বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জন কিরবি বলেন, তাদের (রাশিয়া) সামর্থ্যের ওপর এর প্রভাব পড়তে যাচ্ছে।
রুশ যুদ্ধজাহাজটির এই পরিণতির সঠিক কারণ যুক্তরাষ্ট্র এখন পর্যন্ত নিশ্চিত করতে পারেনি বলে জানান জন কিরবি।

পেন্টাগনের মুখপাত্র বলেন, ইউক্রেনের দাবি নাকচ করে দেওয়ার মতো অবস্থানে তাঁরা নেই। নেপচুন ক্ষেপণাস্ত্র বা অন্য কোনো ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে ইউক্রেন এই যুদ্ধজাহাজে হামলা চালিয়ে থাকতে পারে। এটা সম্ভব।

যুক্তরাষ্ট্রের জাতীয় নিরাপত্তা উপদেষ্টা জ্যাক সুলিভান বলেছেন, যেভাবে ঘটনাটি সামনে এল, তাতে নিশ্চিতভাবে এটা রাশিয়ার জন্য একটা বড় ধাক্কা।

৫১০ নাবিকের মিসাইল ক্রুজার মস্কভাকে রাশিয়ার সামরিক বাহিনীর শক্তির প্রতীক হিসেবে বিবেচনা করা হচ্ছিল।

ইউক্রেন যুদ্ধে রুশ নৌবাহিনীর নেতৃত্ব দিচ্ছিল এই যুদ্ধজাহাজ। ১৮৬ দশমিক ৪ মিটার দীর্ঘ যুদ্ধজাহাজটির গতি ছিল ঘণ্টায় ৩২ নটিক্যাল মাইল বা ৫৯ কিলোমিটার।
সোভিয়েত আমলের যুদ্ধজাহাজ মস্কভা ১৯৮৩ সালে কমিশন লাভ করে।

যুদ্ধজাহাজটি ৭০০ কিলোমিটার দূরে আঘাত হানতে সক্ষম ১৬টি ভুলকান ক্রুজ ক্ষেপণাস্ত্র দিয়ে সজ্জিত ছিল। এ ছাড়া মস্কভায় সাবমেরিন বিধ্বংসী ও মাইন-টর্পেডো অস্ত্র ছিল।

যদি ইউক্রেনের দাবি সত্য হয়, তাহলে ১২ হাজার ৪৯০ টনের মস্কভা হবে দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর শত্রুপক্ষের হামলায় ডুবে যাওয়া সবচেয়ে বড় যুদ্ধজাহাজ। সিরিয়া যুদ্ধেও মিসাইল ক্রুজারটি মোতায়েন করা হয়েছিল।

গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে রুশ হামলা শুরু হয়। চলমান যুদ্ধে গত মাসে রাশিয়ার ল্যান্ডিং সাপোর্ট জাহাজ সারাতোভ ধ্বংস করে দেওয়ার দাবি করেছিল ইউক্রেন।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন