বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জার্মানির বিদায়ী চ্যান্সেলর ম্যার্কেল যুক্তরাষ্ট্র সফর করছেন। তাঁকে হোয়াইট হাউসে স্বাগত জানান বাইডেন। হোয়াইট হাউসের ওভাল অফিসে দুই নেতা ঘণ্টাব্যাপী বৈঠক করেন। দ্বিপক্ষীয় এই বৈঠক শেষে বাইডেন ও ম্যার্কেল যৌথ সংবাদ সম্মেলনে আসেন।

বাইডেন বলেন, রাশিয়া-জার্মানির মধ্যকার গ্যাস পাইপলাইন নিয়ে তিনি ম্যার্কেলের কাছে তাঁর উদ্বেগের কথা বৈঠকে তুলে ধরেছেন। তবে তাঁরা এ বিষয়ে একমত হয়েছেন যে জ্বালানিকে অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করতে দেওয়া হবে না রাশিয়াকে।

দুই মিত্র দেশ যুক্তরাষ্ট্র ও জার্মানি চীনের অগণতান্ত্রিক কর্মকাণ্ডের বিরোধিতা করেছে বলেও জানান বাইডেন। তিনি বলেন, চীন বা অন্য যেকোনো দেশকে যদি তাঁরা মুক্ত সমাজের বিরুদ্ধে কাজ করতে দেখেন, সে ক্ষেত্রে দুই দেশে গণতান্ত্রিক মূল্যবোধ ও মানবাধিকারের জন্য একসঙ্গে কাজ করবে।

জার্মান চ্যান্সেলর হিসেবে ম্যার্কেল শেষবারের মতো হোয়াইট হাউসে গেছেন। কারণ, তিনি রাজনীতি থেকে অবসর নিচ্ছেন।

ম্যার্কেল ২০০৫ সালে জার্মানির চ্যান্সেলর হন। আগামী সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠেয় নির্বাচনে তিনি আর দাঁড়াচ্ছেন না।

জার্মান চ্যান্সেলর হিসেবে বাইডেনসহ চারজন মার্কিন প্রেসিডেন্টের সঙ্গে কাজ করার অভিজ্ঞতা রয়েছে ম্যার্কেলের। বাকি তিন মার্কিন প্রেসিডেন্ট হলেন জর্জ ডব্লিউ বুশ, বারাক ওবামা ও ডোনাল্ড ট্রাম্প। চারজন মার্কিন প্রেসিডেন্টের মধ্যে ট্রাম্পের সঙ্গে শীতল সম্পর্ক ছিল ম্যার্কেলের।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন