default-image

যুক্তরাষ্ট্রে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধ রেখেছিল ফেসবুক। প্রতিষ্ঠানটি গতকাল বুধবার এক ব্লগ পোস্টে জানিয়েছে, আজ বৃহস্পতিবার থেকে সে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিচ্ছে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের এক প্রতিবেদনে বলা হয়, গত নভেম্বরে মার্কিন নির্বাচনকে কেন্দ্র করে ভুয়া খবর এবং অপপ্রচার বন্ধে সব ধরনের রাজনৈতিক, নির্বাচনী এবং সামাজিক ইস্যু-নির্ভর বিজ্ঞাপন প্রচার বন্ধ করে দিয়েছিল ফেসবুক। যুক্তরাষ্ট্রের জর্জিয়া অঙ্গরাজ্যের নির্বাচন উপলক্ষে সেই বন্ধাদেশ কিছুদিনের জন্য তুলে নেওয়া হলেও ফেসবুক আবার তা জারি করেছিল।

ফেসবুকের মতো গুগলও তাদের প্ল্যাটফর্মে রাজনৈতিক বিজ্ঞাপন নিষিদ্ধ করেছিল। সাময়িকভাবে সে নিষেধাজ্ঞা তুলে নিলেও গত ৬ জানুয়ারি যুক্তরাষ্ট্রের ক্যাপিটল হিলে সাবেক প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের সমর্থকদের হামলার পর তা পুনর্বহাল করা হয়। গত সপ্তাহে অবশ্য সে নিষেধাজ্ঞাও তুলে নেওয়া হয়েছে।

ডেমোক্রেটিক এবং রিপাবলিকান পার্টির ডিজিটাল কৌশল নির্ধারণ যাঁরা করেন, তাঁদের ভাষ্য হলো, প্ল্যাটফর্মগুলোর এমন নিষেধাজ্ঞা ভুয়া তথ্য রোধে ব্যর্থ হয়েছে। কারণ, বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে না হোক, ‘অরগানিক রিচ’-এর সাহায্যেই ভুয়া তথ্য ছড়িয়েছে।
ফেসবুকের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার ঘোষণাটির আগে গতকালই ডেমোক্রেটিক কংগ্রেসনাল ক্যাম্পেইন কমিটি এবং ডেমোক্রেটিক সিনেটোরিয়াল ক্যাম্পেইন কমিটির পক্ষ থেকে ফেসবুকের সমালোচনা করে বিবৃতি দেওয়া হয়। সেখানে বলা হয়, রাজনৈতিক বিজ্ঞাপনের ওপর ফেসবুকের নিষেধাজ্ঞা বন্ধের নির্দিষ্ট কোনো দিন তারিখ না থাকায় সংগঠনগুলো ভোটারদের উদ্দেশে প্রচারণা চালাতে পারছে না।

এরপর ফেসবুকের পক্ষ থেকে ঘোষণাটি আসে। ওই ব্লগ পোস্টে ফেসবুক আরও জানায়, তাদের সিস্টেম এখন আর রাজনৈতিক, নির্বাচনী কিংবা সামাজিক ইস্যু-নির্ভর বিজ্ঞাপনের মধ্যে তারতম্য করবে না। তা ছাড়া আরও কী কী ধরনের পরিবর্তন আনা যায়, তা আসন্ন মাসগুলোতে ভেবে দেখবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমটি।

বিজ্ঞাপন

ডেমোক্রেটিক এবং রিপাবলিকান পার্টির ডিজিটাল কৌশল নির্ধারণ যাঁরা করেন, তাঁদের ভাষ্য হলো, প্ল্যাটফর্মগুলোর এমন নিষেধাজ্ঞা ভুয়া তথ্য রোধে ব্যর্থ হয়েছে। কারণ, বিজ্ঞাপনের মাধ্যমে না হোক, ‘অরগানিক রিচ’-এর সাহায্যেই ভুয়া তথ্য ছড়িয়েছে।

ফেসবুকের নিষেধাজ্ঞা তুলে নেওয়ার ঘোষণাটির আগে গতকালই ডেমোক্রেটিক কংগ্রেসনাল ক্যাম্পেইন কমিটি এবং ডেমোক্রেটিক সিনেটোরিয়াল ক্যাম্পেইন কমিটির পক্ষ থেকে ফেসবুকের সমালোচনা করে বিবৃতি দেওয়া হয়। সেখানে বলা হয়, রাজনৈতিক বিজ্ঞাপনের ওপর ফেসবুকের নিষেধাজ্ঞা বন্ধের নির্দিষ্ট কোনো দিন তারিখ না থাকায় সংগঠনগুলো ভোটারদের উদ্দেশে প্রচারণা চালাতে পারছে না।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন