default-image

জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হিসেবে গোলাম মোহাম্মদ কাদেরকে (জি এম কাদের) মনোনীত করা কেন আইনগত কর্তৃত্ব বহির্ভূত হবে না, তা জানতে চেয়ে রুল দিয়েছেন হাইকোর্ট।

জাতীয় পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির এক সদস্যের করা রিটের প্রাথমিক শুনানি নিয়ে আজ মঙ্গলবার বিচারপতি জে বি এম হাসান ও বিচারপতি মো. খায়রুল আলমের সমন্বয়ে গঠিত হাইকোর্ট বেঞ্চ এ রুল দেন।

জি এম কাদেরকে চেয়ারম্যান হিসেবে মনোনীত করা দলটির গঠনতন্ত্র বিরোধী উল্লেখ করে ২২ ডিসেম্বর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য মো. জহির উদ্দিন রিটটি করেন। আদালতে রিটের পক্ষে শুনানিতে ছিলেন আইনজীবী আবদুল মতিন খসরু, কে এম সাইফুদ্দিন আহমেদ, নাহিদ সুলতানা ও মো. মুনিরুজ্জামান। রাষ্ট্রপক্ষে ছিলেন ডেপুটি অ্যাটর্নি জেনারেল নুর উস সাদিক।

আইনজীবী মুনিরুজ্জামান প্রথম আলোকে বলেন, দলটির মহাসচিব গত ১৮ জুলাই জি এম কাদেরকে দলের চেয়ারম্যান হিসেবে ঘোষণা করেন। জাতীয় পার্টির গঠনতন্ত্র অনুসারে কাউন্সিল ছাড়া চেয়ারম্যান নির্বাচনের সুযোগ নেই। অথচ মহাসচিব কর্তৃক ঘোষিত চেয়ারম্যান গত ১ ডিসেম্বর কাউন্সিল অধিবেশন আহ্বান করেন, যা ২৮ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হওয়ার কথা। কাউন্সিল ছাড়া চেয়ারম্যান নির্বাচন ও চেয়ারম্যানের কাউন্সিল ডাকা গণপ্রতিনিধিত্ব অধ্যাদেশ ও দলটির গঠনতন্ত্র পরপন্থী। এসব উল্লেখ করে সম্মেলন স্থগিত চেয়ে গত ১৫ ডিসেম্বর নির্বাচন কমিশনে (ইসি) আবেদন করা হয়। এই আবেদন ইসি নিষ্পত্তি না করায় ওই রিটটি করা হলে আদালত ওই রুল দেন।

রুলে ওই আবেদনটি নিষ্পত্তি করতে ইসির নিষ্ক্রিয়তা কেন বেআইনি হবে না তাও জানতে চাওয়া হয়েছে। নির্বাচন কমিশন ও জিএম কাদেরসহ ছয় বিবাদীকে চার সপ্তাহের মধ্যে ওই রুলের জবাব দিতে বলা হয়েছে।

বিজ্ঞাপন
মন্তব্য পড়ুন 0