বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

মার্কিন সংবাদমাধ্যম নিউইয়র্ক পোস্টের সঙ্গে এক আলাপচারিতায় এমন তথ্য তুলে ধরেন মাইক পম্পেও। তিনি বলেন, নিজের বিশাল ওজন দেখার পরদিন সকালেই স্ত্রী সুসানকে ঘুম থেকে ঢেকে তোলেন। বলেন, ‘আজই সেই দিন। এরপর আমি ব্যায়াম শুরু করলাম। প্রায় প্রতিদিনই ব্যায়াম করেছি এবং ঠিকঠাকভাবে খেয়েছি। ফলে ওজন কমতে শুরু করল।’

সাবেক এই মন্ত্রীর বয়স এখন ৫৮ বছর। তৎকালীন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের আমলে ২০১৮ থেকে ২০২১ সাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রের ৭০তম পররাষ্ট্রমন্ত্রী ছিলেন তিনি। দায়িত্ব পালন করেছেন মার্কিন গোয়েন্দা সংস্থা সিআইয়ের প্রধান হিসেবে। এ ছাড়া তিন মেয়াদ ধরে কংগ্রেস সদস্যও ছিলেন পম্পেও।

আলাপচারিতায় পম্পেও বলেন, শারীরিক কসরতের জন্য বাড়ির বেসমেন্টেই ছোটখাটো জিম গড়ে তোলেন তিনি। কেনেন ব্যায়ামের জন্য টুকটাক যন্ত্রপাতি। এর পর থেকে সপ্তাহে প্রতিদিন করতে না পারলেও পাঁচ-ছয় দিন ঘণ্টাখানেক করে সেখানে কাটাতেন তিনি। কোনো প্রশিক্ষক ছিল না, প্রয়োজন পড়েনি দিকনির্দেশনার। তিনি একাই সবকিছু করেছেন।

ওজন কমাতে পম্পেও খাবারদাবারে পরিবর্তন এনেছেন। তবে এর প্রভাব পড়েনি তাঁর পরিবারের ওপর। এখনো তাঁরা একসঙ্গে রেস্তোরাঁয় গেলে বেশ আয়োজন করে ভোজন পর্ব সারেন। পম্পেও মনে করেন, ভোজনের এই ঐতিহ্যকে দূরে ঠেলে দেওয়া উচিত নয়। আর ইতালীয় হিসেবে একসঙ্গে বসে ভালো খাবার খাওয়া উপভোগ করেন তাঁরা। তবে সেখানে সালাদ থাকে।

পম্পেওর ধারণা, ওজন কমাতে তাঁর এই যাত্রা অন্যদের আগ্রহ জোগাবে। তিনি বলেন, ‘আপনি যদি এটা বুঝতে পারেন যে লেগে থাকলে ভালো কাজ করা যায়, তাহলে আপনি সেটি ভালোভাবেই করতে পারবেন।’

যুক্তরাষ্ট্র থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন