বিজ্ঞাপন

মার্কিন গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়, ন্যাশনাল পার্ক স্টেডিয়ামে দুটি দলের মধ্যে বেসবল খেলা চলছিল। খেলার ষষ্ঠ ইনিংস চলাকালে বাইরে কয়েক দফা গুলির শব্দ শোনা যায়। মুহূর্তে স্টেডিয়ামের দর্শকদের মধ্যে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। শুরু হয় ছোটাছুটি। এ সময় মাইকে দর্শকদের শান্ত থাকার জন্য বলা হয়।

গুলির এই ঘটনার পর স্টেডিয়ামে খেলা বন্ধ হয়ে যায়। স্থগিত হওয়া খেলা আগামী রোববার অনুষ্ঠিত হবে বলে জানানো হয়েছে।

ওয়াশিংটন ডিসির যে এলাকায় এই গুলির ঘটনা ঘটেছে, সেটি সাম্প্রতিক সময়ে আগ্নেয়াস্ত্র সহিংসতার জন্য চিহ্নিত হয়ে উঠেছে।

রাজধানী ওয়াশিংটন ডিসিসহ যুক্তরাষ্ট্রের বড় বড় নগরী এখন আগ্নেয়াস্ত্র সমস্যায় জর্জরিত। বৈধ-অবৈধ অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ করতে ব্যর্থ হচ্ছে নগরীগুলো। এমন প্রেক্ষাপটে নিউইয়র্ক, শিকাগো, ফিলাডেলফিয়া, লস অ্যাঞ্জেলেসের মতো নগরীর মেয়র ও পুলিশপ্রধানেরা গত সপ্তাহে এ নিয়ে হোয়াইট হাউসে সভা করেছেন।

যুক্তরাষ্ট্রের সংবিধানে অস্ত্র রাখার অধিকার নাগরিকদের দেওয়া হয়েছে। তবে অঙ্গরাজ্যগুলো নিজস্ব আইনের মাধ্যম আগ্নেয়াস্ত্র নিয়ন্ত্রণ করে।

যুক্তরাষ্ট্রের অধিকাংশ অঙ্গরাজ্যেই অস্ত্র ক্রয় করা সহজ। সহজে পাওয়া এসব অস্ত্র সড়কপথে এক অঙ্গরাজ্য থেকে অন্য অঙ্গরাজ্যে স্থানান্তরিত হয়।

প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন আগ্নেয়াস্ত্র সমস্যাকে আমেরিকার জাতীয় লজ্জা হিসেবে অভিহিত করে তা নিয়ন্ত্রণে কঠোর আইন প্রণয়নের আহ্বান জানিয়েছেন। কিন্তু রিপাবলিকান ও রক্ষণশীলদের কারণে এ নিয়ে কোনো জাতীয় উদ্যোগ এখনো সফল হয়নি।

আগ্নেয়াস্ত্র সহিংসতা নিয়ন্ত্রণ ফেডারেল বিভিন্ন সংস্থার সমন্বয়ে ইতিমধ্যেই স্ট্রাইকিং ফোর্স গঠন করা হয়েছে। ওয়াশিংটন ডিসিতে এমন স্টাইকিং ফোর্স কাজ করছে বলে মার্কিন সংবাদমাধ্যম থেকে জানা যাচ্ছে।

শনিবার ওয়াশিংটন ডিসিতে স্টেডিয়ামের বাইরে গুলির ঘটনার মাত্র এক দিন আগেই নগরীতে ছয় বছরের এক মেয়েশিশু গুলিবিদ্ধ হয়ে মারা যায়। এই ঘটনায় পাঁচ ব্যক্তি আহত হয়। এই ঘটনার জন্য দায়ী ব্যক্তিকে গ্রেপ্তারে ৬০ হাজার ডলার পুরস্কার ঘোষণা করেছে পুলিশ। তবে তারা এখনো কাউকে গ্রেপ্তার করতে পারেনি।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন