রাঙামাটির রাজস্থলীতে আওয়ামী লীগ নেতা হত্যার ঘটনায় অংচিং নু মারমা (২২) নামের এক ব্যক্তিকে আটক করা হয়েছে। নিহত মংক্য মারমার স্ত্রী ডচিং মারমার দায়ের করা মামলায় অংচিং নু সন্দেহভাজন আসামি বলে পুলিশ নিশ্চিত করেছে।
গত রোববার রাত সোয়া আটটার দিকে মংক্য মারমা বাঙ্গালহালিয়া ইউনিয়নের কাঁকড়াছড়ি গ্রামের নিজ বাড়ির পাশে দুর্বৃত্তের গুলিতে নিহত হন। তিনি রাজস্থলী উপজেলা আওয়ামী লীগের জ্যেষ্ঠ সহসভাপতি ছিলেন।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, আটক অংচিং নু মারমা কাঁকড়াছড়ি মধ্যম পাড়ার বাসিন্দা মংঞো মারমার ছেলে এবং সন্তু লারমা-সমর্থিত পাহাড়ি ছাত্র পরিষদের সঙ্গে যুক্ত।
রাঙামাটির কাপ্তাই সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার (এএসপি) মো. হাবিবুল্লাহ বলেন, অংচিং নু মারমাকে গত সোমবার রাতে নিজ বাড়ি থেকে আটক করা হয়েছে। তিনি এই হত্যা মামলার ২ নম্বর আসামি। অন্য সন্দেহভাজন ব্যক্তিরা পলাতক রয়েছেন।
এএসপি আরও জানান, দায়ের করা মামলায় চারজনের নাম উল্লেখসহ আট-দশজনকে আসামি করা হয়েছে। তাঁদের মধ্যে একজনকে জনসংহতি সমিতির সদস্য। বাকিদের সম্পর্কে বিস্তারিত জানার চেষ্টা চলছে।
তবে জনসংহতি সমিতি এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে তাদের কোনো নেতা-কর্মী জড়িত নন বলে দাবি করেছে।

বিজ্ঞাপন
বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন