বিজ্ঞাপন

নিউ শেপার্ডের ফ্লাইটগুলো উপকক্ষপথের। তারা ফ্লাইটের যে নকশা করেছে, সেই অনুসারে ফ্লাইটটি ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত ওপরে যাবে। এরপর আবার ফিরে আসবে।

ভূপৃষ্ঠ থেকে ১০০ কিলোমিটার পর্যন্ত পৃথিবীর পরিবেশের সীমারেখা হিসেবে বিবেচনা করা হয়। এখান থেকে মহাকাশের সূচনা হিসেবে বিবেচনা করা হয়।

ব্লু অরিজিনের পরিচালক আরিয়েন কর্নেল বলেন, ‘এ পর্যন্ত পৃথিবী ও মহাকাশের সীমারেখা (কার্মান লাইন) পার হতে পেরেছেন ৫৬৯ জন। নিউ শেপার্ড ফ্লাইটের মাধ্যমে আমরা শিগগিরই এই চিত্র বদলে ফেলব এবং এই পরিবর্তনটা নাটকীয়ভাবে হবে।’

ব্লু অরিজিনের ফ্লাইটে কে কে থাকছেন, তা জানা যায়নি। এ ছাড়া ২০ জুলাইয়ের ওই ফ্লাইটে জেফ বেজোস নিজে থাকছেন কি না, তা নিয়ে কোনো মন্তব্য করেননি আরিয়েন কর্নেল।

এমন ফ্লাইট শুরু করতে যাচ্ছে ধনকুবের ইলন মাস্কও। আসছে শরতে তাঁরাও মহাকাশে ফ্লাইট চালু করবেন। আর এই ফ্লাইট যাবে কক্ষপথ পর্যন্ত। অভিযাত্রী হিসেবে যাঁরা থাকবেন, তাঁরা সবাই সাধারণ নাগরিক। এ ছাড়া তাঁদের ফ্লাইট মহাকাশে থাকবে বেশ কয়েক দিন।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন