বর্ষসেরা সাংবাদিকতার পুরস্কার পেলেন সোহরাব হাসান

প্রথম আলোর প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান মিডিয়াস্টার লিমিটেড ও ট্রান্সকম গ্রুপের প্রয়াত চেয়ারম্যান লতিফুর রহমানের নামে চালু করা বর্ষসেরা সাংবাদিকতার পুরস্কার পেয়েছেন প্রথম আলো যুগ্ম সম্পাদক সোহরাব হাসান। তাঁর হাতে পুরস্কার তুলে দেন ট্রান্সকম গ্রুপের সিইও সিমিন রহমান।

পুরস্কার তুলে দেওয়ার পরে সিমিন রহমান বলেন, ২৪ বছর ধরে প্রথম আলো সত্য প্রকাশ করে যাচ্ছে।

সিমিন রহমান বলেন, প্রথম আলো বাংলাদেশের শীর্ষ সংবাদপত্র থেকে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় বাংলা গণমাধ্যম প্রতিষ্ঠান এখন। ‘সত্যে তথ্যে ২৪’—আহ্বানে এবার ২৪ তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী পালন করছে প্রথম আলো। আগামী বছর সিকি শতাব্দীতে পৌঁছাবে প্রতিষ্ঠানটি। আর ২০৯৮ সালে প্রথম আলো শতবর্ষে পৌঁছাবে। তখন নতুন এক প্রজন্ম সেই মাইলফলকের সাক্ষী হবে।

সত্য তথ্য গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করে, দেশ এগিয়ে যায়: মতিউর রহমান

অনুষ্ঠানে প্রথম আলো সম্পাদক মতিউর রহমান বলেছেন, সত্য তথ্য গণতন্ত্রকে শক্তিশালী করে, তাতে দেশ এগিয়ে যায়, মানুষের জয় হয়। প্রথম আলো সব সময় সত্য প্রকাশ করে। সারা পৃথিবীতেই সংবাদমাধ্যমকে লড়তে হচ্ছে সত্য প্রকাশের স্বাধীনতা আদায়ে। ভবিষ্যতেও যেকোনো অবস্থায় সত্য তথ্য প্রকাশের কাজ করে যাবে প্রথম আলো।

শিল্পীদের বাঁশির সুরের মূর্ছনায় শুরু হয় অনুষ্ঠান

শিল্পীদের বাঁশির সুরের মূর্ছনায় শুরু হয় অনুষ্ঠান। সুরসংগীতটি করেছেন শিল্পী ইমন চৌধুরী। পরিবেশন করেন আনন্দ, সজল ও সাইদুজ্জামান সুমন। এরপরে

লতিফুর রহমান পুরস্কার পেলেন সাংবাদিক সোহরার হাসান

প্রথম আলোর ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে আজ শনিবার আয়োজিত প্রীতি সম্মিলনীর আয়োজন করা হয়েছে। আজ রাজধানীর র‌্যাডিসন ব্লু ওয়াটার গার্ডেন হোটেলের গ্র্যান্ড বলরুমে বিশিষ্ট অতিথিদের অংশগ্রহণে প্রীতি সমাবেশের এ আয়োজন করা হয়েছে।

আমন্ত্রিত অতিথিরা আসতে শুরু করেন সন্ধ্যা সাড়ে ছয়টা থেকেই। হেমন্তের সন্ধ্যায় পরিচিতজনদের সঙ্গে কুশলবিনিময় ও আলাপচারিতায় মেতে ওঠেন তাঁরা। অতিথিদের মধ্যে আছেন মন্ত্রী পরিষদের সদস্য, সংসদ সদস্য, রাজনীতিবিদ, শিক্ষাবিদ, ব্যবসায়ী নেতা, বিদেশি কূটনীতিক, পদস্থ সরকারি-বেসরকারি কর্মকর্তা থেকে শুরু করে নারীনেত্রী, চিকিৎসক, আইনজীবী, শিল্পী, সাহিত্যিক, সাংবাদিক ও নাগরিক সমাজের প্রতিনিধিরা।

প্রথম আলোর অনুষ্ঠানে অতিথিরা আসতে শুরু করেছেন। ইতিমধ্যে ব্যরিষ্টার আমিরুল ইসলাম, সাবেক মন্ত্রী পরিষদ সচিব আলী ইমাম মজুমদার, এসিআই গ্রুপের চেয়ারম্যান আনিস উদ দৌল্লা, ট্রান্সকম গ্রুপের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) সিমিন রহমান, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা রাশেদা কে চৌধুরী, এফবিসিসিআইয়ের সাবেক সভাপতি এ কে আজাদ, স্ট্যান্ডার্ড চার্টার্ড ব্যাংকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা পরিচালক নাসের এজাজ বিজয়, কানাডিয়ান ইউনির্ভাসিটির উপাচার্য জহিরুল হক, আবাসন ব্যবসায়ীদের সংগঠন রিহ্যাবের সাবেক সভাপতি তানভীরুল হক প্রবাল, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের নারী ফুটবল কমিটির চেয়ারম্যান মাহ্ফুজা আক্তার, ডাচ–বাংলা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক আবুল কাশেম মো. শিরিন, অ্যাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সৈয়দ নাসিম মঞ্জুর, হাতিলের চেয়ারম্যান সেলিম এইচ রহমান, বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের সভাপতি কাজি সালাউদ্দিনসহ বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গ অনুষ্ঠানস্থলে উপস্থিত হয়েছেন।

এসেছেন মন্ত্রী ও রাজনীতিবিদেরা

মুক্তিযুদ্ধ বিষয়কমন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হক, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ কে আবুল মোমেন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খান কামাল, ভূমিমন্ত্রী সাইফুজ্জামান চৌধুরী, বিদ্যুৎ প্রতিমন্ত্রী নসরুল হামিদ, তথ্য ও যোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ।

এছাড়াও বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব সংসদ সদস্য হারুন অর রশিদ, দলটির সংসদ সদস্য রুমিন ফারহানা, দলটির নেতা জহির উদ্দিন স্বপন।

এছাড়াও জাতীয় পার্টির (জাপা) চেয়ারম্যান জি এম কাদের ও বাংলাদেশের ওয়াকার্স পার্টির সভাপতি রাশেদ খান মেনন অনুষ্ঠানে উপস্থিত আছেন।

অভিনেতা ইলিয়াস কাঞ্চন, চঞ্চল চৌধুরী, ইরেস জাকের, চিত্রশিল্পী রফিকুন নবী, বার্জার বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) রুপালী চৌধুরী, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের উপদেষ্টা গীতি আরা সাফিয়া চৌধুরী, র‍্যাংগস প্রপাটিজের এমডি মাশিদ রহমান।

মানুষের জন্য ফাউন্ডেশনের নির্বাহী পরিচালক শাহীন আনাম, সাবেক ফুটবলার শেখ মোহাম্মদ আসলাম, ইন্টারন্যাশনাল চেম্বার অব কমার্স বাংলাদেশের (আইসিসিবি) সভাপতি মাহবুবুর রহমান, বাণিজ্য সংগঠন বিজিএপিএমইএর সাবেক সভাপতি রাফেজ আলম চৌধুরী, ব্র্যাক বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিসটিংগুইজড অধ্যাপক মোহাম্মদ কায়কোবাদ, ইইউর রাষ্ট্রদূত চার্লস হোয়াইটলি, সুইজার‍ল্যান্ডের রাষ্ট্রদূত নাতালি শোয়ার্ড।

এমটিবির এমডি মাহবুবুর রহমান, এইচএসবিসির এমডি মাহবুব উর রহমান, এনভয় গ্রুপের চেয়ারম্যান কুতুব উদ্দিন।

অতিথিদের নিজেদের মধ্যে কুশলবিনিময় ও আলাপচারিতার জন্য মূল অনুষ্ঠান শুরুর আগে অনেকটা সময় রাখা হয়েছিল। অতিথিরা অনুষ্ঠানস্থলে এলে প্রথম আলোর সম্পাদক মতিউর রহমান ও জ্যেষ্ঠ সাংবাদিকেরা তাঁদের উষ্ণ অভ্যর্থনা জানান। বিভিন্ন পেশার বিশিষ্টজনেরা আনন্দে সময় কাটান অতিথিরা।

৪ নভেম্বর ছিল প্রথম আলোর ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী। ‘সত্যে তথ্যে ২৪’ আহ্বান নিয়ে প্রথম আলোর ২৪তম প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উপলক্ষে ঢাকা ও ঢাকার বাইরে নানা অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হচ্ছে। ৪ নভেম্বর বাংলা একাডেমি প্রাঙ্গণে আয়োজন করা হয় পাঠক উৎসবের। দিনভর সেই আয়োজনের প্রাণ ছিলেন প্রথম আলোর পাঠকেরা। উৎসবে অংশ নিতে ঢাকার পাশাপাশি ঢাকার বাইরে থেকেও প্রথম আলোর পাঠকেরা আসেন।

৬ নভেম্বর ঢাকার কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন মিলনায়তনে আয়োজন করা হয় কর্মী উৎসবের। তাতে প্রথম আলোর ঢাকা কার্যালয়ের পাশাপাশি সারা দেশের কর্মীরা অংশ নেন। দেশের ৮৮টি স্থানে প্রথম আলোর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী উদ্‌যাপন চলছে। শিশুদের ছবি আঁকা প্রতিযোগিতা, সুধী সমাবেশ, সাংস্কৃতিক পরিবেশনাসহ নানা আয়োজন হচ্ছে। এ আয়োজনে সহযোগিতা করছে প্রথম আলো বন্ধুসভা।