বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

ভিড়ের মধ্যেই কথা হয় বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী আনজুম আরার সঙ্গে। তিনি দুই বন্ধুকে নিয়ে এসেছেন নগরের বহদ্দারহাট এলাকা থেকে। গ্রেবি ডাইনের চিকেন ফাজিতা কিনছিলেন তাঁরা। একফাঁকে প্রথম আলোকে বললেন, ‘বন্ধুদের সঙ্গে ফুড ফেস্টিভ্যালে ঘুরতে এসেছি। নানা পদের খাবারের স্বাদ নিতে মেলায় না এলে হয় না। বাসায় এত খাবার একসঙ্গে পাওয়া যায় না।’

default-image

শুধু বন্যা নন, বন্ধুদের নিয়ে এসেছেন আরও শতাধিক তরুণ-তরুণী। তাঁরা এ স্টল থেকে ও স্টলে ঘুরে ঘুরে খাবারের স্বাদ নেন। কেউ আবার বাসায়ও নিয়ে যান।
তিন দিনব্যাপী এ মেলার আয়োজক হুইজ কমিউনিকেশন নামের প্রতিষ্ঠান। বিকেল চারটায় অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন সিটি করপোরেশনের কাউন্সিলর মো. গিয়াস উদ্দিন। প্রধান অতিথি ছিলেন ইন্টারন্যাশনাল বিজনেস ফোরাম চট্টগ্রামের সভাপতি এস এম আবু তৈয়ব। সভাপতিত্ব করেন হুইজ কমিউনিকেশনের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাসুদ বকুল। এতে প্রধান অতিথি এস এম আবু তৈয়ব বলেন, ‘আমরা ভেজাল খাবার খেতে চাই না। সতেজ উপাদান দিয়েই রেস্তোরাঁগুলোতে খাবার তৈরি হবে, এটা আমার প্রত্যাশা।’

default-image

মাসুদ বকুল প্রথম আলোকে বলেন, এ আয়োজনে ভোজনরসিকদের জন্য ৩০টি স্টল থাকছে। এসব স্টলে শীতের পিঠা থেকে শুরু করে দেশি-বিদেশি নানা পদের খাবার রয়েছে। দামেও কম। দর্শকদের জন্য থাকছে গেম শো, জাদু প্রদর্শনী, মাইম শো, দৃষ্টি চট্টগ্রামের পরিবেশনায় রম্য বিতর্ক, আবৃত্তি ও সাংস্কৃতিক আয়োজন। ফলে ভোজনরসিক দর্শকেরা মেলায় এসে হতাশ হবে না। মেলা চলবে ২৭ নভেম্বর পর্যন্ত।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন