default-image

যুক্তরাষ্ট্রের ইন্ডিয়ানা অঙ্গরাজ্যের ইন্ডিয়ানাপোলিসে ফেডেক্সের কার্যালয়ে হামলা চালিয়েছিলেন পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানটির সাবেক এক কর্মী। গত বৃহস্পতিবার তাঁর গুলিতে নিহত হন আট ব্যক্তি। বন্দুকধারী নিজের গুলিতেই আত্মহত্যা করেন। স্থানীয় সময় গতকাল শুক্রবার বিষয়টি জানিয়েছেন মার্কিন কর্তৃপক্ষ।

বার্তা সংস্থা এএফপির খবরে বলা হয়, নিহত ব্যক্তিদের মধ্যে দক্ষিণ এশিয়ার শিখ সম্প্রদায়ের চারজন রয়েছেন। জাতিগত বা বর্ণবিদ্বেষ থেকে এই হামলা চালানো হয়েছে কি না, এ নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।

ইন্ডিয়ানাপোলিসের আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের কাছে ফেডেক্সের কার্যালয়ে হামলা চালান বন্দুকধারী। তাঁকে ফেডেক্সের সাবেক কর্মী হিসেবে শনাক্ত করা হয়েছে। ১৯ বছর বয়সী ওই ব্যক্তির নাম ব্রানডন হোল। ইন্ডিয়ানাপোলিসের ডেপুটি পুলিশ চিফ ক্রেইগ ম্যাককার্ট বলেন, ‘ফেডেক্সের কর্মকর্তারা নিশ্চিত করেছেন যে হোল তাঁদের সহকর্মী ছিলেন। ২০২০ সাল পর্যন্ত তিনি ফেডেক্সে কর্মরত ছিলেন।’

দ্য শিখ কোয়ালিশন জানায়, নিহত ব্যক্তিদের চারজন শিখ সম্প্রদায়ের লোক। এ ঘটনার একটি পূর্ণাঙ্গ তদন্ত চালাতে কর্তৃপক্ষের প্রতি দাবি জানিয়েছেন তাঁরা। সংগঠনটির নির্বাহী পরিচালক সাতজিৎ কৌর বলেন, ‘আমরা হামলাকারীর উদ্দেশ্য সম্পর্কে এখনো কিছু জানি না। শিখ কর্মীদের অধিক অবস্থান থাকা—এমন স্থানে এ হামলা চালানো হয়েছে।’

নিহত একজনের নাতি কমল চৌহান বলেন, ‘আমাদের পরিবার কর্মস্থলে, প্রার্থনাস্থলে কোথাও অনিরাপদ থাকতে চায় না। অনেক হয়েছে, আর নয়।’

বৃহস্পতিবার রাতে এই হামলার ঠিক এক সপ্তাহ আগে আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণে মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন নির্বাহী আদেশ জারি করেছিলেন। আমেরিকার আগ্নেয়াস্ত্র সহিংসতাকে মহামারির সঙ্গে তুলনা করে বাইডেন বলেন, বিষয়টি আমেরিকার জন্য আন্তর্জাতিকভাবে বিব্রতকর হয়ে উঠেছে। সর্বশেষ এ মর্মান্তিক ঘটনার পর হোয়াইট হাউসসহ অন্যান্য সরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা অর্ধনমিত রাখার ঘোষণা দেন তিনি।

বিজ্ঞাপন
যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন