এরপর রাতে মুঠোফোনে লতা সমাদ্দারের সঙ্গে প্রথম আলোর কথা হয়। তিনি বলেন, ‘শনাক্তকারী পুলিশ সদস্য বিষয়টি স্বীকার করেছেন বলে শুনেছি। এটাও শুনেছি যে তিনি নাকি টিপ নিয়ে কিছু বলেননি। তবে ঘটনার শুরু থেকেই আমি রাখঢাক করে কিছু বলিনি, যা ঘটেছে তা সবার সামনেই বলেছি। এখন ওই পুলিশ সদস্য যদি বলেন তিনি টিপ নিয়ে কিছু বলেননি, তাহলে আমি পুলিশ প্রশাসনকে বলব, আরও তদন্ত করে দেখতে। তদন্ত হলেই আসল ঘটনা বের হয়ে আসবে।’

লতা সমাদ্দার বলেন, ‘ঘটনার পর আমি লিখিতভাবে থানায় অভিযোগ করেছিলাম। তারপর মিডিয়া বিষয়টি প্রচার ও প্রকাশ করে। তাই মিডিয়াকে আমার পাশে থাকার জন্য ধন্যবাদ। একই সঙ্গে পুলিশ প্রশাসনকেও ধন্যবাদ। অভিযোগের পর দ্রুত সময়ে অভিযুক্তকে শনাক্ত করে চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করেছে।’

লতা সমাদ্দার থানায় অভিযোগ করার পর তা গণমাধ্যমে প্রকাশের পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম ফেসবুকে নারীরা টিপ পরা ছবি দিয়ে ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে থাকেন। এ প্রতিবাদে পুরুষদের অনেকেই কপালে টিপ পরে প্রতিবাদ করেন। বিষয়টি নিয়ে জাতীয় সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেন সংরক্ষিত নারী আসনের সাংসদ সুবর্ণা মুস্তাফা। সোমবার রাতে শিক্ষামন্ত্রী দীপু মনিও নিজে ফেসবুক অ্যাকাউন্টে টিক পরা ছবি পোস্ট করে প্রতিবাদ জানিয়েছেন। বিভিন্ন নারী, সামাজিক সংগঠন ঘটনার প্রতিবাদে বিবৃতি দেওয়ার পাশাপাশি মানববন্ধনসহ বিভিন্ন আয়োজন করে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন