গাবতলীতে হবে টিওডি হাব

গাবতলী বাস টার্মিনালটি বর্তমানের জায়গা থেকে সরিয়ে নিতে চাইছে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশন (ডিএনসিসি)। তবে মেট্রোরেল প্রকল্পের আওতায় এ জায়গায় টিওডি হাব করতে চায় ডিএমটিসিএল কর্তৃপক্ষ। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, গাবতলী বাস টার্মিনালের জায়গায় টিওডি হাব হলে বর্তমানের অবকাঠামো ভেঙে ফেলার প্রয়োজন হবে না। বিষয়টি নিয়ে ডিএনসিসির সঙ্গে আলোচনা চলছে। শিগগিরই ডিএমটিসিএল ও সিটি করপোরেশনের মধ্যে সমঝোতা স্মারক সই হতে পারে।

ডিএমটিসিএলের কর্মকর্তারা বলছেন, ভবিষ্যতে তিনটি মেট্রোরেল, একটি সার্কুলার রেল ও একটি চার লেন সড়কের সংযোগস্থল হবে গাবতলী। এ জন্য সেখানে পরিকল্পিতভাবে বিপণিবিতান, হোটেল, বিনোদনকেন্দ্র, বাস টার্মিনালসহ বাণিজ্যিক স্থাপনা গড়ে তুললে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের আয় বাড়বে।

আরও যেসব পরিকল্পনা

গাবতলী এলাকার তিনটি মেট্রোরেলের লাইনের পথ হচ্ছে লাইন-১ (গাবতলী থেকে ধানমন্ডি, গুলিস্তান হয়ে চিটাগং রোড), লাইন-৫ উত্তর পথ (সাভারের হেমায়েতপুর থেকে মিরপুর ও গুলশান হয়ে ভাটারা), লাইন-৫ দক্ষিণ পথ (গাবতলী থেকে রাসেল স্কয়ার ও হাতিরঝিল হয়ে দাশেরকান্দি)। গাবতলী ছাড়াও এসব লাইনে একাধিক টিওডি হাব নির্মাণের পরিকল্পনা আছে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের।

নির্মাণাধীন এমআরটি লাইন-৬ এর পর কাজ দ্রুত শুরু করার পরিকল্পনা আছে লাইন-১–এর। এই লাইনের দুটি অংশ। প্রথম অংশটি পাতাল পথে কমলাপুর রেলস্টেশন থেকে বিমানবন্দর পর্যন্ত। দ্বিতীয় অংশটি বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার পাশ দিয়ে পূর্বাচলের পিতলগঞ্জে যাবে। এ লাইন নির্মাণের পূর্ণাঙ্গ নকশা ৭৫ শতাংশ সম্পন্ন হয়েছে। জমি অধিগ্রহণ চলছে। পূর্বাচলে একটি টিওডি হাব নির্মাণ করার পরিকল্পনা আছে।

default-image

উল্লেখ্য, মেট্রোরেলের ভাড়া ঠিক করতে সড়ক পরিবহন মন্ত্রণালয়ের একটি কমিটি কাজ করছে। এর সঙ্গে যুক্ত সূত্র জানিয়েছে, মেট্রোর ভাড়া খুব বেশি ধরার সুযোগ নেই। এতে মেট্রো জনপ্রিয়তা পাবে না। এ ক্ষেত্রে প্রকল্পের ব্যয় ও রক্ষণাবেক্ষণ খরচ তুলতে হলে বছর বছর ভর্তুকি দিতে হবে। এতে মেট্রোরেল দায়গ্রস্ত প্রতিষ্ঠানে পরিণত হতে পারে। মূলত এ কারণে বাড়তি আয়ের লক্ষ্যে টিওডি হাব খোলার মতো বাণিজ্যিক পরিকল্পনা হাতে নিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

এ বিষয়ে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের পুরকৌশল বিভাগের অধ্যাপক ও পরিবহন বিশেষজ্ঞ সামছুল হক প্রথম আলোকে বলেন, রক্ষণাবেক্ষণ খরচের কারণে সারা পৃথিবীতে মেট্রোরেলকে শ্বেতহস্তী মনে করা হয়। এ জন্য অনেক দেশেই সরকারকে ভর্তুকি দিতে হয়। টিওডির ধারণা আধুনিক ও বিশ্বব্যাপী সমাদৃত। তবে টিওডি শুধু মেট্রোরেলকেন্দ্রিক বিষয় নয়। শুধু বিপণিবিতান নির্মাণ করলেই চলবে না। পুরো শহর পরিকল্পনার সঙ্গে সমন্বয় করতে হবে। এ প্রকল্প নিজের টাকায় না করে সরকারি-বেসরকারি যৌথ বিনিয়োগে (পিপিপি) করার পরামর্শ দেন তিনি।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন