default-image

যুক্তরাষ্ট্রের মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের ব্রুকলিন সেন্টার শহরে গুলিতে কৃষ্ণাঙ্গ যুবক নিহত হওয়ার বিষয়টিকে ‘দুর্ঘটনা’ বলছে পুলিশ। এই মৃত্যুর জেরে যুক্তরাষ্ট্রে আবার নাগরিক আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ছে। প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন সব পক্ষকে শান্ত থাকার আহ্বান জানিয়েছেন।

স্থানীয় সময় ১১ এপ্রিল বিকেলে ব্রুকলিন সেন্টার শহরে পুলিশের গুলিতে নিহত হন কৃষ্ণাঙ্গ যুবক দান্তে রাইট (২০)। ব্রুকলিন সেন্টার পুলিশের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে, ট্রাফিক আইন অমান্য করার পর দান্তে রাইটকে থামাতে গেলে বিপত্তি বাধে। তাঁর সঙ্গে পুলিশের তর্ক হয়। একপর্যায়ে দান্তে রাইট ঘটনাস্থল ত্যাগ করতে উদ্যত হন। ঘটনাস্থলে উপস্থিত পুলিশ কর্মকর্তা বৈদ্যুতিক শক ছুড়ে অজ্ঞান করার যন্ত্র বা ট্যাজার দিয়ে তাঁকে থামাতে উদ্যত হন।

ব্রুকলিন সেন্টার পুলিশের প্রধান টিম গ্যাননের ভাষ্য, পুলিশের সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা তাঁর কোমরে থাকা ট্যাজার ব্যবহার করতে চেয়েছিলেন। কিন্তু তিনি ভুলক্রমে পিস্তল ব্যবহার করে ফেলেন। এতে ঘটনাস্থলেই নিহত হন দান্তে রাইট।

ব্রুকলিন সেন্টার পুলিশের যে কর্মকর্তার গুলিতে দান্তে রাইট নিহত হয়েছেন, তাঁর নাম প্রকাশ করা হয়েছে। তাঁর নাম কিম পটার। ব্রুকলিন সেন্টার শহরের পুলিশ বিভাগে তাঁর কর্মকাল ২৬ বছর। তাঁকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দিয়ে ঘটনার তদন্ত শুরু হয়েছে।

কিম পটার বলেছেন, ভুলবশত ট্যাজেরার বদলে তাঁর হাতে পিস্তল চলে আসে। স্বাধীন ও গ্রহণযোগ্য তদন্তের মাধ্যমে এমন সত্যই পাওয়া যাবে বলে তিনি আশাবাদী।

পুলিশ দান্তে রাইটের মৃত্যুকে নিছক ‘দুর্ঘটনা’ বললেও এ নিয়ে ব্রুকলিন সেন্টারসহ যুক্তরাষ্ট্রের অন্যত্র আন্দোলন ছড়িয়ে পড়ছে।

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ব্রুকলিন সেন্টার শহরে কারফিউ জারি করা হয়। তবে কারফিউ অমান্য করেই বিক্ষোভকারীরা সমাবেশ করেন।

বিজ্ঞাপন

স্থানীয় সময় সোমবার দ্বিতীয় দিনের মতো ব্রুকলিন সেন্টার শহরে বিক্ষোভ-সমাবেশ চলছে। নগরীর বিভিন্ন এলাকায় লুটপাটের অভিযোগ পাওয়া গেছে। পরিস্থিতি সামাল দিতে ন্যাশনাল গার্ড নামানো হয়েছে।

ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারসহ অন্যান্য নাগরিক আন্দোলনকারীরা ব্রুকলিন সেন্টার শহরের পুলিশ সদর দপ্তর এলাকা ঘেরাও করে বোতল ছুড়েছেন। পুলিশ দফায় দফায় কাঁদানে গ্যাসের শেল ছুড়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করেছে।

নগরীর মেয়র মাইক ইলিয়ট জানিয়েছেন, একটি যৌথ কমান্ড সেন্টার থেকে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা করা হচ্ছে। এই মুহূর্তে লোকজনকে রাজপথের বিক্ষোভ থেকে ঘরে পাঠানোকেই গুরুত্ব দেওয়া হচ্ছে।

দান্তে রাইট হত্যার প্রতিবাদে নিউইয়র্কসহ যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য নগরীতেও সোমবার বিক্ষোভ-সমাবেশ হয়।

সোমবার বিকেলে নিউইয়র্কের ব্রুকলিনে বিপুলসংখ্যক বিক্ষোভকারী বিক্ষোভ দেখান। তাঁরা এই মৃত্যুকে ‘হত্যাকাণ্ড’ হিসেবে অভিহিত করে স্লোগান দেন। ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটারসহ অন্যান্য নাগরিক আন্দোলনের সমর্থকেরা এই ঘটনাকে আমেরিকার বর্ণবৈষম্যের নিষ্ঠুর বলি হিসেবে অভিহিত করেন।

ব্রুকলিন থেকে বিক্ষোভ শুরু হয়ে তা ম্যানহাটন ব্রিজের দিকে এগিয়ে যায়। এতে ম্যানহাটন ব্রিজ দিনের উল্লেখযোগ্য সময়ের জন্য বন্ধ হয়ে যায়। নিউইয়র্ক পুলিশের এক টুইটে ম্যানহাটন ব্রিজ এলাকা এড়িয়ে গাড়ি চালানোর জন্য নাগরিকদের অনুরোধ জানানো হয়।

গত বছরের মে মাসে মিনেসোটা অঙ্গরাজ্যের মিনিয়াপোলিস শহরে শ্বেতাঙ্গ পুলিশ কর্মকর্তার হাতে নিহত হন কৃষ্ণাঙ্গ যুবক জর্জ ফ্লয়েড। তাঁর মৃত্যুর জেরে বর্ণবাদবিরোধী আন্দোলনে উত্তাল হয়ে ওঠে পুরো যুক্তরাষ্ট্র। মিনিয়াপোলিসের উপকণ্ঠেই ব্রুকলিন সেন্টার অবস্থিত।

এখন ফ্লয়েড হত্যার বিচার চলছে। এই বিচারের খুঁটিনাটি যুক্তরাষ্ট্রের প্রধান প্রধান সংবাদমাধ্যমে গুরুত্বসহকারে প্রচার করা হচ্ছে। ফ্লয়েড হত্যার বিচার চলার মধ্যেই মিনিয়াপোলিসে পুলিশের হাতে আরেক কৃষ্ণাঙ্গ প্রাণ হারালেন।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন