ভার্জের প্রতিবেদন অনুযায়ী, ইয়ান গুডফেলো বলেন, ‘আমি দৃঢ়ভাবে বিশ্বাস করি আরও নমনীয়তা আমার দলের জন্য সর্বোত্তম নীতি হবে।’ পেশাজীবীদের জনপ্রিয় সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম লিংকডইনে গুডফেলোর পেজের তথ্য অনুযায়ী, ২০১৯ সাল থেকে তিনি অ্যাপলের কর্মী। ইয়ান মেশিন লার্নিংয়ে অভিজ্ঞ।

ফরচুন ম্যাগাজিনের তথ্য অনুযায়ী, এ বছরের ১৩ থেকে ১৯ এপ্রিলের মধ্যে অ্যাপলের ৬৫২ জন কর্মী ব্লাইন্ড নামের একটি প্রতিষ্ঠানের করা সামাজিক যোগাযোগ নেটওয়ার্ক–সংক্রান্ত জরিপে অংশ নেন। তাতে দেখা যায়, জরিপে অংশ নেওয়া অ্যাপলের ৭৫ শতাংশ কর্মী প্রতিষ্ঠানটির অফিসে ফেরার নীতিতে সন্তুষ্ট নন।

গত ১১ এপ্রিল থেকে মিশ্র পদ্ধতিতে অফিস শুরু করে অ্যাপল। কর্মীদের সপ্তাহে অন্তত এক দিন অফিসে উপস্থিত থাকার নির্দেশ দেওয়া হয়। পরে ঘোষণা দেওয়া হয় ২৩ মে থেকে সপ্তাহে তিন দিন অফিস করতে হবে। কিন্তু এতে অনেক কর্মীর মধ্যে অসন্তোষ দেখা দিলেও সিদ্ধান্তে অটল থাকেন অ্যাপলের প্রধান টিম কুক।

ইয়ান গুডফেলো অ্যাপলে ঠিক কত টাকা বেতন পেতেন, তা সঠিকভাবে জানা যায়নি। তবে ভারতের ইন্ডিয়া টুডের খবর অনুযায়ী, অ্যাপলের আগে তিনি যে বহুজাতিক সংস্থায় কাজ করতেন, সেখানে তাঁর বার্ষিক বেতন ছিল আট লাখ মার্কিন ডলার। তাই ধরে নেওয়া যায় অ্যাপলে তাঁর বেতন এর চেয়ে কম ছিল না। বাড়িতে বসে কাজ করতে চাওয়ার ইচ্ছার কারণে প্রায় সাত কোটি টাকার চাকরি ছেড়ে দিলেন গুডফেলো।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন