default-image

বিজ্ঞানের খুব বড় এক শাখা হলো রসায়ন। বেসিক বিজ্ঞান এটা। দেশে রাসায়নিক শিল্পকে অত্যাধুনিক করতে আর উচ্চতর গবেষণাকে এগিয়ে নিতে রসায়ন বিজ্ঞানের শিক্ষা অপরিহার্য। অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এই সেক্টরে অধ্যয়নরত ছাত্রছাত্রী আর ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে সহযোগিতা করার চেষ্টায় বাংলাদেশের বিশ্ববিদ্যালয়গুলোতে রসায়নবিদদের জন্য কেমফিউশনের (ChemFusion) সৃষ্টি। ইতিমধ্যেই এতে প্রায় পাঁচ হাজার রসায়নের ছাত্রছাত্রী সেবা পেয়ে আসছে।

এই কেমফিউশনের মাধ্যমে গত শুক্রবার (২৯ জানুয়ারি) হয়ে গেল এক বড় আয়োজন, ‘ক্যারিয়ার ইন কানাডা: উচ্চশিক্ষা ও গবেষণা।’ কেমফিউশনের এই আয়োজনে দেশি তারুণ্যের সে কী উচ্ছ্বাস! ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়ে রসায়নপড়ুয়া শতাধিক উদ্যমী তরুণের মধ্যে আলোচনায় মূল আলোচক ছিলেন টরন্টোতে কর্মরত রিসার্চ সায়েন্টিস্ট ড. সাদেকুল ইসলাম। তিনি জাতীয় বিষয়সহ বাংলাদেশের যুব সমাজের উন্নয়নে উৎসাহিত করতে লেখালেখি করেন। দেশে রসায়ন শিক্ষাকে যুব সমাজের মধ্যে আনন্দময় করতে, সবাইকে সুন্দর স্বপ্ন দেখাতে এই সেমিনারে আলোচনায় তিনি জোর দিয়েছেন। তিনি জাপান ও কানাডায় উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন। এসবের জন্য বাংলাদেশের ছাত্রছাত্রীরা কীভাবে নিজেদের তৈরি করবেন, সেসবের বিভিন্ন উপায় সম্পর্কে দিক নির্দেশনা দেন। বাংলাদেশের শিক্ষাব্যবস্থার সঙ্গে বিশ্বের উন্নত দেশগুলোর শিক্ষাব্যবস্থার তুলনামূলক বিভিন্ন বিষয় আলোচনায় স্থান পায়।

আলোচক সাদেকুল ইসলাম তাঁর ঢাকা, টোকিও ও টরন্টো বিশ্ববিদ্যালয়ে উচ্চশিক্ষার বাস্তব অভিজ্ঞতার আলোকে বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মের জন্য রসায়নশিক্ষার সমূহ সম্ভাবনাকে সুন্দরভাবে উপস্থাপন করেছেন। সব হতাশা পেছনে ফেলে, অতীতের সুন্দর কোনো অর্জনকে সম্বল করে, প্রতিনিয়ত কঠোর পরিশ্রম করে অধিক জ্ঞানার্জনের মাধ্যমে আগামীর জন্য নিজেকে তৈরি করার উৎসাহ দিয়েছেন। অতীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক হওয়ার চেষ্টায় তিক্ত অভিজ্ঞতা নিয়েও এই আলোচক দেশের যুব সমাজের জন্য কাজ করতে আগ্রহী।

বিজ্ঞাপন
দূর পরবাস থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন