সেতু বিভাগ সূত্র জানায়, মন্ত্রিপরিষদ সচিব মাওয়ায় সুধী সমাবেশের স্থান, দুই প্রান্তের ম্যুরাল ও ফলক উন্মোচনের স্থানসহ উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা যেসব স্থানে যাবেন, এর সব কটি ঘুরে দেখেন।

২৫ জুন পদ্মা সেতুর উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী। সেতুর দুই পারে তিনি নানা আনুষ্ঠানিকতায় অংশ নেবেন। পরে মাদারীপুরের শিবচরে রাজনৈতিক সমাবেশে অংশ নেবেন।

সেতু বিভাগের কর্মকর্তারা জানিয়েছেন, উদ্বোধনী নুষ্ঠানের দিন দুই পারে অ্যাম্বুলেন্সের ব্যবস্থা থাকবে। জরুরি স্বাস্থ্যসেবার প্রয়োজন হলে দুই পারেই পদ্মা সেতু প্রকল্পের অধীন ক্ষতিগ্রস্ত ব্যক্তিদের জন্য তৈরি করা পুনর্বাসন এলাকার পাঁচটি স্বাস্থ্যকেন্দ্র ব্যবহার করা হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠান উপলক্ষে সেতু বিভাগ ১৮টি উপকমিটি করেছে। এসব কমিটি প্রায় প্রতিদিনই নিজেদের মধ্যে বৈঠক করছে। এর মধ্যে আমন্ত্রণ দেওয়ার জন্য ইতিমধ্যে প্রায় তিন হাজার অতিথির তালিকা তৈরি করা হয়েছে। তাঁদের প্রত্যেকের জন্য দাওয়াতপত্র তৈরির কাজ চলছে বলে সংশ্লিষ্ট সূত্র জানিয়েছে।