‘সংবাদপত্র কখনো থামে না’- ছাপা পত্রিকার যে উদ্যোগে আসল স্বীকৃতি

করোনা মহামারিতে কিছুটা হোঁচট খেয়েছিল সংবাদপত্র শিল্প। এই অস্বাভাবিক সময়ে প্রথম আলোতে ছিল নানামুখী সৃজনশীল ও উদ্ভাবনী উদ্যোগ। এই সময়ে পাঠক ও বিজ্ঞাপনদাতাদের কাছে নিজেকে প্রাসঙ্গিক রাখতে প্রথম আলো কাজ করছে। তথ্য উপস্থাপন ও বিজ্ঞাপনের নতুনত্বের অভিনব এমন এক উদ্যোগের ঘরোয়া নাম ‘প্রিন্ট নেভার ব্রেকস’। এই উদ্যোগটি ন্যাশনাল ব্র্যান্ড বিভাগে ‘বেস্ট ইউজ অব প্রিন্ট’ ক্যাটাগরিতে প্রথম হয়। এই ক্যাটাগরিতে দ্বিতীয় ও তৃতীয় পুরস্কার পেয়েছে যথাক্রমে ক্রোয়েশিয়ার গ্লোরিয়া গ্ল্যাম এবং আয়ারল্যান্ডের আইরিশ এক্সামিনার।

‘প্রিন্ট নেভার ব্রেকস’-এর নানা উদ্যোগের মধ্যে তিনটি বিশেষ উদ্যোগ আলাদা করে দেখিয়েছে প্রথম আলো। এক. বছরজুড়ে বিভিন্ন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক দিবসে বিশেষ আয়োজন। দুই. একই সময়ে আঞ্চলিক সংবাদ ও অন্যান্য কনটেন্টে (আধেয়) বাড়তি নজর। তিন. বছরজুড়ে ভিন্নধর্মী আয়োজন।

‘ঘরে বসে ঘর খুঁজুন’—প্রথম আলো ডিজিটালের উদ্ভাবনী উদ্যোগে আসল পুরস্কার

ঘরে বসে নিজের স্বপ্নের আবাস খোঁজা সুযোগ করে দিতে ২০২১ সালের নভেম্বরে প্রথম আলো ডিজিটাল আয়োজন করে অনলাইন আবাসন মেলার। চতুর্থবারের মতো সাত দিনব্যাপী এই মেলার শিরোনাম ছিল ‘ঘরে বসেই ঘর খুঁজুন’। মেলায় অংশ নেয় ৪২টি আবাসন প্রতিষ্ঠান। এই অনলাইন আবাসন মেলায় পাঠক ও গ্রাহরেরা ব্যাপক সাড়া দেন। অনলাইন মেলা থেকে প্রকল্প পছন্দ করে ৩ হাজার ৫০০–এর বেশি গ্রাহক আবাসন প্রতিষ্ঠানগুলোর সঙ্গে ফ্ল্যাট বা প্লটের জন্য যোগোযোগ করেন।

গ্লোবাল মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডসে বেস্ট আইডিয়া টু গ্রো অ্যাডভার্টাইজিং সেলস ক্যাটাগরিতে দ্বিতীয় হয় প্রথম আলো ডিজিটালের ‘ঘরে বসে ঘর খুঁজুন’ প্রকল্পটি। এই ক্যাটাগরিতে ক্রোয়েশিয়ার হানজা মিডিয়া প্রথম এবং ভারতের হিন্দুস্তান টাইমস তৃতীয় হয়। এই বিভাগে সম্মানজনক স্বীকৃতি পায় ভারতের দ্য হিন্দু, বেনেট কোলম্যান অ্যান্ড কো. লিমিটেড (টাইমস অব ইন্ডিয়া) এবং জাগরণ প্রকাশন।

২০২০ সালে সংবাদমাধ্যমের আন্তর্জাতিক আরেক সংগঠন ওয়ান-ইফরা আয়োজিত সাউথ এশিয়ান ডিজিটাল মিডিয়া অ্যাওয়ার্ডে দুটি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার পায় প্রথম আলো। ভারতের দিল্লিতে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রথম আলো একটি স্বর্ণপদক ও একটি ব্রোঞ্জপদক জেতে।

লেখক: হেড অব ডিজিটাল বিজনেস, প্রথম আলো