সাংসদের বক্তব্যের সময় হেফাজতে ইসলামের কর্মীরা নানা স্লোগান দেন। মঞ্চে এ সময় অন্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন হেফাজতে ইসলামের কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতা।

সাংসদ লিয়াকতের এ বক্তব্য বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হওয়ার পর সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দেয়। জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান জি এম কাদের প্রথম আলোকে বলেন, ‘এটা তাঁর ব্যক্তিগত বক্তব্য। এর সঙ্গে দল সম্পৃক্ত নয়, এ ধরনের বক্তব্য দলের কাছে গ্রহণযোগ্যও নয়। তবু তিনি যেহেতু দলের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বে আছেন, তাই বিষয়টি নিয়ে কী করা উচিত, তা আলোচনা করে সিদ্ধান্ত নেব।’

বিষয়টি নিয়ে স্থানীয়ভাবেও প্রতিক্রিয়া হয়েছে। সোনারগাঁ উপজেলা আওয়ামী লীগের আহ্বায়ক ও প্রবীণ আইনজীবী শামসুল ইসলাম ভূঁইয়া প্রথম আলোকে বলেন, ‘একজন আইনপ্রণেতা প্রকাশ্যে কাউকে হত্যার ঘোষণা দিতে পারেন না। এটি নিন্দনীয়। মুসলমান হিসেবে আমরা ফ্রান্সের প্রেসিডেন্টের ভূমিকার নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাতে পারি।’

আর সাংসদ লিয়াকত হোসেন নিজের বক্তব্যে অনড় রয়েছেন জানিয়ে আজ বিকেলে প্রথম আলোকে বলেন, ‘বক্তব্যটি সম্পূর্ণ আমার ব্যক্তিগত। আমার এ বক্তব্যে যেকোনো শাস্তি হলে আমি মাথা পেতে নেব।’

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন