমলাদের সতর্ক করে দিতেই এটা করা হবে। সরকারের নির্দেশ মেনে চলুন নয়তো বের হয়ে যান। অন্য ধরনের খেলা এখন থামাতে হবে।’

ফাউসি ও ওয়ারের বিরুদ্ধে সহিংসতা একটি ‘গৃহযুদ্ধের অংশ’ হতে পারে বলে পরামর্শ দেন ব্যানন। বৃহস্পতিবার ইউটিউবে তাঁর ‘ওয়্যাররুম’ শোতে এ বক্তব্য তুলে ধরলে ইউটিউব কর্তৃপক্ষও তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়।

ইউটিউবে ব্যক্তি বা নির্দিষ্ট গোষ্ঠীর লোকদের বিরুদ্ধে হিংসাত্মক কাজ করতে প্ররোচিত করার বিষয়টি নিষিদ্ধ।

ফোর্বসের অনুরোধে সাড়া দেয়নি গুগল। কিন্তু যে ভিডিওতে তিনি ফাউসির শিরশ্ছেদের কথা বলেছেন তা ফেসবুকও পরে সরিয়ে দিয়েছে।

মন্তব্য পড়ুন 0