বিজ্ঞাপন

জেফ বেজোস ও ম্যাকেঞ্জি স্কট

২০১৯ সালে ২৫ বছরের দাম্পত্য জীবনের অবসান ঘটান আরেক মার্কিন ধনকুবের ও ই-কমার্স জায়ান্ট আমাজনের প্রতিষ্ঠাতা জেফ বেজোস। ম্যাকেঞ্জি স্কট এ বিচ্ছেদের মধ্য দিয়ে বিশ্বের তৃতীয় সেরা ধনী নারীর স্থান দখল করেন। জেফ বেজোসের সঙ্গে ডিভোর্সের পর তিনি পান ৩ হাজার ৬০০ কোটি ডলারের সম্পদ। এ বছরের মার্চে সিয়াটলের এক শিক্ষককে বিয়ে করেছেন ম্যাকেঞ্জি।

জোসেলিন ও এলিস উইলডেনস্টেইন

১৯৯০-এর দশকের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বিবাহবিচ্ছেদের ঘটনা ছিল জোসেলিন ও এলিস উইলডেনস্টেইনের মধ্যকার বিচ্ছেদ। ওই বিচ্ছেদের ফলে ২৫০ কোটি ডলার পান জোসেলিন। কিন্তু এই বিপুল অর্থ পরে হাতছাড়া হয়ে যায়। ২০১৮ সালে তিনি দেউলিয়া হয়ে যান। একপর্যায়ে তিনি জানতে পারেন, শিল্পকর্মের ব্যবসায়ী ও তাঁর বিলিয়নিয়ার সাবেক স্বামী এলিস উইলডেনস্টেইন তাঁর সঙ্গে প্রতারণা করেছিলেন।

ইলন মাস্ক ও জাস্টিন মাস্ক

কলেজজীবন থেকে বেশ কিছুদিন প্রেম করার পর বিলিয়নিয়ার ও টেসলার সিইও ইলন মাস্ক বিয়ে করেন জাস্টিনকে। ২০০৮ সালে বিচ্ছেদের আগে তাঁদের আট বছরের সংসারে ছয় সন্তান জন্ম নেয়। দুজনেই কীভাবে সন্তানদের দেখভাল করেছেন, তা নিয়ে বিভিন্ন সময় সংবাদমাধ্যমে স্মৃতিচারণাও করেছিলেন ইলন। বিচ্ছেদের পর বর্তমানে তিনি সন্তানদের দেখাশোনার খরচের পাশাপাশি জাস্টিনকে মাসে করমুক্ত ২০ হাজার ডলার করে দেন। এ বিচ্ছেদে মাসে তাঁর গড়ে প্রায় ১ লাখ ৭০ হাজার ডলার করে খরচ হয় বলে জানিয়েছিলেন ইলন মাস্ক।

এ ছাড়া অভিনেত্রী তালুলাহ রিলেকেও তালাক দিয়েছিলেন ইলন মাস্ক। প্রথমবার ২০১২ সালে রিলের সঙ্গে তাঁর বিচ্ছেদ হয়। সেবার রিলেকে দিতে হয়েছিল ৪২ কোটি ডলার। কিন্তু এক বছর পর তাঁরা আবার বিয়ে করেন। কিন্তু তিন বছর না যেতেই আবারও সে সংসারে ভাঙন দেখা দেয়। সেবার ইলনকে দিতে হয়েছিল ১৬০ কোটি ডলার।

বার্নি ও স্লাভিকা একেলস্টোন

২০০৯ সালে সাবেক ফর্মুলা ওয়ান চ্যাম্পিয়ন বার্নি একেলস্টোন ও মডেল স্লাভিকা একলস্টোনের বিচ্ছেদ হয়। তাঁদের সংসার ছিল ২৪ বছরের। তাঁদের বিচ্ছেদের সমঝোতার বিস্তারিত জানা না গেলেও বার্নি তাঁর সাবেক স্ত্রীকে প্রায় ১২০ কোটি ডলার দিয়েছিলেন। ব্রিটিশ ট্যাবলয়েড ‘দ্য সান’ এ তথ্য জানিয়েছে।

টাইগার উডস ও এলিন নর্ডেগ্রেন

২০০১ সালে ওপেন চ্যাম্পিয়নশিপে সুইডিস মডেল এলিন নর্ডেগ্রেনের সঙ্গে প্রথম দেখা হয়েছিল গলফ তারকা টাইগার উডসের। এর তিন বছর পর বারবাডোজে তাঁদের বিয়ে হয়েছিল। ২০০৯ সালে তাঁদের সম্পর্ক ভেঙে যায়। এর এক বছর পর তাঁদের আনুষ্ঠানিক বিচ্ছেদ হয়। এ সময় নর্ডেগ্রেনকে ১১০ মিলিয়ন ডলার দিতে হয়েছিল উডসকে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন