সুন্দরবনের বাঘের প্রধান খাবার হরিণ। গবেষণায় এসেছে গুইসাপ, কাঁকড়া ও মাছ খেয়ে থাকে এই প্রাণী
সুন্দরবনের বাঘের প্রধান খাবার হরিণ। গবেষণায় এসেছে গুইসাপ, কাঁকড়া ও মাছ খেয়ে থাকে এই প্রাণীছবি: আবদুল আজিজ

সুন্দরবনের বাংলাদেশ অংশে বাঘের প্রধান খাবার হরিণের মাংস। কালেভদ্রে এরা শূকরও খেয়ে থাকে, এত দিন এটাই ছিল প্রতিষ্ঠিত ধারণা। তবে নতুন এক গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, বাঘের খাদ্যতালিকায় হরিণ, শূকরের পাশাপাশি গুইসাপ, কাঁকড়া ও মাছও রয়েছে।

সুন্দরবনের বাঘের খাদ্যাভ্যাস নিয়ে সাম্প্রতিক গবেষণায় এমন তথ্য উঠে এসেছে। গবেষক দলটি বাঘের মল ছাড়া হাড়গোড়ও পরীক্ষা করেছেন। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়, ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ও যুক্তরাজ্যের কেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের তিন অধ্যাপকের করা গবেষণার এ ফলাফল চলতি মাসের শুরুতে জার্মানির এনডেঞ্জারড স্পেসিস রিসার্চ নামের একটি আন্তর্জাতিক বিজ্ঞান সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়েছে।

গবেষণায় দেখা গেছে, সুন্দরবনের সাতক্ষীরা অংশে বাঘের খাবারের ৫০ শতাংশ হরিণের মাংস থেকে এবং বাকি ৫০ শতাংশ শূকরের মাংস থেকে আসে। আর খুলনা-বাগেরহাট অংশে বিচরণকারী বাঘ খাবারের ৭০ শতাংশ মেটে হরিণ থেকে। আর বাকি ৩০ শতাংশ আসে শূকর ও অন্যান্য প্রাণী থেকে। সামগ্রিকভাবে বাঘের খাবারের ৮৯ শতাংশ আসে হরিণ ও শূকর থেকে। গবেষকেরা বলছেন, বাঘ যদি মাছ ও কাঁকড়া খায়, তাহলে বুঝতে হবে সুন্দরবনে খাদ্যসংকট চলছে।

২০১৯ সালে বন বিভাগের পক্ষ থেকে সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা নিয়ে একটি জরিপ করেন। এতে দেখা যায়, বনের আয়তন অনুযায়ী সেখানে ২৬৪টি বাঘ থাকতে পারে। তবে বাঘ আছে ১১৪টি

সুন্দরবনের প্রায় দুই হাজার বর্গকিলোমিটার এলাকা থেকে বাঘের ৫১২টি মলের নমুনা পরীক্ষা করে এ গবেষণা করা হয়েছে। যুক্তরাজ্যের কেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষক জিম গ্রুমব্রিজ, জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক আবদুল আজিজ ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক আনোয়ারুল ইসলাম যৌথভাবে গবেষণাটি করেছেন। যুক্তরাজ্যের কেন্ট বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষাগারে এসব মল পরীক্ষা করে মূলত সুন্দরবনের বাঘ কী ধরনের খাবার খায়, তা বোঝার চেষ্টা করেছেন গবেষকেরা।

বিজ্ঞাপন

জানতে চাইলে গবেষক দলের সদস্য অধ্যাপক আবদুল আজিজ প্রথম আলোকে বলেন, ‘বিশ্বের বেশির ভাগ দেশে বাঘের প্রধান খাবার সাধারণত বুনো মহিষ, সাম্বার, চিত্রা হরিণের মতো বড় প্রাণী। কিন্তু আমাদের সুন্দরবনে এ ধরনের বড় প্রাণী নেই। ফলে এখানে বাঘ বাধ্য হয়ে হরিণ ও শূকর খেয়ে থাকে। তবে বাঘ যে মাছ ও কাঁকড়া খায়, তা দেখে আমরা অবাক হয়েছি। কারণ, চরিত্র ও খাদ্যাভ্যাস অনুযায়ী বাঘের মাছ ও গুইসাপের মতো জলজ প্রাণী খাওয়ার কথা না।’

default-image

আবদুল আজিজ বলেন, ‘বিশ্বের কোনো দেশের বাঘ সাধারণত এ ধরনের প্রাণী খায় না। কিন্তু আমাদের সুন্দরবনে তারা তা খাচ্ছে। বাঘ যে ধরনের প্রাণী, তাতে তার জন্য খাদ্য হিসেবে প্রচুর পরিমাণে মাংসল প্রাণীর দরকার।’ তাঁর ভাষ্য, সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা বাড়ানো যাবে, যদি হরিণ সংরক্ষণের উদ্যোগ বাড়ানো হয়। সুন্দরবনের বাঘ খাদ্য হিসেবে বানরও খেয়ে থাকে বলে উল্লেখ করেন তিনি।

অধ্যাপক আবদুল আজিজ ২০১৯ সালে বন বিভাগের পক্ষ থেকে সুন্দরবনে বাঘের সংখ্যা নিয়ে একটি জরিপ করেন। এতে দেখা যায়, বনের আয়তন অনুযায়ী সেখানে ২৬৪টি বাঘ থাকতে পারে। তবে বাঘ আছে ১১৪টি। অর্থাৎ বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণেরও বেশি বাড়ানো সম্ভব। সে ক্ষেত্রে হরিণের সংখ্যাও বাড়াতে হবে।

বাঘের খাদ্যসংকটের বিষয়ে দৃষ্টি আকর্ষণ করা হলে সুন্দরবনের বন্য প্রাণী ও প্রকৃতি সংরক্ষণ অঞ্চলের বন সংরক্ষক মিহির কুমার দো প্রথম আলোকে বলেন, ‘সুন্দরবনে বাঘের খাবারের কোনো সংকট নেই। তবে বাঘের সংখ্যা দ্বিগুণের বেশি বাড়ানো সম্ভব। সে ক্ষেত্রে অবশ্যই হরিণের সংখ্যা বাড়াতে হবে। সে জন্য আমরা কাজ করছি।’

এত দিন ধারণা ছিল সুন্দরবনের বাঘ মায়া হরিণ খায় না। কিন্তু চাঁদপাই, হরিণটানাসহ বিভিন্ন স্থানের মল পরীক্ষা করে বাঘের মায়া হরিণ খাওয়ার তথ্য পাওয়া গেছে। এমনকি বাঘের পেটে প্রচুর পরিমাণে মাটিও পাওয়া গেছে। জলজ প্রাণী খেতে গিয়ে এসব মাটি বাঘের পেটে যেতে পারে বলে মনে করছেন গবেষকেরা।

default-image

জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রাণিবিদ্যা বিভাগের আরেক অধ্যাপক মনিরুল এইচ খান এর আগে সুন্দরবনের বাঘের খাদ্যাভ্যাস নিয়ে গবেষণা করেছিলেন। ২০০৬ সালে করা ওই গবেষণায় দেখা গিয়েছিল, বাঘের খাবারের ৮০ শতাংশ হরিণ, ১১ শতাংশ বন্য শূকর, বাকি অংশ অন্যান্য ছোট প্রাণী থেকে আসে। ওই গবেষণায় মদনটাক পাখি, বনবিড়াল ও গুইসাপ খাওয়ার তথ্যও উঠে আসে।

এ ব্যাপারে মনিরুল এইচ খান প্রথম আলোকে বলেন, সাধারণত ছোট বাঘগুলো জলজ প্রাণী বেশি খায়। কারণ, হরিণ বা শূকরের মতো মাঝারি প্রাণী ধরার মতো সামর্থ্য তাদের নেই। কিন্তু বড় হলে এরা বেশি দৌড়াতে পারে ও হরিণের মতো প্রাণী ধরে খেতে পারে।

গবেষণাটিতে বলা হয়েছে, সুন্দরবনের বাঘের প্রধান খাবার হরিণ প্রচুর পরিমাণে শিকার হচ্ছে। বছরে তা প্রায় ১১ হাজার। মূলত চোরা শিকারিরা এসব শিকার করছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0