বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন

জরায়ুমুখের ক্যানসার–সচেতনতায় গঠিত ‘মার্চ ফর মাদার’ (জননীর জন্য পদযাত্রা) নামের মোর্চায় ক্যানসার, নারী স্বাস্থ্য ও নারী অধিকার নিয়ে কাজ করা ১৭টি বেসরকারি সংগঠন আজ শনিবার জরায়ুমুখ ক্যানসার–সচেতনতা দিবস পালন করবে। ২০১৮ সাল থেকে প্রতিবছরের জানুয়ারি মাসের দ্বিতীয় শনিবার দিবসটি পালন করা হচ্ছে। এবারের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে, ‘আপনার কিশোরী কন্যাকে এইচপিভি টিকা দিন’। সংগঠনগুলো আলোচনা সভাসহ আজ জাতীয় প্রেসক্লাব থেকে মগবাজার মোড় পর্যন্ত পদযাত্রা ও প্রচারপত্র বিতরণ কর্মসূচি পালন করবে।

ইপিআইয়ের কর্মসূচি ব্যবস্থাপক মওলা বকস্‌ চৌধুরী বলেন, টিকার প্রাপ্যতার ভিত্তিতে জুলাই থেকে দেশে ১০ থেকে ১৪ বছর বয়সী শিশুদের এইচপিভি টিকা দেওয়ার কথা। তবে কোভিডের টিকা নিয়ে বিশ্ব এখন ব্যস্ত। এ অবস্থায় টিকা না পেলে কর্মসূচি দেরিতে হবে। একজন নারীর জরায়ুমুখ ক্যানসারের ঝুঁকিতে আছে কি না, তা ১০ বছর আগে ভায়া (ভিজ্যুয়াল ইন্সপেকশন অব দ্য সারভিক্স উইথ অ্যাসিটিক অ্যাসিড) টেস্টের মাধ্যমে শনাক্ত করা সম্ভব।

দেশে জরায়ুমুখ ক্যানসারের চিত্র: বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার ক্যানসার গবেষণাবিষয়ক আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠান আইএআরসির গ্লোবোক্যান ২০২০ সালের প্রতিবেদন অনুসারে, আক্রান্তের দিক দিয়ে দেশে সব ধরনের ক্যানসারের মধ্যে জরায়ুমুখের ক্যানসার পঞ্চম স্থানে। বছরে আক্রান্ত ৮ হাজার ২৬৮ জন, মারা যান ৪ হাজার ৯৭১ জন। ক্যানসারে মৃত্যুর দিক দিয়ে দেশে অবস্থান সপ্তম। নারীরা স্তন ক্যানসারের পর সবচেয়ে বেশি ভুগছেন জরায়ুমুখের ক্যানসারে।

ক্যানসার বিশেষজ্ঞদের মতে, অল্প বয়সে বিয়ে, বেশি সন্তান, ঘন ঘন সন্তানধারণ, মাসিকের সময় জীবাণুমুক্ত পরিবেশ বজায় না রাখা, অপুষ্ট দেহে রোগ প্রতিরোধক্ষমতা কমে যাওয়া, নারী ও পুরুষের একাধিক সঙ্গীর সঙ্গে যৌন মেলামেশা থেকে জরায়ুমুখের ক্যানসারে আক্রান্ত হওয়ার ঝুঁকি থাকে।

কাজে লাগাতে হবে বেসরকারি সংগঠনগুলোকে: এইচপিভি ৬, এইচপিভি ১১, এইচপিভি ১৬ ও এইচপিভি ১৮ জরায়ুমুখের ক্যানসারের জন্য ঝুঁকিপূর্ণ। এইচপিভি ১৬ ও এইচপিভি ১৮ সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ণ। পাইলট প্রকল্পে গ্ল্যাক্সো স্মিথ ক্লাইনের (জিএসকে) ‘সারভারিক্স’ এইচপিভি টিকা দেওয়া হতো। এটি বাইভ্যালেন্ট বা এইচপিভি ১৬ ও এইচপিভি ১৮ প্রতিরোধে কাজ করে। জেএসকে দেশ থেকে ব্যবসা গুটিয়ে চলে গেছে। বেসরকারিভাবে হেলথ কেয়ার ‘গার্ডেসিল’ নামে এইচপিভি টিকা আমদানি করত দেশে, যা টেট্রাভ্যালেন্ট বা চারটির ক্ষেত্রেই প্রতিষেধকের কাজ করে। এটিও এখন দুষ্প্রাপ্য, দামও বেশি। ভিন্ন কোনো প্রতিষ্ঠানের মাধ্যমে এবারও সারভারিক্স টিকা দেওয়া হবে।

মার্চ ফর মাদারের প্রধান সমন্বয়কারী এবং জাতীয় ক্যানসার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক মো. হাবিবুল্লাহ তালুকদার বলেন, দেশে সরকারিভাবে এইচপিভি টিকা শুরুর আগে ব্যাপক জনসচেতনতার সৃষ্টি করতে হবে। লক্ষ্য অর্জনে ক্যানসার নিয়ে যেসব বেসরকারি সংগঠন কাজ করে, তাদের টিকাদান কর্মসূচির সঙ্গে যুক্ত করতে হবে। এইচপিভি টিকার অনুমোদন পেয়েছে বাংলাদেশ, এ তথ্যটুকু ছাড়া এই কর্মসূচির কোনো তথ্য বিশেষজ্ঞদের জানানো হয়নি।

হাবিবুল্লাহ আরও বলেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ২০৩০ সালের মধ্যে ১৫ বছরের কম বয়সী মেয়েদের ৯০ শতাংশকে টিকার আওতায়, ৩৫ ও ৪৫ বছর বয়সে অন্তত দুবার স্ক্রিনিং এবং ৯০ শতাংশকে চিকিৎসার আওতায় আনার লক্ষ্য বেঁধে দিয়েছে। বাংলাদেশ সেই লক্ষ্য থেকে অনেক পেছনে। ১৫ বছরে স্ক্রিনিং ৭–৮ শতাংশের বেশি নয়। স্ক্রিনিং যেভাবে অতি কেন্দ্রীভূত হয়ে আছে, তাতে ১০০ বছরেও লক্ষ্য পূরণ হবে না।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন