বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন
default-image

খন্দকার আল মঈন জানান, শিশু হত্যার ঘটনায় প্রধান অভিযুক্ত রিমন অপর চার সহযোগীসহ প্রথমে অ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় আত্মগোপনের চেষ্টা করেন। কিন্তু রমজান ও ঈদকেন্দ্রিক আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর তৎপরতা বেশি থাকায় তাঁরা মত বদলান। পরে তাঁরা নোয়াখালীর সুবর্ণচরের চর ক্লার্ক এলাকার একটি নির্জন স্থান বেছে নেন।

র‌্যাবের গণমাধ্যম শাখার পরিচালকের দাবি, গতকাল মঙ্গলবার রাত নয়টার পর চর ক্লার্কের সেই স্থানে অভিযান চালায় র‌্যাব। এ সময় রিমন ও তাঁর সহযোগীরা র‌্যাবের উপস্থিতি টের পেয়ে গুলি ছোড়ে। র‌্যাবও পাল্টা গুলি ছোড়ে। একপর্যায়ে রিমন ও তাঁর সহযোগীরা র‌্যাবের কাছে অস্ত্র–গুলিসহ আত্মসমর্পণ করেন।

সংবাদ ব্রিফিংয়ে জানানো হয়, আত্মসমর্পণকারীরা হলেন মো. রিমন, তাঁর প্রধান সহযোগী এজাহারনামীয় ৩ নম্বর আসামি মহিন (২৫), ৪ নম্বর আসামি মো. আকবর (২৫), ৫ নম্বর আসামি মো. সুজন (২৮) ও ১০ নম্বর আসামি নাঈম প্রকাশ ওরফে বড় নাঈম (২৩)। এ সময় তাঁদের কাছ থেকে একটি বিদেশি পিস্তল, একটি এলজি, একটি কার্তুজ ও ১১টি গুলি উদ্ধার করা হয়েছে।

র‌্যাব জানায়, গ্রেপ্তার রিমনের বিরুদ্ধে আগের আটটি মামলা ছিল, যার মধ্যে পাঁচটি মামলারই গ্রেপ্তারি পরোয়ানা ছিল। এ ছাড়া সেকেন্ড ইন কমান্ড মহিনের বিরুদ্ধে ছয়টি, আকবরের বিরুদ্ধে তিনটি, সুজনের বিরুদ্ধে একটি মামলা রয়েছে।

default-image

শিশু তাসপিয়ার হত্যার ঘটনায় জড়িত প্রধান আসামি রিমনসহ পাঁচ সন্ত্রাসীকে গ্রেপ্তারের খবরে র‌্যাব কার্যালয়ের পাশের রাস্তায় ভিড় জমান হাজীপুর থেকে আসা শতাধিক বাসিন্দা। তাঁরা এ সময় সেখানে বিক্ষোভ প্রদর্শন করেন। এ ছাড়া র‌্যাবের প্রেস ব্রিফিংস্থলে উপস্থিত ছিলেন নিহত তাসপিয়ার বাবা আবু জাহের। তিনি র‌্যাবের ভূমিকার প্রশংসা করে বলেন, ‘আমার এখন একটাই চাওয়া, আমার মাছুম বাচ্চার খুনিদের মৃত্যুদণ্ড। আর আমার পরিবারের নিরাপত্তা যেন সরকার নিশ্চিত করে। কারণ, আমি বিদেশে থাকি।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন