বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

গত ১৫ সেপ্টেম্বর পাসপোর্ট, প্রেস অ্যাক্রেডিটেশন কার্ড ও মুঠোফোন ফেরত চেয়ে করা আবেদন নাকচ করেন ঢাকার সিএমএম আদালত। ওই আদেশের বিরুদ্ধে ঢাকার মহানগর দায়রা জজ আদালতে রিভিশন আবেদন করেন সাংবাদিক রোজিনা। ওই আবেদনের ওপর শুনানির জন্য আজ মঙ্গলবার দিন ধার্য ছিল।

রোজিনা ইসলামের আইনজীবী এহসানুল হক সমাজী ও প্রশান্ত কুমার কর্মকার প্রথম আলোকে বলেন, রোজিনা ইসলামের জব্দ করা পাসপোর্ট, প্রেস অ্যাক্রেডিটেশন কার্ড ও দুটি মুঠোফোন ফেরত চেয়ে করা রিভিশন আবেদনের ওপর শুনানির দিন ধার্য ছিল মঙ্গলবার। আদালত রিভিশন আবেদনটি শুনানির জন্য গ্রহণ করেছেন।

পেশাগত দায়িত্ব পালনকালে ৬ মাস আগে ১৭ মে সাংবাদিক রোজিনা ইসলামকে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে প্রায় ৬ ঘণ্টা আটকে রেখে হেনস্তা ও নির্যাতন করা হয়। একই দিন রাত সাড়ে আটটার দিকে তাঁকে শাহবাগ থানা-পুলিশের কাছে হস্তান্তর করা হয়। রাত পৌনে ১২টার দিকে তাঁর বিরুদ্ধে শাহবাগ থানায় মামলা করা হয়। ওই মামলায় গ্রেপ্তার হওয়ার এক সপ্তাহের মাথায় গত ২৩ মে তিনি জামিনে ছাড়া পান।

এ মামলায় গত ২৯ অক্টোবর আদালতে হাজিরা দেন সাংবাদিক রোজিনা ইসলাম। মামলার পরবর্তী শুনানির দিন ধার্য রয়েছে আগামী ৭ ডিসেম্বর।

সাহসী সাংবাদিকতার জন্য আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি পেয়েছেন প্রথম আলোর জ্যেষ্ঠ প্রতিবেদক রোজিনা ইসলাম, যিনি বাংলাদেশে করোনাকালে স্বাস্থ্য খাতের অনিয়ম তুলে ধরতে গিয়ে নিগ্রহ, নির্যাতন ও মামলার শিকার হয়েছেন। নেদারল্যান্ডসের আমস্টারডামভিত্তিক সংস্থা ফ্রি প্রেস আনলিমিটেড তাঁকে এ বছরের ‘ফ্রি প্রেস অ্যাওয়ার্ড-২০২১’ দিয়েছে । তিনি পুরস্কারটি পেয়েছেন সেরা অদম্য সাংবাদিক বা মোস্ট রেজিলিয়েন্ট জার্নালিস্ট শ্রেণিতে।

মুক্ত সাংবাদিকতার জন্য লড়াই করা সাংবাদিকদের এই পুরস্কার দেওয়া হয়। গত বছর একই পুরস্কার পেয়েছিলেন এ বছর শান্তিতে নোবেল পাওয়া ফিলিপাইনের সাংবাদিক মারিয়া রেসা।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন