২০২০ সালের করোনা মহামারির সময় অন্য সবকিছুর মতো ছাপা পত্রিকার বিতরণও বিরাট হুমকির মুখে পড়ে। এই প্রতিকূল সময়েও প্রথম আলো পত্রিকা প্রকাশের সঙ্গে জড়িত সবার এবং দেশব্যাপী আমাদের এজেন্ট, হকারদের অদম্য মনোভাবের কারণে একটি দিনের জন্যও আমরা আমাদের পত্রিকা পাঠকের দরজায় পৌঁছে দিতে ব্যর্থ হইনি। এ সময় বিভিন্ন বাস্তবতায় আমাদের পত্রিকার সার্কুলেশন কিছুটা কমে যায়। কিন্তু আমরা আশাবাদী ছিলাম, পরিস্থিতির উন্নতি হলে আমরা হারানো পাঠকদের ফিরে পাব। আমরা হতাশ হইনি। পরিস্থিতি পরিবর্তনের সঙ্গে সঙ্গে আমাদের পাঠকেরাও ফিরে আসতে শুরু করেছেন।

প্রতিদিন সকালে আরও অনেক বেশিসংখ্যক পাঠকের কাছে আমাদের ছাপা পত্রিকা পৌঁছে দেওয়ার এই যুদ্ধে যখন আমাদের হকার ভাই এবং এজেন্ট ভাইয়েরা আরও নিবেদিতভাবে ঝাঁপিয়ে পড়ছেন, তখনই দেশে তথা সারা বিশ্বে নতুন করে অর্থনৈতিক অস্থিরতা সৃষ্টি হয়। নিত্যব্যবহার্য সব পণ্যের মূল্যবৃদ্ধিতে যখন মানুষের জীবনযাত্রা বিপর্যস্ত, তখন অনেক ব্যক্তিগত ও প্রাতিষ্ঠানিক গ্রাহক তাঁদের পত্রিকা বন্ধ করে দিতে চাইলেন। উপরন্তু কিছু গ্রাহক ডিজিটাল মাধ্যমে অভ্যস্ততায় দীর্ঘদিনের ছাপা পত্রিকা পাঠ করার অভ্যাসকে পেছনে ফেলে এগিয়ে যেতে চাইলেন। আমরা আবার এক নতুন যুদ্ধের সম্মুখীন হলাম।

আবার সময় হলো আমাদের দেশে ছড়িয়ে থাকা প্রায় সাড়ে ১০ হাজার হকার ভাই এবং সাড়ে পাঁচ শর বেশি এজেন্ট ভাইয়ের একত্র করে যুদ্ধে নেমে পড়ার। এই যুদ্ধ আগের যেকোনো যুদ্ধের চেয়ে বেশি চ্যালেঞ্জিং। এই যুদ্ধ আমাদের অস্তিত্ব রক্ষার, এই যুদ্ধ আমাদের সবার জীবিকা রক্ষার যুদ্ধ। এই যুদ্ধে সব সময় আমরা পাশে পাচ্ছি দেশের হকার এবং এজেন্টদের সব সংগঠনকে। তাঁদের চেষ্টা ও অদম্য মনোভাব আমাদের সাহস জোগায়, আমাদের দেয় লড়াই করার অনুপ্রেরণা। তাঁদের সহযোগিতা এবং চেষ্টায় প্রথম আলো সফলভাবে দেশের সর্বাধিক পঠিত পত্রিকা
হিসেবে ২৪ বছর পূর্ণ করে ২৫তম বছরে যাত্রা শুরু করল। এই দীর্ঘ পথচলার প্রতিটি ধাপে এজেন্ট ও হকার ভাইদের অবদান অনস্বীকার্য। প্রথম আলো এখনো এই সম্মুখযুদ্ধের সারথিদের পাশে নিয়ে যেতে চায় বহুদূর। প্রথম আলো সব সময় আপনাদের পাশে ছিল, আছে, থাকবে। সবার সহযোগিতায় প্রথম আলো ছাপা পত্রিকা আরও সামনে এগিয়ে নিতে আমরা বদ্ধপরিকর। আসুন, প্রথম আলোর ২৪তম বর্ষপূর্তির এই মাহেন্দ্রক্ষণে দৃপ্তকণ্ঠে সবাই মিলে বলি, ‘আমাদের সংগ্রাম চলবেই’।

লেখক: ব্যবস্থাপক, সার্কুলেশন সেলস