default-image

বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধে বিশেষ অবদানের স্বীকৃতি হিসেবে কানাডার সাবেক প্রধানমন্ত্রী পিয়েরে অ্যালিওট ট্রুডোকে মরণোত্তর ‘বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধ সম্মাননা’ দেওয়া হয়েছে। সাবেক এই প্রধানমন্ত্রীর ছেলে দেশটির বর্তমান প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডোর হাতে এই সম্মাননা তুলে দেন বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।

শেখ হাসিনা গতকাল শুক্রবার মন্ট্রিলে হায়াত রিজেন্সি হোটেলে দ্বিপক্ষীয় বৈঠক শেষে জাস্টিন ট্রুডোর হাতে ‘ফ্রেন্ডস অব লিবারেশন ওয়ার অনার’ হস্তান্তর করেন।

এই অনুষ্ঠানে মুক্তিযুদ্ধ-বিষয়ক মন্ত্রী এ কে এম মোজাম্মেল হক, পররাষ্ট্রমন্ত্রী এ এইচ মাহমুদ আলী ও অটোয়ায় বাংলাদেশের হাইকমিশনার মিজানুর রহমান উপস্থিত ছিলেন।

default-image

অনুষ্ঠান শেষে পররাষ্ট্রসচিব শহিদুল হক সাংবাদিকদের বলেন, সম্মাননা প্রদানকালে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেছেন, বাংলাদেশের স্বাধীনতাযুদ্ধে যে কয়জন বিশ্বনেতা বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধের পক্ষে অবস্থান নিয়েছিলেন, পিয়েরে ট্রুডো তাঁদের অন্যতম। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর যে কয়টি দেশ প্রথম দিকে বাংলাদেশকে স্বীকৃতি দেয়, তার মধ্যে কানাডা অন্যতম। মুক্তিযুদ্ধের সময় পিয়েরে ট্রুডো আন্তর্জাতিক পর্যায়ে বাংলাদেশ পক্ষে দৃঢ়ভাবে কথা বলেছেন এবং কমনওয়েলথ ও জাতিসংঘে বাংলাদেশের সদস্য লাভের ব্যাপারে প্রকাশ্যে সমর্থন দিয়েছিলেন।
পররাষ্ট্রসচিব বলেন, বাবাকে দেওয়া সম্মাননা গ্রহণ করে জাস্টিন ট্রুডো বলেন, ‘আমরা দুজনই দ্বিতীয় প্রজন্ম। আপনার ও আমার—দুজনের বাবাই প্রধানমন্ত্রী ছিলেন।’
পরিবারের পক্ষ থেকে এই সম্মাননা গ্রহণ করায় জাস্টিন ট্রুডোর প্রতি কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করেন শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, ‘আমি প্রধানমন্ত্রী জাস্টিন ট্রুডো ও তাঁর পরিবারের সদস্যদের সুস্বাস্থ্য ও দীর্ঘায়ু এবং বন্ধু রাষ্ট্র কানাডার উন্নয়ন-সুখ ও সমৃদ্ধি কামনা করছি।’ বাংলাদেশ-কানাডার বন্ধুত্বপূর্ণ সম্পর্ক ভবিষ্যতেও অব্যাহত থাকবে বলে শেখ হাসিনা আশা প্রকাশ করেন।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0