সবচেয়ে বড় শিডিউল বিপর্যয় ঘটেছে উত্তরের জেলা নীলফামারীগামী ট্রেন নীলসাগর এক্সপ্রেসের৷ সকাল ৬টা ৪০ মিনিটে ট্রেনটি ছাড়ার কথা থাকলেও শিডিউল বিপর্যয়ের কারণে এখনো তা ছাড়েনি৷ ট্রেনটি ছেড়ে যাওয়ার সময় হিসেবে রেলওয়ের পক্ষ থেকে বেলা ৩টা ১০ মিনিটের কথা বলা হয়েছে৷ খুলনাগামী সুন্দরবন এক্সপ্রেস সকাল সোয়া আটটায় ছাড়ার কথা ছিল৷ কিন্তু বেলা সোয়া ১১টায় এই প্রতিবেদন লেখার সময়ও ট্রেনটি ছেড়ে যায়নি৷ রেলওয়ের পক্ষ থেকে ট্রেনটি ছাড়ার সম্ভাব্য সময় হিসেবে বেলা ১১টা ৩৫ মিনিটের কথা বলা হয়েছে৷

সুন্দরবন এক্সপ্রেসের অপেক্ষায় থাকা খুলনার যাত্রী সাগর হোসেন প্রথম আলোকে বলেন, ‘সকাল সকাল ঘুম থেকে উঠে পরিবারের সদস্যদের নিয়ে কমলাপুরে এসে শুনি ট্রেন ছাড়তে দেরি হবে৷ কয়েক ঘণ্টা ধরে ট্রেনের জন্য অপেক্ষা করছি৷ এই ভোগান্তির শেষ কোথায়?’

এ ছাড়া জামালপুরগামী অগ্নিবীণা এক্সপ্রেস বেলা ১১টায়, পঞ্চগড়গামী একতা এক্সপ্রেস সকাল ১০টা ১০ মিনিটে, সিলেটগামী জয়ন্তিকা এক্সপ্রেস বেলা সোয়া ১১টায় এবং কিশোরগঞ্জ এক্সপ্রেস বেলা পৌনে ১১টায় ছাড়ার কথা থাকলেও এ প্রতিবেদন লেখা পর্যন্ত (১১টা ৪০ মিনিটে) ঢাকা ছেড়ে যায়নি৷ তবে এসব ট্রেন শিগগিরই ছেড়ে যাবে বলে রেলওয়ের পক্ষ থেকে জানানো হচ্ছে৷

বাংলাদেশ রেলওয়ের অতিরিক্ত মহাপরিচালক (অপারেশন) সরদার সাহাদাত আলী প্রথম আলোকে বলেন, ‘আজ সব ট্রেন শিডিউল অনুযায়ী চলছে না৷ উত্তরবঙ্গের ট্রেনগুলোতে কিছুটা শিডিউল বিপর্যয় ঘটেছে৷ তবে ঢাকা-চট্টগ্রাম, ঢাকা-সিলেট, ঢাকা-ময়মনসিংহ রুটে ঢাকা-কিশোরগঞ্জ রুটের ট্রেনগুলো মোটামুটি শিডিউল অনুযায়ী চলছে৷ শুধু উত্তরবঙ্গগামী ট্রেনগুলোয় শিডিউলের কিছুটা বাইরে চলছে৷' গতকালের থেকে আজ কমলাপুরে ভিড় বা মানুষের চাপ অনেক কম বলেও জানালেন তিনি৷

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন