বিজ্ঞাপন

জাহিদ মালেক বলেন, ‘আগাম সতর্কতা হিসেবে দেশের বিভিন্ন ওষুধ কোম্পানিকে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের প্রতিষেধক ওষুধ উৎপাদন বৃদ্ধি করতে বলা হয়েছে এবং একই সঙ্গে এই রোগের উপযুক্ত চিকিৎসায় করণীয় কী হবে, সে ব্যাপারেও সংশ্লিষ্ট বিভাগকে নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে।’

বিবিসির খবরে বলা হয়, ভারতে মিউকরমাইকোসিস বা ‘ব্ল্যাক ফাঙ্গাস’ ব্যাপক আকারে ছড়িয়ে পড়ছে। সাধারণ সময়ে প্রতিবছর দেশটিতে যেখানে ২০ জনের মতো মানুষ এই ফাঙ্গাসে সংক্রমিত হন, এবার সেই সংখ্যা কয়েক হাজার। দেশটিতে এ পর্যন্ত ৮ হাজার ৮০০ জন এই ফাঙ্গাসে সংক্রমিত হয়েছেন। ব্ল্যাক ফাঙ্গাস বা কালো ছত্রাকে সংক্রমিত প্রায় ৫০ শতাংশ মানুষ মারা যাচ্ছেন। আর যারা বেঁচে যাচ্ছেন, তাঁদের মধ্যে একটি অংশের চোখ অপসারণ করতে হচ্ছে।

ভারতে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ব্যাপক আকার ধারণ করেছে। এর চিকিৎসায় স্টেরয়েড ব্যবহার করা হতো। চিকিৎসকেরা বলেন, এই স্টেরয়েড চিকিৎসার সঙ্গে ব্ল্যাক ফাঙ্গাসের সংক্রমণের যোগসূত্র রয়েছে। যারা ডায়াবেটিসে আক্রান্ত বিশেষ করে তাঁরা এই ফাঙ্গাসের ঝুঁকিতে থাকেন বেশি।

ভারতের চিকিৎসকেরা বিবিসিকে বলেন, কোভিড-১৯ থেকে সেরে ওঠার ১২ থেকে ১৮ দিনের মধ্যে এর সংক্রমণ দেখা দেয়।

এই রোগের লক্ষণের মধ্যে রয়েছে সাইনাসের ব্যথা, এক নাক বন্ধ হয়ে যাওয়া, মাথার এক পাশে ব্যথা, ফুলে যাওয়া, দাঁতে ব্যথা ইত্যাদি। এই রোগে নাকের ওপর কালচে দাগ, ঝাপসা দেখা, একটি জিনিসকে দুটো দেখা, বুকে ব্যথা, শ্বাসকষ্ট ও কফের সঙ্গে রক্ত আসতে পারে।

বাংলাদেশ থেকে আরও পড়ুন
মন্তব্য করুন
বিজ্ঞাপন
বিজ্ঞাপন