সোনালী ব্যাংকের চুয়াডাঙ্গা শাখায় গিয়ে ইতিবাচক পরিবর্তন চোখে পড়ে। দৃষ্টিনন্দন টবে সারি করে রাখা পরিবেশবান্ধব গাছ, সেবাভিত্তিক সাইনবোর্ড, গ্রাহকদের বসার জায়গা, গ্রাহকদের সময় কাটানোর জন্য টেলিভিশন, পরিষ্কার টয়লেট, মাতৃদুগ্ধ কর্নার ও নামাজের জায়গা। ৭০ বছরের পুরোনো দেয়ালগুলোতে প্রাকৃতিক দৃশ্য। আর সবখানেই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্নতার ছাপ।

শহরতলি দৌলাতদিয়ার ব্যবসায়ী আলাউদ্দিন আল আজাদ ১৯৯৩ সাল থেকে সোনালী ব্যাংক চুয়াডাঙ্গা শাখার গ্রাহক। তিনি বলেন, ‘আর্থিক নিরাপত্তার কথা ভেবে প্রায় ৩০ বছর ধরে সোনালী ব্যাংকে লেনদেন করি। একসময় সোনালী ব্যাংক মানেই ছিল কাজের দীর্ঘসূত্রতা, একটি কাজের জন্য একাধিক টেবিলে দৌড়ঝাঁপ। এখন আর সেসব বালাই নেই। বেশির ভাগ ক্ষেত্রে চালু হয়েছে ওয়ান–স্টপ সার্ভিস। বর্তমান সময়ে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আন্তরিক সেবায় সবাই খুশি।’ চুয়াডাঙ্গার বই ব্যবসায়ী হারুণ-অর-রশিদ জানান, ঋণপ্রক্রিয়া আগের চেয়ে সহজ হয়েছে। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক গ্রাহক জানান, অনেকটা অভিমানে দীর্ঘ ১৮ বছর তিনি সোনালী ব্যাংক থেকে দূরে ছিলেন। সাম্প্রতিক সময়ে সেবার মান ও গতি বৃদ্ধি পাওয়ায় আবারও ফিরে এসেছেন।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, প্রতি সোমবার বিকেল ৪টা ১ মিনিটে সব কর্মকর্তা-কর্মচারীকে নিয়ে শিক্ষামূলক সভার আয়োজন করা হয়। এতে ব্যাংকের পদস্থ কর্মকর্তা ছাড়াও অভিজ্ঞ ব্যাংকার, অর্থনীতিবিদ ও শীর্ষ গ্রাহকদের আমন্ত্রণ জানানো হয়। এ সময় বিগত সপ্তাহের ভালো-মন্দ, ভুল-ত্রুটি নিয়ে আলোচনা করে সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নেওয়া হয়।

বশির আহমেদ জানান, এই কর্মসূচি কঠিন কাজকে সহজ করেছে। এ ছাড়া এই সভায় কর্মচারীদের উৎসাহ, নতুন কর্মচারীকে অভ্যর্থনা ও বিদায়ী কর্মচারীকে আনুষ্ঠানিক বিদায় দেওয়া হয়ে থাকে। সেরা কর্মীদের জন্য থাকে বিশেষ পুরস্কার। কর্মকর্তা-কর্মচারীরা জানান, গত বছরের ১২ আগস্ট বশির আহমেদ ব্যবস্থাপক ও সহকারী মহাব্যবস্থাপক হিসেবে এই শাখায় যোগদান করেন। এরপর চাহিদা অনুযায়ী ব্যাংকের সার্বিক পরিবেশের উন্নয়নে নজর দেন।

এক প্রশ্নের জবাবে বশির আহমেদ জানান, গ্রাহকবান্ধব এই কর্মসূচি নেওয়ায় গত এক বছরে এই শাখায় কোয়ালিটি ডিপোজিট বেড়েছে ৩৬ দশমিক ৬ শতাংশ, কোয়ালিটি ঋণ বেড়েছে ৪৮ শতাংশ। দীর্ঘদিন ছড়িয়ে-ছিটিয়ে থাকা সরকারি চাকরিজীবীরা এখন সোনালী ব্যাংকের সেবা নিচ্ছেন, এটিএম বুথে সেবাগ্রহীতার সংখ্যা বেড়ে দ্বিগুণ হয়েছে। ২০২২ সালের বিনিয়োগের লক্ষ্যমাত্রা প্রথম দুই মাস অর্থাৎ ফেব্রুয়ারির মধ্যেই, ১০ মাস হাতে থাকতেই শতভাগ পূরণ হয়েছে।

সোনালী ব্যাংকের বর্তমান ও সাবেক উচ্চপদস্থ কর্মকর্তারা এই কর্মসূচিকে একটি দৃষ্টান্ত হিসেবে দেখছেন। ব্যাংকের অন্যান্য শাখায়ও ধারণাটি বাস্তবায়নের তাগিদ দিয়েছেন তাঁরা। 

লেখক: প্রথম আলোর চুয়াডাঙ্গা প্রতিনিধি