বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মেজর জাতে জার্মান শেফার্ড কুকুর। চ্যাম্পও একই জাতের কুকুর। তবে চ্যাম্পকে নিয়ে খুব একটা সমস্যা হয়নি। কুকুরটির বয়স এখন ১৩ বছর। বয়স বাড়ার কারণে কুকরটি শারীরিকভাবেও কিছুটা ধীর হয়ে পড়েছে। তবে তিন বছর বয়সী মেজর বেশ দুরন্ত, আক্রমণাত্মক। ২০১৮ সালে ডেলাওয়ারের একটি প্রাণী আশ্রয়কেন্দ্র থেকে মেজরকে নিয়ে আসেন বাইডেন।

ডেলাওয়ার অঙ্গরাজ্যে দীর্ঘদিন বাইডেন পরিবারের সঙ্গে বসবাস করেছে মেজর ও চ্যাম্প। কিন্তু বাইডেন দম্পতির হাত ধরে হোয়াইট হাউসে এসেই বিগড়ে যায় মেজরের মাথা। ১৮ একরের বিশাল কম্পাউন্ড, এত মানুষ, প্রটোকল—এসবে অনভ্যস্ত মেজরের আচরণে পরিবর্তন আসে। রীতিমতো খ্যাপাটে হয়ে ওঠে। চ্যাম্পও কেমন যেন হয়ে যায়।

একদিন তো হোয়াইট হাউসের এক নিরাপত্তাকর্মীকে কামড়েই দেয় মেজর। ওই ঘটনায় হোয়াইট হাউসের পাট চুকে মেজর ও চ্যাম্পের। প্রিয় পোষ্যদের ডেলাওয়ারে নিজের বাড়িতে পাঠিয়ে দেন বাইডেন। সেখানে তাদের আচরণ পরিবর্তনের প্রশিক্ষণ চলে। পরিচিত জায়গা আর প্রশিক্ষণ জার্মান শেফার্ড দুটির আচরণে পরিবর্তন এনেছে। তাই আবার হোয়াইট হাউসে জায়গা হচ্ছে কুকুর দুটির।

জেন পাস্কি গত বুধবার সাংবাদিকদের বলেন, মেরিল্যান্ডের ক্যাম্প ডেভিডে বাইডেন দম্পতির সঙ্গে মিলিত হয়েছে মেজর ও চ্যাম্প। সাপ্তাহিক ছুটি শেষে রোববার প্রেসিডেন্ট ও ফার্স্ট লেডির সঙ্গে কুকুর দুটির হোয়াইট হাউসে ফেরার কথা রয়েছে।

তবে তিনি ইঙ্গিত দেন, মেজর ও চ্যাম্প হোয়াইট হাউসে স্থায়ী না–ও হতে পারে। তিনি বলেন, কুকুর দুটি আসবে–যাবে, এমনই ঘটবে। আবার তাদের ডেলাওয়ারে ফিরতে হতেই পারে।

জেন পাস্কি আরও ইঙ্গিত দেন, মেজর ও চ্যাম্পের পর হোয়াইট হাউসে নতুন আরেক বাসিন্দার আবির্ভাব ঘটতে পারে। বাইডেন দম্পতির একটি বিড়াল পোষার পরিকল্পনাও রয়েছে।

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন