বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

আজ মঙ্গলবার সন্ধ্যায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রভোস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটির এক সভার বিষয়ে প্রথম আলোকে এই পাল্টাপাল্টি বক্তব্য দেন মো. আখতারুজ্জামান ও এ এস এম মাকসুদ কামাল। উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান বলেন, প্রভোস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটির সভা থেকে শুধু একটি সুপারিশ বা সিদ্ধান্ত এসেছে। সেটি হলো অন্তত এক ডোজ টিকা নেওয়ার প্রমাণপত্র থাকা সাপেক্ষে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষের আবাসিক শিক্ষার্থীদের ১০ অক্টোবর থেকে হলে তোলা।

আর প্রভোস্ট কমিটির সভা শেষে বিশ্ববিদ্যালয়ের সহ-উপাচার্য (শিক্ষা) এ এস এম মাকসুদ কামাল প্রথম আলোকে বলেন, ‘প্রভোস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটি সিদ্ধান্ত নিয়েছে, অন্তত এক ডোজ টিকা নেওয়ার প্রমাণপত্র থাকা সাপেক্ষে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষের আবাসিক শিক্ষার্থীদের ১০ অক্টোবর থেকে হলে তোলা হবে। ১৬ অক্টোবর থেকে সব বিভাগ-ইনস্টিটিউটের সব বর্ষের শ্রেণি কার্যক্রম (ক্লাস-পরীক্ষা) শুরু হবে। সেশনজট অবসানের জন্য পাঁচ দিনের পরিবর্তে এখন থেকে ছয় দিন কার্যদিবস থাকবে। শুধু শুক্রবার সাপ্তাহিক ছুটি থাকবে। এ ছাড়া প্রতিদিনই শ্রেণি কার্যক্রম চলবে।’

পরে উপাচার্য মো. আখতারুজ্জামান বলেন, প্রভোস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটির সভায় ১০ অক্টোবর থেকে প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় বর্ষের শিক্ষার্থীদের হলে ওঠানোর বিষয়ে একটি সিদ্ধান্ত হয়েছে। শ্রেণি কার্যক্রমের বিষয়ে সেখানে কোনো সিদ্ধান্ত হয়নি।

করোনা পরিস্থিতির কারণে দীর্ঘ দেড় বছর বন্ধ থাকার পর আজ সকাল আটটা থেকে আনুষ্ঠানিকভাবে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন হলে উঠেছেন স্নাতক চতুর্থ বর্ষ ও স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থীরা। বিশ্ববিদ্যালয় সিন্ডিকেটের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী, অন্তত এক ডোজ টিকা নেওয়ার প্রমাণপত্র ও বিশ্ববিদ্যালয়ের বৈধ পরিচয়পত্র দেখিয়ে স্নাতক চতুর্থ বর্ষ ও স্নাতকোত্তরের শিক্ষার্থীদের হলে উঠতে হয়েছে। এমন প্রেক্ষাপটে আজ সন্ধ্যায় প্রভোস্ট স্ট্যান্ডিং কমিটির সভা ডাকা হয়েছিল।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন