বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

বিসিক কক্সবাজার লবণশিল্প উন্নয়ন প্রকল্পের উপমহাব্যবস্থাপক মো. জাফর ইকবাল প্রথম আলোকে বলেন, এমনিতে একবার বৃষ্টি হলে ৭-৯ দিন লবণ উৎপাদন বন্ধ হয়ে যায়। আজকের এক ঘণ্টার বৃষ্টিতেও ৫০ হাজার একরের মতো জমিতে লবণ উৎপাদন বন্ধ হয়ে গেছে, উৎপাদন বন্ধ থাকবে টানা সাত-আট দিন। এর মধ্যে আবার বৃষ্টি হলেও বন্ধের সময়সীমা আরও বাড়তে থাকবে। তবে আজকের বৃষ্টিতে লবণের তেমন ক্ষতি (নষ্ট) হয়নি। কারণ, চাষিরা জানতেন, কালবৈশাখী শুরু হবে। তাঁরা আগেভাগে মাঠে উৎপাদিত লবণ মাটির নিচে পুঁতে রেখেছিলেন। কেউ কেউ লবণের ওপর পলিথিন চাপা দিয়ে কিংবা গুদামে সংরক্ষণ করেছেন।

বিসিক লবণ প্রকল্পের মাঠ পরিদর্শক মো. ইদ্রিস আলী বলেন, এক ঘণ্টার বৃষ্টিতে কক্সবাজার সদরের খুরুশকুল, চৌফলদণ্ডী, পেকুয়ার মগনামা, রাজাখালী, উজানটিয়া, কুতুবদিয়ার আলী আকবরডেইল, লেমশীখালী, ধুরুং, মহেশখালীর মাতারবাড়ী, হোয়ানক, কুতুবজোম ইউনিয়নে অন্তত ৫০ হাজার একর জমিতে বৃষ্টির পানি জমে লবণ উৎপাদন ব্যাহত করেছে। বৃষ্টির পানি সরিয়ে সেখানে (মাঠে) সমুদ্রের লোনা পানি ঢুকিয়ে মাঠ লবণ উৎপাদনের উপযোগী করতে সময় লাগবে ৭-৯ দিন। এই সময় পর্যন্ত লবণ উৎপাদন বন্ধ থাকবে।

default-image

পেকুয়ার মগনামা ইউনিয়নের কাজী বাজার এলাকার লবণচাষি আমজাদ হোসেন (৪৫) বলেন, সকাল থেকে প্রচণ্ড গরম পড়ছিল। কিন্তু বেলা ১১টার দিকে হঠাৎ ঝোড়ো বাতাস শুরু হয়। এরপর নেমে আসে বৃষ্টি। তখন চাষিরা উৎপাদিত লবণ রক্ষায় ছোটাছুটি করতে থাকেন। তবে সকাল ৯টার দিকে চট্টগ্রাম শহরে বৃষ্টিপাত হওয়ার খবরে চাষিরা আগাম জেনে গেছেন। এ কারণে উৎপাদিত লবণের তেমন ক্ষতি হয়নি।
বিসিক কর্মকর্তারা বলছেন, জেলার প্রায় ৫০ হাজার একর জমিতে দৈনিক গড়ে লবণ উৎপাদন হচ্ছিল ২৫ হাজার মেট্রিক টন। বৃষ্টির কারণে ৮ দিন বন্ধ থাকলে লবণ উৎপাদন প্রায় ২ লাখ মেট্রিক টন কমে যাবে।

বিসিকের তথ্যমতে, চলতি মৌসুমে এসব জমির বিপরীতে লবণ উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ২৩ লাখ ৫৭ হাজার মেট্রিক টন। দেশে লবণের চাহিদাও ২৩ লাখ ৫০ হাজার মেট্রিক টন। ১৯ এপ্রিল পর্যন্ত মৌসুমের ৪ মাসে উৎপাদন হয়েছে ১৬ লাখ ৭৮০ মেট্রিক টন লবণ।

বিসিক কক্সবাজার লবণশিল্প উন্নয়ন প্রকল্পের উপমহাব্যবস্থাপক মো. জাফর ইকবাল বলেন, মৌসুমজুড়ে দাবদাহ পরিস্থিতি থাকায় এবার লবণের বাম্পার উৎপাদন হচ্ছিল। তা ছাড়া ৬৩ হাজার ২৯১ একর জমির শতভাগে পলিথিন প্রযুক্তিতে লবণ চাষ হচ্ছে। এ কারণে উৎপাদনও বেড়েছে ২৫-৩০ শতাংশ। আগামী ১৫ মে পর্যন্ত লবণ উৎপাদন চলবে। ১৫ ডিসেম্বর থেকে ১৫ মে পর্যন্ত বছরের পাঁচ মাসকে লবণ উৎপাদনের মৌসুম ধরা হয়।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন