রাষ্ট্রপতির ভাষণ শেষে তাঁকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মজীবনীমূলক স্মারক গ্রন্থসমূহ উপহার দেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। ৯ নভেম্বর
রাষ্ট্রপতির ভাষণ শেষে তাঁকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আত্মজীবনীমূলক স্মারক গ্রন্থসমূহ উপহার দেন স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী। ৯ নভেম্বরছবি: পিআইডি

রাষ্ট্রপতি মো. আবদুল হামিদ বলেছেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান শুধু একটি নাম নয়। বঙ্গবন্ধু একটি প্রতিষ্ঠান, একটি সত্তা, একটি ইতিহাস। জীবিত বঙ্গবন্ধুর মতোই অন্তরালের বঙ্গবন্ধু শক্তিশালী।

আজ সোমবার জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জন্মশতবার্ষিকী ‌ও মুজিব বর্ষ উপলক্ষে জাতীয় সংসদের বিশেষ অধিবেশনে দেওয়া ভাষণে রাষ্ট্রপতি এসব কথা বলেন। সংসদের ইতিহাসে প্রথমবারের মতো বিশেষ এই অধিবেশন আয়োজন করা হয়েছে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘যত দিন বাংলাদেশ থাকবে, বাঙালি থাকবে, এ দেশের জনগণ থাকবে, তত দিনই বঙ্গবন্ধু সবার অনুপ্রেরণার উৎস হয়ে থাকবেন। নিপীড়িত-নির্যাতিত মানুষের মুক্তির আলোকবর্তিকা হয়ে তিনি বিশ্বকে করেছেন আলোকময়। তাই আমাদের ভবিষ্যৎ প্রজন্ম যাতে বঙ্গবন্ধুর নীতি, আদর্শ ও মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় উজ্জীবিত হয়ে বেড়ে উঠতে পারে, সে লক্ষ্যে সবাইকে উদ্যোগী হতে হবে।’

সংসদের বৈঠক শুরু হওয়ার পর রাষ্ট্রপতি সংসদ কক্ষে প্রবেশ করেন। এ সময় বিউগল বাজানো হয়। এরপর নিয়ম অনুযায়ী জাতীয় সংগীত বাজানো হয়। সংসদ কক্ষে ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধুর স্বদেশ প্রত্যাবর্তন দিবসের ভাষণ বাজানোর মধ্য দিয়ে শুরু হয় বিশেষ অধিবেশনের মূল কার্যক্রম। বঙ্গবন্ধুর ভাষণ শুনে তাঁর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে আবেগপ্রবণ হয়ে একাধিকবার চোখ মুছতে দেখা যায়।

ভাষণের রেকর্ড বাজানো শেষ হলে সরকারি দলের সাংসদেরা জয় বাংলা জয় বঙ্গবন্ধু স্লোগান দেন। অধিবেশনে বিএনপির একাধিক সাংসদসহ সরকারি ও বিরোধী দলের বেশির ভাগ সাংসদ অধিবেশনে উপস্থিত ছিলেন।

বিজ্ঞাপন

বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশকে আলাদা করে দেখার সুযোগ নেই

স্পিকার শিরীন শারমিন চৌধুরী রাষ্ট্রপতিকে বক্তৃতা দেওয়ার আমন্ত্রণ জানালে স্পিকারের বাম পাশে রাখা ডায়াসে দাঁড়িয়ে বক্তব্য দেন আবদুল হামিদ। বঙ্গবন্ধুর শৈশব থেকে শুরু করে ভাষা আন্দোলন, ছয় দফা আন্দোলন, উনসত্তরের গণ-অভ্যুত্থান, সত্তরের নির্বাচন, একাত্তরের মহান মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীন বাংলাদেশে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকাসহ বঙ্গবন্ধুর বর্ণাঢ্য রাজনৈতিক জীবন নিয়ে আলোচনা করেন রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশকে আলাদা করে দেখার কোনো সুযোগ নেই। বাংলাদেশকে জানতে হলে বাঙালির মুক্তিসংগ্রাম ও মুক্তিযুদ্ধ সম্পর্কে জানতে হবে, বঙ্গবন্ধুকে জানতে হবে। এই দুই সত্তাকে আলাদাভাবে দেখার চেষ্টা যারা করেছে, তারা ব্যর্থ হয়েছে। আজকের বাস্তবতা এর সবচেয়ে বড় প্রমাণ।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘স্বাধীনতার সুফল প্রতিটি ঘরে ঘরে পৌঁছে দিতে হবে। বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা গড়ে তোলার অঙ্গীকার বাস্তবায়নে সবচেয়ে বড় প্রয়োজন ঐক্য। জনগণের ঐক্য, বিশেষ করে মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের ঐক্য। যে ঐক্য একাত্তরে আমাদের এক করেছিল, সেই ঐক্যই গড়ে তুলতে হবে সাম্প্রদায়িকতা, অগণতান্ত্রিক, অসহিষ্ণুতা ও সহিংসতার বিরুদ্ধে।’

আবদুল হামিদ বলেন, গণতন্ত্রকে প্রাতিষ্ঠানিক রূপ দিতে রাজনৈতিক দলগুলোকে পরমতসহিষ্ণুতা, পারস্পরিক শ্রদ্ধাবোধের সংস্কৃতি গড়ে তুলতে হবে। যারা বাস্তবকে অস্বীকার করে কল্পিত কাহিনি ও পরিস্থিতি বানিয়ে দেশের সরলপ্রাণ মানুষকে বিভ্রান্ত ও বিপথগামী করে দেশের শান্তি ও অগ্রগতির ধারাকে ব্যাহত করতে চায়, তাদের বিরুদ্ধে একাত্তরের চেতনায় উদ্বুদ্ধ হয়ে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে হবে। তাহলেই প্রতিষ্ঠিত হবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা, সার্থক হবে বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবার্ষিকী উদ্‌যাপন।

default-image

‘মুজিব বর্ষ’ পালনের উদ্যোগ নেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও সরকারকে এবং বিশেষ অধিবেশন আয়োজনের জন্য স্পিকার ও জাতীয় সংসদকে ধন্যবাদ জানান রাষ্ট্রপতি। বলেন, ‘চলমান করোনা পরিস্থিতিতে বিশেষ অধিবেশনের আয়োজন নিঃসন্দেহে প্রশংসনীয়। আমি আশা করি, অধিবেশনের কার্যক্রম বর্তমান ও ভবিষ্যৎ প্রজন্মকে বঙ্গবন্ধুর জীবন ও কর্ম সম্পর্কে জানাতে ইতিবাচক ভূমিকা রাখবে।’

রাষ্ট্রপতি বলেন, সীমিত সময় ও পরিসরে বঙ্গবন্ধুকে নিয়ে পূর্ণাঙ্গ আলোচনা কোনোভাবেই সম্ভব নয়। তাঁর জীবন ও কর্মের বিস্তৃতি এতটাই বিশাল যে ঘণ্টার পর ঘণ্টা, এমনকি দিনের পর দিন আলোচনা করলেও তা অসম্পূর্ণই থেকে যাবে।

রাষ্ট্রপতি তাঁর বক্তব্যে দেশের উন্নয়নে বর্তমান সরকারের বিভিন্ন উদ্যোগ ও কর্মসূচি তুলে ধরে বলেন, ‘এসব কর্মসূচি গ্রহণের ফলে বঙ্গবন্ধুর সোনার বাংলা বিনির্মাণে আমরা আরও এক ধাপ এগিয়ে যাব। একটি রাজনৈতিক দল যখন এভাবে কাজ করে, তখন জাতির উন্নতি ও কল্যাণ নিশ্চিত হয়। সাধারণ হতদরিদ্র মানুষের মৌলিক চাহিদা পূরণে দলমত–নির্বিশেষে তাদের পাশে দাঁড়াতে পারলে দেশের রাজনীতিতে নতুন অধ্যায়ের সূচনা হবে। মুজিব বর্ষে এটাই হবে সবচেয়ে বড় অর্জন।’

বঙ্গবন্ধু বিরোধী দলের নেতাদের কটাক্ষ করতেন না

সংসদে বঙ্গবন্ধুর ভূমিকা তুলে ধরে রাষ্ট্রপতি বলেন, বঙ্গবন্ধু সংসদের সব কার্যক্রমে বিরোধী সদস্যদের মতামতকে যথেষ্ট গুরুত্ব দিতেন। নিজের অভিজ্ঞতা তুলে ধরে আবদুল হামিদ বলেন, ‘আমার স্পষ্ট মনে আছে, ন্যাপ থেকে নির্বাচিত তৎকালীন গণপরিষদ সদস্য সুরঞ্জিত সেনগুপ্তের কথা। পার্লামেন্টে বক্তৃতা করার সুযোগ চাইলে সব সময়ই তিনি সুযোগ পেতেন। স্পিকার মাঝেমধ্যে তাঁকে মাইক দিতে না চাইলেও বঙ্গবন্ধু বলতেন “ওকে সুযোগ দেন, বিরোধী পক্ষের কথা আগে শুনতে হবে”।’

বঙ্গবন্ধুর সময়ের আইনপ্রণেতা আবদুল হামিদ বলেন, ‌সংসদে আরও একটা বিষয় ছিল লক্ষণীয়, পার্লামেন্টে বঙ্গবন্ধুর বিরুদ্ধে কেউ কথা বললে স্পিকার বিব্রত হতেন, কিন্তু বঙ্গবন্ধু হতেন না। উদার না হলে, গণতান্ত্রিক মনোভাবাপন্ন না হলে, এটা ভাবাই যেত না। ১৯৭৩ সালের পার্লামেন্টে আতাউর রহমান খান, এম এন লারমাসহ বিরোধী দলের কয়েকজন এমপি ছিলেন। তখনো দেখেছি, তাঁরা কথা বলতে চাইলেই সুযোগ পেতেন।

বিজ্ঞাপন

প্রায় সময় বঙ্গবন্ধুই স্পিকারকে বলে সে সুযোগ করে দিতেন। বিরোধী দলের প্রতি বঙ্গবন্ধুর আলাদা একটা মনোযোগ ছিল বলেই এটা সম্ভব হয়েছিল।’

রাজনৈতিক মতাদর্শের যত অমিলই থাকুক না কেন, বঙ্গবন্ধু কখনো বিরোধী দলের নেতাদের কটাক্ষ করে কিছু বলতেন না; বরং তাঁদের যথাযথ সম্মান দিয়ে কথা বলতেন। রাজনৈতিক শিষ্টাচার তাঁর জীবনের একটা উল্লেখযোগ্য বৈশিষ্ট্য ছিল।

default-image

গণপরিষদে নিজের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরে আবদুল হামিদ বলেন, বঙ্গবন্ধু গণপরিষদের কার্যক্রমকে সর্বোচ্চ অগ্রাধিকার দিতেন। গণপরিষদে কোনো বিরোধী দল ছিল না। বিভিন্ন দল ও স্বতন্ত্র সব মিলিয়ে সদস্যসংখ্যা ১০-এ উন্নীত হয়নি। কিন্তু বিরোধী সদস্যরা প্রতিবাদ মুখর ছিলেন, দীর্ঘক্ষণ বক্তব্য রাখার সুযোগ পেতেন। সংসদ অধিবেশন হতো প্রাণবন্ত। যুক্তিতর্ক ও মতামত উপস্থাপন ছিল খুবই আকর্ষণীয়।

সবকিছুর ঊর্ধ্বে ছিল সংসদে স্বয়ং বঙ্গবন্ধুর উপস্থিতি ও তাঁর ভাষণ।
আবদুল হামিদ বলেন, বঙ্গবন্ধু সংসদে হাস্যরস করতেও পিছপা হতেন না। একবার সংসদে বক্তব্য দানকালে হাসতে হাসতে বলেছিলেন, ‘মাননীয় স্পিকার, আপনার মাধ্যমে অনুরোধ জানাচ্ছি যে ভবিষ্যতে আমার মাইকটি একটু উঁচু করে দেবেন, আমি মানুষ একটু বেশি লম্বা।’

করোনা মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রীর পদক্ষেপের প্রশংসা

বৈশ্বিক মহামারি করোনাভাইরাস মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার বিভিন্ন পদক্ষেপের ভূয়সী প্রশংসা করেন রাষ্ট্রপতি। তিনি বলেন, উন্নত বিশ্ব হিমশিম খাচ্ছে করোনা দুর্যোগ মোকাবিলায়। বাংলাদেশও এর ব্যতিক্রম নয়। এ অনাকাঙ্ক্ষিত পরিস্থিতি মোকাবিলায় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ৩১ দফা নির্দেশনা এবং প্রতিনিয়ত ভার্চ্যুয়াল কনফারেন্সের মাধ্যমে মাঠ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় করেছেন, দিকনির্দেশনা দিয়েছেন। তাঁর এই সময়োচিত সাহসী সিদ্ধান্ত এবং অক্লান্ত পরিশ্রমের ফলে বাংলাদেশ করোনা পরিস্থিতি সাফল্যের সঙ্গে মোকাবিলা করে যাচ্ছে।

করোনাভাইরাসের ভ্যাকসিন বিশ্বের সবার জন্য নিশ্চিত করার আহ্বান জানিয়ে রাষ্ট্রপতি বলেন, একক বা আঞ্চলিক ভিত্তিতে এর প্রাদুর্ভাব মোকাবিলা করা সম্ভব নয়। করোনার ভ্যাকসিন বিশ্বের সব দেশ ও অঞ্চল যাতে একই সময়ে ও সমভাবে পায়, তা নিশ্চিত করতে বিশ্বসম্প্রদায়কে এগিয়ে আসতে হবে।

রাষ্ট্রপতি বলেন, ‘আমরা এ জেনে আশাবাদী যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুনির্দিষ্ট নির্দেশনার পরিপ্রেক্ষিতে সরকার যথাসময়ে ভ্যাকসিন পাওয়ার সব ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান তাঁর ঐতিহাসিক ৭ মার্চের ভাষণে বলেছিলেন, “৭ কোটি মানুষকে দাবায়ে রাখতে পারবা না।” করোনা মহামারি আমাদের উন্নয়ন ও অগ্রগতির ধারাকে সাময়িকভাবে বাধাগ্রস্ত করলেও থামিয়ে দিতে পারেনি।

আমি আশা করি, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সুযোগ্য নেতৃত্বে করোনাসহ সব বাধা-বিপত্তি উপেক্ষা করে বাঙালি জাতি কাঙ্ক্ষিত লক্ষ্যে এগিয়ে যাবে এবং গড়ে তুলবে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সুখী-সমৃদ্ধ বাংলাদেশ।’

বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের ‘জ্যোতি’ কবিতা থেকে আবৃত্তি করেন রাষ্ট্রপতি, ‘ভেঙেছ দুয়ার, এসেছ জ্যোতির্ময়, তোমারি হউক জয়। তিমিরবিদার উদার অভ্যুদয়, তোমারি হউক জয়।’

মন্তব্য পড়ুন 0