বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

র‍্যাব–৩–এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার বীণা রাণী দাস প্রথম আলোকে জানান, এই চারজনকে গ্রেপ্তার করে সোমবার রাতেই পল্টন থানায় নেওয়া হয়েছে।

ওই গৃহকর্মী সৌদি আরবে পৌঁছানোর পর থেকেই তাঁর ওপর নির্যাতন চলছে। তাঁকে দেশে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা করছে ব্র্যাক। প্রতিষ্ঠানটির কর্মকর্তা আল আমিন সোমবার রাতে প্রথম আলোকে বলেন, গত ৭ জুন সৌদি আরবে গেছেন ভুক্তভোগী নারী। নির্যাতন সহ্য করতে পারছেন না তিনি। ভিডিও বার্তা ও খুদে বার্তা পাঠিয়ে তাঁকে উদ্ধার করে দেশে ফিরিয়ে আনার আকুতি জানিয়েছেন।

default-image

আরেকটি খুদে বার্তায় ওই নারী লিখেছেন, টানা দুই দিন তাঁকে না খাইয়ে রাখা হয়েছে। খুদে বার্তায় তিনি অভিযোগ করেছেন, এ ঘটনায় গ্রেপ্তার তাহের তাঁকে বলেছেন, দেশে ফিরতে হলে চার লাখ টাকা তাঁদের দিতে হবে।

তিনি লিখেছেন, পরিবারের লোকজন জনশক্তি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানের কাছে গেলে তারা পাত্তা দেয়নি। পরে পরিবারের কাছে চার লাখ টাকা দাবি করে।

ব্র্যাকের ওই কর্মকর্তা বলেন, এখন নারী গৃহকর্মীদের সৌদি আরবে যেতে টাকা লাগে না। ওখানকার গৃহমালিক এ দেশের জনশক্তি রপ্তানিকারক প্রতিষ্ঠানকে আড়াই লাখ টাকা দেন।

এই নারীকে ফিরিয়ে আনার চেষ্টা চলছে বলে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন