কুয়েতে সাংসদ সহিদের মামলার পূর্ণাঙ্গ শুনানি শুরু হচ্ছে

  • সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবীর

  • গ্রেপ্তারের এক শ দিন

  • পঞ্চমবারের মতো বেড়েছে কারাবাসের মেয়াদ

  • পঞ্চম চুক্তি নবায়নের অনুরোধও খারিজ

বিজ্ঞাপন
default-image

মানব ও অবৈধ মুদ্রা পাচারের অভিযোগে কুয়েতে গ্রেপ্তার বাংলাদেশের সাংসদ মোহাম্মদ সহিদ ইসলামের (পাপুল) বিরুদ্ধে মামলার শুনানি আগামী বৃহস্পতিবার থেকে শুরু হচ্ছে। গ্রেপ্তারের এক শ দিন পেরোনোর পর তাঁর বিরুদ্ধে পূর্ণাঙ্গ শুনানি শুরু হতে যাচ্ছে। সহিদের মামলার সঙ্গে কুয়েতের দুই সাংসদ সাদাউন হামাদ ও সালাহ খুরশিদ, জ্যেষ্ঠ সেনা কর্মকর্তা মেজর জেনারেল শেখ মাজন আল-জারাহসহ মোট ১৩ জনের বিরুদ্ধে অভিযোগ আনা হয়েছে।

বাংলাদেশের সাংসদ সহিদসহ অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে অবৈধ মুদ্রা পাচারের পাশাপাশি, রাষ্ট্রীয় নিরাপত্তার হুমকি, ঘুষ নেওয়াসহ নানা ধরনের অভিযোগ আনা হয়েছে। অভিযুক্ত ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে জোরালো প্রমাণ পাওয়ার বিষয়টি উল্লেখ করে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী তাঁদের সর্বোচ্চ শাস্তি দাবি করেছেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত জুনের ৬ তারিখ রাতে কুয়েতের বাসা থেকে গ্রেপ্তারের পর ১৪ জুন সহিদ ইসলামকে প্রথম কারাগারে পাঠানো হয়। এরপর গত মাসে পঞ্চমবারের মতো তাঁর কারাবাসের মেয়াদ এক মাস বাড়িয়ে ২২ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত করা হয়।

কুয়েতের আরবি দৈনিক আল কাবাস ও আল রাইয়ের গত কয়েক দিনের খবরে বলা হয়েছে, কুয়েতের স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের প্রশিক্ষণবিষয়ক সহকারী আন্ডার সেক্রেটারি মেজর জেনারেল শেখ মাজন আল-জারাহ এবং অন্য দুই সরকারি কর্মকর্তা হাসান আবদুল্লাহ আল খাদের এবং নওয়াফ আলী আল শালাহিকে বৃহস্পতিবার আদালতে হাজির করা হবে। তাঁদের বিরুদ্ধে ঘুষ নিয়ে সহিদকে অনৈতিকভাবে ব্যবসা পরিচালনার সুযোগদানের অভিযোগ আনা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

সহিদ ইসলামের বিচারপ্রক্রিয়া যখন পুরোদমে শুরু হয়েছে তখন তাঁর ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানের সেবা পাওয়া নিয়ে বিপাকে পড়েছে কুয়েতের বিভিন্ন মন্ত্রণালয়সহ সরকারি প্রতিষ্ঠান। কারণ মানব ও মুদ্রা পাচারের অভিযোগ ওঠার পর তাঁর মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠান মারাফিয়া কুয়েতিয়াকে কাল তালিকাভুক্ত করা হয়েছে। অথচ ওই প্রতিষ্ঠানের পরিচ্ছন্নতা, বর্জ্য ব্যবস্থাপনাসহ নানা সেবা নিয়ে থাকে ওই সব প্রতিষ্ঠান। এমন পরিস্থিতিতে কুয়েতের সরকারি দরপত্রবিষয়ক কেন্দ্রীয় সংস্থা সহিদের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানের কাজের মেয়াদ বাড়ানোর আবেদন নাকচ করে দিয়েছে। কুয়েতের একটি মন্ত্রণালয় সহিদের মালিকানাধীন প্রতিষ্ঠানটির পরিচ্ছন্নতা কাজের চুক্তির মেয়াদ ছয় মাস বাড়ানোর অনুরোধ জানিয়েছিল। ফারওয়ানিয়া এলাকায় ওই মন্ত্রণালয়ের পরিচ্ছন্নতা সেবার পাশাপাশি বর্জ্য ব্যবস্থাপনার কাজ পেয়েছিল তাঁর প্রতিষ্ঠান মারাফিয়া কুয়েতিয়া। এর আগেও প্রতিষ্ঠানটির চারটি চুক্তির মেয়াদ বাড়ানোর অনুরোধ কুয়েতের সরকারি দরপত্রবিষয়ক কেন্দ্রীয় সংস্থা নাকচ করে দেয়।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কুয়েতের সরকারি ওই প্রতিষ্ঠানগুলোর কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, মারাফিয়া কুয়েতিয়ার দরপত্রের মেয়াদ শেষ হয়ে গেছে বা শেষ হওয়ার পথে। কিন্তু করোনাভাইরাসের সংক্রমণের কারণে হুট করে মারাফিয়ার ওই কাজগুলোতে অন্য প্রতিষ্ঠানকে দেওয়ার নানা রকম জটিলতা রয়েছে। প্রথমত, নতুন করে চুক্তি করে অন্য প্রতিষ্ঠানকে কাজে যুক্ত করতে সময় লাগবে। তা ছাড়া কুয়েতে এ ধরনের প্রতিষ্ঠানগুলোর অধিকাংশই এখন নিজেদের চুক্তি অনুযায়ী বিভিন্ন কাজে ব্যস্ত রয়েছে। এর ফলে নতুন জনবল আর প্রতিষ্ঠান নিয়োগের ফাঁদে পড়ে সরকারি প্রতিষ্ঠানগুলো পরিচ্ছন্নকর্মীবিহীন হয়ে পড়ার আশঙ্কায় রয়েছে।

কুয়েতের যে প্রতিষ্ঠানগুলোতে সাংসদ সহিদের প্রতিষ্ঠানের চুক্তি ছিল সেখানকার কর্মকর্তারা মনে করেন, ওই প্রতিষ্ঠানের চুক্তি বাতিল করে নতুন চুক্তি করলে খরচ বেড়ে যাওয়ার বিষয়টিও জড়িত। কারণ মারাফিয়া কুয়েতিয়া খুব কম দামে ওই কাজের চুক্তি করেছিল। তা ছাড়া প্রতিষ্ঠানটির চুক্তি নবায়ন না হওয়া, ব্যাংক লেনদেন বন্ধ হওয়ার দরুন এর কর্মীরা বেতন পাচ্ছেন না। এ কারণে সেখানকার কর্মীরা একপর্যায়ে কাজ ছাড়তে বাধ্য হবেন এবং নতুন করে সংকটে পড়বেন।

বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

কুয়েতে গ্রেপ্তার বাংলাদেশের স্বতন্ত্র সাংসদ মোহাম্মদ সহিদ ইসলাম দেশটিতে কর্মী নিয়োগ ও পরিচ্ছন্নতা সেবার কাজে যুক্ততার কথা জানা ছিল শুরু থেকেই। তবে কুয়েতের গণমাধ্যমের সাম্প্রতিক এক অনুসন্ধানে বলা হয়েছে, ব্যবসা পরিচালনার জন্য তিনি ‘জেনারেল ট্রেডিং অ্যান্ড কন্ট্রাকটিং লাইসেন্স’ নিয়েছিলেন। এর মাধ্যমে শুধু সরকারি পরিচ্ছন্নতাসেবা নয়, নির্মাণ, বৈদ্যুতিক সেবা, কৃষি খাত, পরিবহন ভাড়াসহ সরকারি নানা কাজের চুক্তির পাওয়ার একচ্ছত্র অধিকারী হয়েছিল সহিদের প্রতিষ্ঠানের। পাশাপাশি সরকারি বিভিন্ন চুক্তির নেপথ্যে থেকে কোনো রকম আইনি প্রতিবন্ধকতা ছাড়াই সহিদের বাংলাদেশ থেকে বিপুল কর্মী নেওয়ার সুযোগ নিশ্চিত হয়। বহুমাত্রিক ব্যবসা পরিচালনার মাধ্যমে তিনি মুদ্রা পাচার করতেন বলে গোয়েন্দাদের ধারণা। কুয়েতে ব্যবসা পরিচালনার জন্য চারটি প্রতিষ্ঠান রয়েছে লক্ষ্মীপুর থেকে নির্বাচিত বাংলাদেশের এই সাংসদের।

মানব ও মুদ্রা পাচারের অভিযোগে কুয়েতের ক্রিমিনাল ইনভেস্টিগেশন ডিপার্টমেন্টের (সিআইডি) কর্মকর্তারা ৬ জুন সহিদ ইসলামকে তাঁর বাসা থেকে গ্রেপ্তার করে। এরপর গোয়েন্দাদের কাছে জিজ্ঞাসাবাদে সহিদ ইসলাম কুয়েতের রাজনীতিবিদ, সরকারি কর্মকর্তাসহ বিভিন্ন পর্যায়ের প্রভাবশালী লোকজনকে ঘুষ দিয়ে অনৈতিকভাবে ব্যবসা পরিচালনার কথা স্বীকার করেছেন। তাঁর স্বীকারোক্তির ভিত্তিতে মেজর জেনারেল মাজেনসহ বেশ কয়েকজন জ্যেষ্ঠ সরকারি কর্মকর্তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া শুরু হয়েছে। একাধিকবার সহিদ ইসলামের জামিন নাকচ করে আদালত জুনের ১৪ তারিখ প্রথম তাঁকে কেন্দ্রীয় কারাগারে পাঠান।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0
বিজ্ঞাপন