বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বাইডেন আরও বলেন, ‘আমার বিশ্বাস, শান্তিতে বসবাস করতে একটি কার্যকর, সার্বভৌম ও গণতান্ত্রিক ফিলিস্তিন রাষ্ট্রের পাশাপাশি একটি ইহুদি গণতান্ত্রিক রাষ্ট্র হিসেবে ইসরায়েলের ভবিষ্যৎ নিশ্চিত করতে দ্বি-রাষ্ট্রীয় সমাধানই সর্বোত্তম উপায় হতে পারে। এই মুহূর্তে আমরা সেই লক্ষ্য থেকে অনেক দূরে। তবে আমাদের কখনোই সে সম্ভাবনা বাদ দেওয়া উচিত নয়।’

জাতিসংঘে দেওয়া এই ভাষণে চীনের নাম না নিয়েই যুক্তরাষ্ট্রের প্রেসিডেন্ট বলেছেন, স্বৈরতন্ত্রের কাছে গণতন্ত্র পরাজিত হবে না। ভবিষ্যৎ তাদেরই হবে, যারা মানুষকে মুক্ত শ্বাস নেওয়ার ক্ষমতা দেয়; যারা মানুষকে দমিয়ে রাখে এবং দম বন্ধ করে দেয়, তাদের ভবিষ্যৎ সুখকর নয়।

বাইডেন আরও বলেন, ‘আমাদের সবাইকে জাতিগত, ক্ষুদ্র জাতিসত্তা বা ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর অত্যাচারের নিন্দা জানাতে হবে। তা জিনজিয়াং বা উত্তর ইথিওপিয়া বা বিশ্বের যেখানেই হোক না কেন।’

মার্কিন প্রেসিডেন্ট বলেন, ‘অতীতের যুদ্ধগুলো চালিয়ে যাওয়ার পরিবর্তে আমরা বৈশ্বিক মহামারি, জলবায়ু পরিবর্তন এবং সাইবার নিরাপত্তা হুমকির মতো চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় নজর দেব।’

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন