বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সুশাসনের জন্য নাগরিকের (সুজন) সম্পাদক বদিউল আলম মজুমদার প্রথম আলোকে বলেন, জাতীয় নির্বাচনে ইভিএমের সঙ্গে ব্যালটের ভোটের ব্যবধান ছিল ৩০ শতাংশের মতো। এখানেও ব্যবধান দেখা যাচ্ছে। একই সময়ের নির্বাচনে ভোটের হারের অল্প কিছু ব্যবধান হতে পারে। কিন্তু ১০ শতাংশের বেশি ব্যবধান দেখা যাচ্ছে, যা স্বাভাবিক নয়। ইসি বিভিন্ন সময় বলেছে, ইভিএমে জাল ভোটের সুযোগ নেই। এটি সঠিক ধরে নিলে বলতে হবে, যেসব পৌরসভায় ব্যালটে ভোট হয়েছে সেখানে জালিয়াতি হয়েছে। আর যদি ব্যালটের ভোটের হার সঠিক ধরা হয়, তাহলে বলতে হবে ইভিএমে মানুষ ভোটাধিকার প্রয়োগ করতে পারছে না। ব্যালট ও ইভিএমে ভোটের হারে এত ফারাক কেন, নির্বাচন কমিশনকেই তার যৌক্তিক ব্যাখ্যা দিতে হবে।

অন্যদিকে ইভিএমে হওয়া পৌরসভাগুলোর মধ্যে ৫টিতে ভোটের হার ৬০ শতাংশের কম ছিল। এর মধ্যে তিনটিতে ভোটের হার ৪১ শতাংশের কম। আর ৭৫ শতাংশের বেশি ভোট পড়েছে ৫টি পৌরসভায়। দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে সবচেয়ে কম ভোট পড়েছে ঢাকার সাভারে। এখানে ভোটের হার ছিল ৩৩ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে চারটি পৌরসভায় বিএনপির প্রার্থী জয়ী হয়েছেন। এর মধ্যে একটিতে ভোট হয়েছে ইভিএমে। বাকি তিনটিতে ব্যালটে। আর স্বতন্ত্র প্রার্থী জয়ী হয়েছেন আটটি পৌরসভায়। এর চারটিতে ভোট হয়েছে ইভিএমে।

নির্বাচন কমিশনার রফিকুল ইসলাম মনে করেন ঢাকার সভারে কম ভোট পড়ার কারণে ইভিএমে সার্বিকভাবে ভোটের হার কমে গেছে। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, সাভার একটি বড় পৌরসভা, এখানে অনেক ভোটার। এখানকার ভোটারদের বড় অংশ ‘ফ্লোটিং’, ৫০ শতাংশের বেশি ভোটার বাইরের, তাঁরা মূলত বিভিন্ন কারখানার শ্রমিক। কোভিডের কারণে অনেক কারখানা বন্ধ, ভোটারদের বড় অংশ এলাকায় চলে গেছেন। ফলে এখানে ভোট কম পড়েছে। সাভার বাদ দিলে দেখা যাবে ইভিএমে ভোটের হার কম নয়। ইভিএমে ৮০ শতাংশ ভোটও পড়েছে।

সাভারের ভোটের হার বাদ দিলে ইভিএমে ভোটের হার দাঁড়ায় ৬৪ দশমিক ১৫ শতাংশ। সেটাও কাগজের ব্যালটের ভোটের চেয়ে ৪ শতাংশ কম।

২০১২ সালে প্রথম কুমিল্লা সিটি করপোরেশনের ভোট পুরোপুরি ইভিএমে হয়েছিল। বর্তমান কমিশনের অধীনে একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকার দুটিসহ মোট ছয়টি সংসদীয় আসনে ইভিএমে ভোট হয়। এর আগে–পরে বিভিন্ন স্থানীয় সরকার নির্বাচনে ইভিএম ব্যবহার করা হচ্ছে। তবে শুরু থেকেই বিএনপি ইভিএমে ভোট নেওয়ার বিরোধিতা করে আসছে।

গত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ভোটের হার ছিল ৮০ দশমিক ২০ শতাংশ। তবে ইভিএমে যে ছয়টি আসনে ভোট হয়েছিল সেখানে ভোটের হার ছিল গড়ে ৫১ দশমিক ৪১ শতাংশ। এরপর বিভিন্ন উপনির্বাচন ও স্থানীয় সরকার নির্বাচনেও কাগজের ব্যালটের সঙ্গে ইভিএমে ভোটের হারের ব্যবধান দেখা গেছে। বিভিন্ন সময় নির্বাচন কমিশন বলেছিল, প্রযুক্তিভীতি, করোনাকালে নেতিবাচক প্রচারণা, জাল ভোট দেওয়ার সুযোগ না থাকার কারণে ইভিএমে ভোটের হার কম।

শুরু থেকে ইভিএম ব্যবহারে বিরোধিতা করে আসছিলেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার। তবে গত বছরের জানুয়ারিতে তিনি ইভিএমের পক্ষে অবস্থান নেন। তখন সাংবাদিকদের তিনি বলেছিলেন, ‘ইভিএম নিয়ে পূর্বে আমি ক্রিটিক্যাল থাকলেও দুটি কারণে এখন ইভিএম ব্যবহারের পক্ষে। একটি হচ্ছে, এতে ভোটের আগের রাতে ব্যালট পেপারে বাক্স ভর্তি করার সংস্কৃতির অবসান ঘটতে পারে। দ্বিতীয় কারণটি হচ্ছে, নির্বাচনে কোনো কোনো কেন্দ্রে একশ ভাগ ভোট পড়ার যে অভিজ্ঞতা আমরা অর্জন করেছি, ইভিএম ব্যবহারে তারও অবসান হবে।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন