তবে পদ্মা সেতুতে দুর্নীতি হয়নি উল্লেখ করে বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, বাংলাদেশের আদালতে নয়, কানাডার আন্তর্জাতিক আদালতে ‘পদ্মা সেতু নির্মাণে কোনো দুর্নীতি হয় নাই, কোনো ষড়যন্ত্রও হয় নাই’ উল্লেখ করে রায় ঘোষিত হয়েছে। সেদিন বিএনপি-জামায়াতি ও তথাকথিত অর্থনীতিবিদেরা বাংলাদেশের নাগরিক হয়ে কত বড় মিথ্যাচার করেছিলেন। তাঁরা কখনোই বাংলাদেশি মানুষের বন্ধু হতে পারে না।

বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, ‘বিএনপির দুর্নীতিগ্রস্ত সাজাপ্রাপ্ত চেয়ারপারসন খালেদা জিয়া বলেছিলেন, জোড়াতালি দিয়ে পদ্মা সেতু নির্মাণ করা হচ্ছে। এ সেতু দিয়ে পার হওয়া যাবে না। এ কথা বলে তিনি জাতিকে লজ্জায় ফেলে দিয়েছিলেন। কেননা, তাঁর বোঝা উচিত, সেতুর স্ট্রাকচার (কাঠামো) স্টিলের তৈরি, যা বিদেশের মাটিতে তৈরি করে জোড়া দিয়েই বিশ্বের সব বড় বড় সেতু বানানো হয়ে থাকে।’

পদ্মা সেতু উদ্বোধন প্রসঙ্গে বাহাউদ্দিন নাছিম বলেন, পদ্মা সেতুর উদ্বোধনের দিনটি হবে ঐতিহাসিক। প্রধানমন্ত্রীর জনসভাস্থল ওই দিন জনসমুদ্রে পরিণত হবে, যা ইতিহাসে স্মরণীয় হয়ে থাকবে। প্রথমে ১০ লাখ মানুষের সমাগমের প্রত্যাশা করা হলেও জনসভাস্থলে আরও বেশি মানুষের সমাগম ঘটবে। জনসভাস্থলে দলীয় নেতা–কর্মী ছাড়াও সব শ্রেণির মানুষের জন্য আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে যাতায়াতের সব ধরনের ব্যবস্থা নেওয়ার নির্দেশনা দেন তিনি।

বর্ধিত সভায় জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শাহাবুদ্দিন আহমেদ মোল্লার সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি সিরাজ ফরাজি, যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র খালিদ হোসেন, আইনবিষয়ক সম্পাদক ও ঘটমাঝি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান বাবুল আক্তার, সদর উপজেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি ইউসুফ মোল্লা, কালকিনি উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি তাহমিনা সিদ্দিকী, রাজৈর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি শেখ সেকান্দর আলী, শিবচর উপজেলা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক আবদুল লতিফ মুনশি, ডাসার উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি সৈয়দ শাখাওয়াত হোসেনসহ রাজৈর পৌরসভার মেয়র ও আওয়ামী লীগের নেতা নাজমা রশিদ প্রমুখ।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন