default-image

গত কয়েক দিনের মতো আজও সকালে ঘুম থেকে উঠেই তেতে ওঠা সূর্য আর গনগনে রোদের মুখ দেখেছে রাজধানীবাসী। আজও দাবদাহের দাপটের মুখে পড়তে হবে ধরে নিয়ে দিনের কাজের শুরুটা করতে হয়েছে। তবে গত দুই দিন যেমন তীব্র গরমের মধ্যে কাটতে হয়েছে, আজ সকাল গড়িয়ে দুপুর হতেই বোঝা গেল প্রকৃতি যেন কিছুটা সদয় হয়েছে। আকাশে মেঘের আনাগোনা বেড়ে যাওয়ায় দাবদাহের দাপট কিছুটা হলেও কমে এসেছে।

দুই দিন ধরে রাজধানীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের আশপাশে ছিল। আজ মঙ্গলবার বেলা তিনটা পর্যন্ত আবহাওয়া অধিদপ্তরের রেকর্ড অনুযায়ী রাজধানীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রার রেকর্ড উঠেছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসে।

রাজধানীর মতো দেশের বেশির ভাগ এলাকার তাপমাত্রা গত এক দিনের ব্যবধানে এক থেকে দুই ডিগ্রি সেলসিয়াস কমেছে। বিশেষ করে চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের বেশির ভাগ এলাকার তাপমাত্রা আরও বেশি কমেছে। আজ রাতের মধ্যে সিলেট ও ময়মনসিংহ বিভাগের অনেক স্থানে দমকা হাওয়াসহ বৃষ্টি এবং বজ্রসহ বৃষ্টি হতে পারে।

বিজ্ঞাপন

আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাস বলছে, কাল বুধবার দেশের বেশির ভাগ এলাকায় মেঘের আনাগোনা আরও বাড়তে পারে। ফলে সারা দেশেই তাপমাত্রা কমবেশি কমতে পারে। আগামী শুক্রবার থেকে দেশের বেশির ভাগ এলাকায় কালবৈশাখী ঝড়, বজ্রসহ বৃষ্টির আশঙ্কা আছে। আগামী রোববার পর্যন্ত ওই বৃষ্টি ও ঝড় চলতে পারে।

আবহাওয়া অধিদপ্তরের আবহাওয়াবিদ হাফিজুর রহমান প্রথম আলোকে বলেন, এক সপ্তাহ ধরে যে তীব্র গরম ছিল, তা আগামীকালের মধ্যে কমে আসবে। বৃষ্টি বেড়ে কিছুটা স্বস্তির আবহাওয়া পাওয়া যাবে।

আজ দেশের সবচেয়ে বেশি তাপমাত্রা ছিল রাজশাহী ও শ্রীমঙ্গলে ৩৮ দশমিক ৩ ডিগ্রি সেলসিয়াস। রাজধানীর সর্বোচ্চ তাপমাত্রা ছিল ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। দেশের বেশির ভাগ এলাকার ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া মৃদু থেকে মাঝারি দাবদাহের প্রভাব কমে আসবে। অনেক এলাকা থেকে তা বিদায় নেবে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন