default-image

রংপুরে অবস্থিত বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ তাঁর বিরুদ্ধে ওঠা অভিযোগগুলো অস্বীকার করে বলেছেন, এসব অভিযোগ ও ইউজিসির এমন তদন্ত শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনির আশ্রয়, প্রশ্রয় ও আশকারায় হয়েছে। শিক্ষামন্ত্রীর আশকারায় এই পরিস্থিতি হয়েছে বলে অভিযোগ করেছেন উপাচার্য।

আজ বৃহস্পতিবার রাজধানীর সেগুনবাগিচায় ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে এক সংবাদ সম্মেলনে উপাচার্য নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ শিক্ষামন্ত্রীর বিষয়ে এসব অভিযোগ করেন। অবশ্য এসব অভিযোগের বিষয়ে তাৎক্ষণিকভাবে শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্য পাওয়া যায়নি। তাঁর মোবাইল ফোনে কল করলেও তিনি ধরেননি।

নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর অনিয়ম, দুর্নীতি ও স্বেচ্ছাচারিতার ৪৫টি অভিযোগ তদন্তের উদ্যোগ নিয়েছে বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরি কমিশন (ইউজিসি)। সম্প্রতি একই বিশ্ববিদ্যালয়ের দুটি ১০তলা ভবন ও একটি স্মৃতিস্তম্ভের নির্মাণকাজে উপাচার্যের অনিয়মের সত্যতা পেয়েছে ইউজিসির আরেকটি সরেজমিন তদন্ত কমিটি। এর জন্য উপাচার্যসহ সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়ার জন্য ওই কমিটির প্রতিবেদনে সুপারিশ করা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন

আজকের সংবাদ সম্মেলনে নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ বলেন, তিনি আজ ঝেড়ে কেশে বলার জন্যই বসেছেন এবং এ জন্য তাঁর পরিণতি কী হবে, সেটা বিবেচনা করেই এসেছেন। ইউজিসির দেওয়া প্রতিবেদন প্রত্যাখ্যান করে উপাচার্য বলেন, ইউজিসির প্রতিবেদন কেন এমন হয়েছে, তার জন্যও পরিপূর্ণভাবে দায়দায়িত্ব শিক্ষামন্ত্রীর। তাঁর পরামর্শে তদন্ত কমিটি এমন আচরণ করেছে। ইউজিসির মর্যাদা নিয়েও প্রশ্ন তোলেন নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ। তিনি মনে করেন, এসবের পেছনে কুমিল্লা ও চাঁদপুরের রাজনীতি আছে। কারণ, তাঁদের দুজনের (শিক্ষামন্ত্রী ও উপাচার্যের) বাড়ি একই অঞ্চলে।

সংবাদ সম্মেলনে নিজে ক্যাম্পাসে গরহাজির থাকা, প্রকল্পের অনিয়মের অভিযোগসহ বিভিন্ন অভিযোগের বিষয়ে করা প্রশ্নের জবাব দেন নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহ।
প্রসঙ্গত, কয়েক দিন আগে ইউজিসি ওই বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষ প্রকল্পের অনিয়ম নিয়ে তদন্ত প্রতিবেদন জমা দেয়। যেখানে নাজমুল আহসান কলিমউল্লাহর গাফিলতি আছে বলে উল্লেখ করা হয়। এ ছাড়া আরও বিভিন্ন অভিযোগ নিয়ে ইউজিসির আরেকটি তদন্ত দল কাজ করছে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন