বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘পূজামণ্ডপের আশপাশে কোনো দোকানপাট ও মেলা বসতে দেওয়া হবে না । আতশবাজি ও পটকা ফোটানো যাবে না, মাদক গ্রহণ করা যাবে না। অস্থায়ী পূজামণ্ডপগুলো নির্দিষ্ট দিনেই প্রতিমা বিসর্জন দিতে হবে।’

পূজামণ্ডপে আইনশৃঙ্খলা বাহিনী ও গোয়েন্দা সংস্থার সদস্য মোতায়েন থাকবে জানিয়ে আসাদুজ্জামান খান কামাল বলেন, ‘বড় বড় পূজামণ্ডপে র‌্যাব, পুলিশের বিশেষ টহলের সঙ্গে সিসি ক্যামেরা দিয়ে নজরদারি করা হবে। সীমান্ত এলাকার পূজামণ্ডপে বিজিবি ও উপকূলীয় এলাকায় কোস্টগার্ড সতর্ক অবস্থায় থাকবে।’

স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, ‘কোনো দুষ্কৃতকারী পূজামণ্ডপ এলাকায় বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করলে অথবা সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে অপপ্রচার চালালে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে। সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে স্বাস্থ্যবিধি মেনে প্রতিমা বিসর্জন দিতে হবে।’

আগামী ১১ অক্টোবর থেকে ১৫ অক্টোবর সারা দেশে ৩১ হাজার ২৩৭টি পূজা মণ্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হবে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন